বৃহস্পতিবার ২৫ জানুয়ারী ২০১৮ ১২ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

অনাকাঙ্খিত ক্ষমতার লাগাম টেনে ধরা জরুরি

কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় বাড়ি যাতায়াতে ট্রেনেই চড়তাম বেশী। আন্তনগরের দেখা পেয়েছি শেষবর্ষে এসে। তার আগে টিকেট কেটে কখনও ট্রেনে চড়েছি সেরকম মনে পড়ে না। ট্রেনে ওঠার পর আমাদের দেহের ভাষা আর আচরণে ‘টিটি মামা’ সহজেই বুঝতে পারতেন যে আমরা ছাত্র। টিকেট আছে কি নেই জানতেই চাইতেন না। এ প্রসঙ্গে মাঝে মাঝে একধরনের বিপদের গল্প শোনা যেত। বিপদটির নাম ‘মোবাইল কোর্ট’। টিকেট বিহীন মোবাইল কোর্টে ধরা পড়লে জরিমানা গুণতে হতো অথবা জেল দন্ড। সেখানে নিজের পক্ষে নাকি সাফাই গাওয়ার কোন সুযোগ থাকে না। কথা বললেই সাথে সাথে দন্ড দ্বিগুণ। কে জানে হতেও পারে! তবে আমি এমন বিপদে পড়িনি কখনও।

বছর কয়েক আগে একটা আইনের কথা খুব শোনা গেল। পাবলিক প্লেসে সিগারেট খাওয়া যাবেনা। ধরা পড়লে নগদ জরিমানা পঞ্চাশ টাকা। ওৎ পেতে থাকা পুলিশ খপ করে ধরে নিয়ে সরাসরি মোবাইল কোর্টে চালান করবে। তারপর যথারীতি জরিমানা প্রদানান্তে নিস্কৃতি অথবা হাজত বাস। আইনজারীর প্রথম কয়েকদিন ধুমপায়ীদের মধ্যে কিছুটা ভয় মিশ্রিত সচেতনতা লক্ষ্য করা গেলেও কয়েকদিন বাদেই যথাপূর্বং। ট্রেনের মোবাইল কোর্টের মতই ‘টানে’র মোবাইল কোর্টও আমার দেখা হয় নাই।

বছর দশেক আগে একজন নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট রীতিমত কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন রাজধানীর অসাধু ব্যবসায়ীদের । ভদ্রলোক নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করতেন। তার কর্মনিষ্ঠার কারনেই ঢাকা শহরের মাছের বাজার আর পশ রেস্তোরাগুলোর অন্দরমহলের কদাকার চেহারা ক্রমশ দৃশ্যমান হয়ে উঠেছিলো। অল্পদিনেই দুষিত মিনারেল ওয়াটার ভেজাল ওষুধ অবৈধ কেমিক্যাল ব্যবসা ইত্যাদির দফারফা করে ছেড়েছিলেন তিনি। ইতিবাচক অর্থেই তিনি তখন একজন তারকা। ঘনঘন তাঁর ডাক পড়তে থাকে টিভির টকশোগুলোতে। ছোট মাঝারি অনাচারের বিরুদ্ধে তিনি তার যুদ্ধের কথা বলতেন সেখানে। মোবাইল কোর্ট পরিচালনার ব্যাপারটিকে মানুষ তখন সাদরে গ্রহণ করেছিলো।

মোবাইল কোর্ট সংক্রান্ত দুটি ঘটনা সম্প্রতি ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে। একটা তুচ্ছ ঘটনায় লক্ষীপুরের এডিসির সাথে আক্ষরিক অর্থেই হাতাহাতি জড়িয়ে পড়েন সেখানকার একজন অবসর প্রাপ্ত সিভিল সার্জন। খুব সহজেই তাদের বয়সের পার্থক্য অনুমান করা গেলেও দুজনের কমন সেন্সের মাত্রা কতটা নিম্নপর্যায়ের সেটা নিরূপন করা সম্ভব হয় নাই। তবে তাৎক্ষণিকভাবে এডিসি সাহেবের ক্ষমতার পরিমানটা অনুমান করতে পেরেছে দেশের আমজনতা। একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে দিয়ে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে সাথে সাথে এডিসি মহোদয় সেই অবসরপ্রাপ্ত চিকিৎসকের জেলদন্ড কার্যকর করিয়েছেন। নিছক ব্যক্তিগত সমস্যা সমাধানে রাষ্ট্রের আইনকে ব্যবহারের এই প্রবণতা কতটা নৈতিক সে প্রশ্ন কিন্তু উঠতেই পারে।

তবে ক্ষমতা প্রয়োগে সভ্যতার সীমা ছাড়িয়ে যাওয়ার আরেকটি ঘটনা অতি সম্প্রতি ঘটেছে আমাদের জনপদে। দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার এসিল্যান্ড সাহেব তার অফিসে দাপ্তরিক কাজে আসা একজন অাইনজীবিকে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে দন্ডিত করেছেন। দন্ডিত করার এই প্রক্রিয়া আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভুত কিনা স্বতপ্রণোদিত ভাবে সে সমাধান দিয়েছেন উচ্চ আদালত। সে ব্যাপারে সাধারন মানুষের কোন মাথাব্যথা নেই। তবে আইনজীবিকে দন্ডিত করার পরে এসিল্যান্ডের দম্ভোক্তি – “আমার ক্ষমতা আমি দেখালাম পারলে আপনার ক্ষমতা আপনি দেখান”- সাধারন মানুষের জন্য মাথাব্যথারতো বটেই আশংকারও।

ক্ষমতা দেখানোর অনাকাঙ্খিত ক্ষমতার লাগাম টেনে ধরা সভ্য রাষ্ট্র গঠণের জন্য জরুরি।

লেখক-সুভাষ দাশ

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর