রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

অনন্য প্রতিভাবান আনোয়ার হোসেন

আকতার হোসেন বকুল, পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি ॥ জয়পুরহাট-দিনাজপুর জেলার পাঁচবিবি-হাকিমপুর উপজেলার (হিলি) শুন্যরেখার জয়পুরহাট-হিলি পাকারাস্তার পাশে ছোট্ট একটি জড়াজীর্ন খুপড়ি ঘর। এ ঘরেই নরসুন্দরের (নাপিত) কাজ করে চলে তার সংসার। জাদুঘরের আদুলে ভাঙ্গা ঘরের চারপাশে সাজিয়ে রাখা আছে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন মনীষি ব্যাক্তির কাঠের তৈরী ম্যূরাল। ভারতের মহাত্তা গান্ধী, বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবর রহমান, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, লালন শাহ্, বাবা শেখ ফরিদ সহ বিভিন্ন নামকরা গুণীব্যাক্তিদের ম্যূরালগুলো শোভা পাচ্ছে ঘরটিতে। প্রাতিষ্ঠানিক কোন শিক্ষা অর্জন ছাড়াই এমনকি কোন ওস্তাদের কাজ দেখেও শেখা নয় শুধু মনের গহীন থেকেই এমন কারুকাজ সে দীর্ঘদিন থেকে করছেন।

পাঁচবিবি-হাকিমপুর উপজেলার শুনরেখা হাকিমপুর মহিলা কলেজ গেট এলাকার খাদেম আলীর ছেলে আনোয়ার হোসেন। আনোয়ারের মাথায় ঝাটকা চুল, লম্বা দাড়ি আর লাল সাদা পোশাক সর্বক্ষন পরিধান করায় এলাকার সবাই তাকে বাউল আনোয়ার নামে ডাকে। কুষ্টিয়ার কুমারখালী লালন একাডেমির সে একজন নিয়মিত সদস্য। প্রতিবছর কুষ্টিয়ার লালন একাডেমির অনুষ্ঠানে এলাকার অনেককে নিয়ে দলবলসহ উপস্থিত হন বাউল আনোয়ার। পাঁচবিবির ভীমপুর বাসস্ট্যান্ডের কৃষ্ণচুড়া গাছটি ঝড়ে ভেঙ্গে যাওয়া গোড়ার অংশটি হাতুল বাটাল দিয়ে লালনের ম্যূরাল তৈরী করছেন। বাসযাত্রী, পথচারি সহ অনেকেই তার এমন কারুকাজ দাঁড়িয়ে দেখছেন এবং তার এমন প্রতিভার প্রসংশা করছেন।

এমন একটি ম্যূরাল তৈরী করতে আপনার কতদিন সময় লাগে জানতে চাইলে আনোয়ার বলেন, ১-২ দিনের মধ্যেই একটি ম্যূরাল তৈরী করতে পারব। সংসার চলার জন্য নাপিতের কাজের পাশাপাশি অবসর সময়ে আমি এ কাজ করি। এতগুলো ম্যূরাল বানিয়েছেন বিক্রয় করবেন কি এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, কোন দিনই না। আমার তেমন টাকা-পয়সা নেই তবে ইচ্ছা আছে লালন একাডেমি করব আর স্মৃতি হিসাবে ম্যূরালগুলো রেখে দিব।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email