শুক্রবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত শিশু সুরভী বাঁচতে চায়

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত সুরভী খাতুন পৃথিবীতে বেঁচে থাকতে চায়। কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার জুম্মাপাড়া এলাকার দিনমজুর শফিকুল ইসলাম ও গৃিহনী শাহিদা বেগমের দ্বিতীয় কন্যা সুরভী খাতুন। বয়স ৪ বছর ৮মাস।  ছোট বেলা থেকে ফুটফুটে সুস্বাস্থ্যের অধিকারী ছিল সুরভী খাতুন। কিন্তু হঠাতেই গত ৫মাস আগে দেহে বাসা বাধে অজ্ঞাত এক রোগ। বিভিন্ন চিকিৎসা কেন্দ্রে গেলেও চিকিৎসকরা তার রোগ নির্ণয় করতে পারেনি।

শরীরের ওজন বৃদ্ধি পেয়ে ২৫ কেজিতে দাড়িয়েছে।সুরভীর মা শাহিদা বেগম জানান,গত ৫মাস আগে সুরভীর চোখ লাল হয়। ডাক্তারের পরামর্শে চোখের ড্রপ ব্যবহার করা হয়। চোখের ড্রপ ব্যবহারের পর দু’চোখের নিচের অংশ ফুলে ওঠে। পরে আস্তে আস্তে পুরো শরীর মোটা হতে থাকে এবং ব্রেনের সমস্যা দেখা দেয়। শিশু বিশেষজ্ঞের পরামর্শে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়ে ৬দিন চিকিৎসা নেয়ারপর চিকিৎসকরা রোগ নির্ণয় করতে না পারায় বাড়ীতে নিয়ে আসি।

তিনি আরও জানান,বর্তমানে মেয়েটি এলোপাতারি ভাবে পাগলের মত ঘুরে বেরায় ও অন্য শিশুদের ধরে হাছর দিয়ে আক্রান্ত করে। বাধ্য হয়ে মেয়েকে বেধেঁ রাখতে হয়। সুরভীর বাবা শফিকুল ইসলাম জানান,তার বাড়ী ভিটে ছাড়া অন্য কোন সম্পদ নেই,দিন মজুরের কাজ করে যা আয় হয় তা দিয়ে সংসার চালান তিনি। আদরের মেয়েকে বাঁচাতে তিনি ধার দেনা করে ইতোমধ্যে ৬০হাজার টাকা খরচ করেছেন। অসুস্থ্য বাচ্চাকে রেখে তিনি দিন মজুরের কাজে যেতে না পারায় অর্ধাহারে অনাহারে দিনাতিপাত করছেন তিনি। এ অবস্থায় মেয়ের চিকিৎসার চালিয়ে যাওয়ার মত কোন অর্থ তার হাতে নেই। শিশু সুরভীর জীবন বাঁচাতে তিনি বিত্তবানদের সহায়তা কামনা করছেন। যোগাযোগঃ ০১৯৯৮-৬৭২৭২৪।