বৃহস্পতিবার ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

অপু বিশ্বাস বা মিতু রিশা পূজা’রা যা আপনার মত সোফিয়াও তা-ই

robot

সোফিয়াকে নাগরিকত্ব দিয়েছে সৌদি আরব। ইতিমধ্যে সোফিয়া নিজে নাগরিক অধিকার প্রাপ্তির জন্য সৌদি কর্তৃপক্ষকের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে। সোফিয়া তার এক বক্তব্যে নিজের একটা পারিবারিক জীবন সাথে এক কণ্যা সন্তানের মা হওয়ার আকাঙ্খার কথা জানিয়েছে। যদিও রাষ্ট্রীয় নীতির সাথে সামঞ্জস্য রেখে সৌদী আরব তাদের হঠাৎ নেয়া সিদ্ধান্তের স্হায়ি রূপ দিতে পারবে কিনা এখন এ প্রশ্নও উঠেছে। কারন কোনও নিয়ন্ত্রিত স্বাধীনতার শিকল দিয়ে সোফিয়াকে বেঁধে রাখা তাদের পক্ষে সম্ভব হবে না নিশ্চিত। কিন্তু এটাতো বলাই যায় শিকল পড়া নারী রাজ্যে নিজের ‘মানবিক’ মর্যাদা লাভে সোফিয়ার যান্ত্রিক মন আনন্দে নিশ্চয়ই নেচে উঠবে। হয়ত সোফিয়ার স্রষ্টা ড: ডেভিড হ্যানসেনও এতটা ভাবতে পারেননি। যে দেশে নিজ ভুমিতে জন্ম নেয়া নারীরা আজও তাদের ন্যুনতম স্বাধীনতার স্বপ্নটা পর্যন্ত দেখা শুরু করতে পারেনি সে দেশে সোফিয়ার মত প্রযুক্তির গর্ভে জন্ম নেয়া একজন যান্ত্রিক মানবীর অধিকার প্রাপ্তির খবর নিশ্চিত আগামীদিনের অনেক শুভ কিছুর ঈঙ্গিত দেয়।

‘হ্যানসেন রোবটিকস’ কি কারনে এ যন্ত্রকে নারী রূপ দিয়েছেন সেটা তারাই জানেন। সোফিয়ার ইলেক্ট্রনিক মস্তিস্কে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সার্কিট জুড়ে দিয়েছেন তারা। যে কারনে নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে থেকে তাকে করা সব প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে সে। সেসব প্রশ্নের বিপরীতে সোফিয়া তার পরিকল্পনার কথা তার স্বপ্নের কথা বলছে। বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তার যান্ত্রিক অনুভুতি কখনও কখনও মানবিক অনুভুতির কাছাকাছিও পৌঁছে যাচ্ছে। কথার মধ্যে কখনও সে হাসছে কখনও কোনও সিরিয়াস প্রশ্নের জবাবে মুখাবয়বে সে ফুটিয়ে তুলছে যথাযথ গাম্ভীর্য।

‘আড়াই বছর’ বয়সী তরুণী সোফিয়া এখন ঢাকায়। একটা বিজ্ঞান আয়োজনে আজ তাকে উপস্হাপন করা হবে। বাংলাদেশ সম্পর্কে কি কি তথ্য তাকে দেয়া হয়েছে জানা যায় নাই। কিন্তু সাধারন বুদ্ধিতে এটা সহজেই বোঝা যায় যে তাকে মিতু তনু খাদিজা বা পূজাদের গল্প বলা হয় নাই। বাংলাদেশের প্রায় ছেয়াশি শতাংশ নারী যে বিভিন্ন ফর্মে পারিবারিক নির্যাতন এবং লিঙ্গ বৈষম্যের শিকার এ কথাও নিশ্চিত তাকে জানানো হবে না। দেশের গার্মেন্ট শিল্পের উজ্জ্বল অংশটা তাকে দেখানো হবে কিন্তু তাকে বলা হবে না কি ভয়াবহ পুরুষতান্ত্রিকতার অন্ধকারে ডুবে আছে এ শিল্পের ভেতরটা। বরং তাকে বলা হবে এ দেশের রাজনীতি এবং রাষ্ট্র ব্যবস্হা দীর্ঘ সময় ধরে পরিচালিত হচ্ছে নারীদের হাত দিয়ে। এ দেশের নারীরা যে বাস ট্রেন বিমান চালায় এগুলোও হয়ত এরই মধ্যে বসিয়ে দেয়া হয়েছে সোফিয়ার ইলেক্ট্রনিক কোষে। এ সমস্ত তথ্য মাথায় নিয়ে সোফিয়া নিশ্চয়ই হাসি মুখে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলবে। হয়ত তার যন্ত্র-মানবিক অনুভুতি দিয়ে তাকে বলানো হবে, ‘বাহ্ দারুন তো!’

বিশ্ব সেলিব্রেটি সোফিয়া যখন কথা বলবে সাংবাদিকদের সাথে ঠিক সেই সময় এ দেশের আরেক সেলিব্রেটি বাচ্চা কোলে সাংবাদিকদের পেছনে ঘুরে বেড়াচ্ছে তার কান্না দেখানোর জন্য। দেশের এ সেলিব্রেটি সম্প্রতি দ্বিতীয়বারের মত স্বামী পরিত্যক্তা হয়েছেন। লম্বা সাত বছরের গোপন বিবাহিত জীবন বছর খানেক আগে প্রকাশ্যে আসে তাদের বিচ্ছেদের খবর নিয়ে। আমাদের মিডিয়া মূহুর্তে লুফে নেয় এ ইস্যু। যে মিডিয়া পাদপ্রদীপের আলোয় থাকা একজন অভিনেত্রীর সাত বছরের বিবাহিত জীবন বা সন্তান ভুমিষ্ঠ হওয়ার খবর জানাতে পারেনা তারাই দফায় দফায় বিভিন্ন চ্যানেলে হাজির করে নায়িকার কান্না দেখাতে থাকে। নায়কের সন্মান বাঁচাতে একশ্রেণীর চলচ্চিত্র-সুশিল আর মিডিয়াকে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায় সে সময়। আপাত সফলও হয় তারা। ভাঙ্গা সম্পর্ক জোড়া লাগে। কিন্তু সে সম্পর্ক যে কতটা ঠুনকো ছিলো সেটা বোঝা গেল বছর না ফুরাতেই। বাচ্চা বাড়িতে রেখে চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার অপরাধে অারেকবার তালাক দেয়া হলো নায়িকাকে। এবার পানি গড়াতে গড়াতে কোথায় গিয়ে থামবে কে জানে!

এ দেশের অতি আবেগী তরুণীদের কেউ কেউ স্টেডিয়ামের গ্যালারীতে বসে প্ল্যাকার্ড উচিয়ে ধরে- ‘আফ্রিদি, প্লিজ ম্যারী মি।’ সেরকম আবেগের উচ্ছাসে ভেসে ‘বদরুলে’র মত কোন তরুণ যদি সোফিয়া আপনার দিকেও প্ল্যাকার্ড তুলে ধরে তাহলে একটু ভাববেন প্লিজ!

এদেশে শীর্ষ চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস বা মিতু রিশা পূজা’রা যা আপনার মত সোফিয়াও তা-ই।

 

লেখক-সুভাষ দাশ

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর