মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অবশেষে সই হল টিকফা চুক্তি

সাব্বির হোসেন অনিক (আন্তর্জাতিক ডেস্ক) ঃ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে
বহুপ্রতীক্ষিত বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সহযোগিতার রূপরেখা নিয়ে টিকফা চুক্তি সই
হয়েছে। সোমবার বাংলাদেশ সময় রাত সোয়া  ৯টার দিকে ওয়াশিংটনে এই চুক্তিতে
সই করে দুই পক্ষ।

দীর্ঘ প্রায় ১১ বছর ধরে চলা আলোচনার পর দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ
সহযোগিতার এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হলো।পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বহিঃপ্রচার
বিভাগের মহাপরিচালক শামীম আহসান এ তথ্য জানিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের দূতাবাসের প্রেস মিনিস্টার স্বপন কুমার সাহার
সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ওয়াশিংটনে যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য
প্রতিনিধির (ইউএসটিআর) কার্যালয়ে এই চুক্তিতে সই করেন বাণিজ্য সচিব
মাহবুব আহমেদ ও ডেপুটি ইউএসটিআর ওয়েন্ডি কাটলার।

চুক্তি স্বাক্ষরের সময় উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রদূত আকরামুল কাদের, ইউএসটিআর
রাষ্ট্রদূত মাইকেল ফ্রোম্যান ও যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী
নিশা দেসাই বিসওয়ালসহ দু’দেশের শীর্ষ সরকারি কর্মকর্তারা।

গত ১৭ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে
‘ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট কোঅপারেশন ফোরাম এগ্রিমেন্টের’ খসড়ায় এই
অনুমাদন দেয়া হয়।

বৈঠকের পর মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা সাংবাদিকদের
বলেন, এই চুক্তি হওয়ার পর ব্যবসা ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের
একতরফা সিদ্ধান্ত গ্রহণের সুযোগ সঙ্কুচিত হবে।

তিনি জানান, “চুক্তি হওয়ার পর এই ফোরামে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্পর্কে
নিয়মিত আলোচনা হবে। বাংলাদেশের পক্ষে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং
যুক্তরাষ্ট্রের ইউএসটিআর (ইউনাইটেড স্টেট ট্রেড রিপ্রেজেনটেটিভ) বছরে
অন্তত একবার বৈঠকে বসবে।”

এই ফোরামে বেসরকারি খাত ও সুশীল সমাজের সঙ্গে পরামর্শ করারও সুযোগ থাকবে
বলে সচিব জানান।

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশি পণ্য, বিশেষ করে তৈরি পোশাকের
শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকারের দাবি দীর্ঘ দিনের। স্বল্পোন্নত দেশ হওয়ার পরও
বাংলাদেশ এ সুবিধাটি পাচ্ছে না টিকফা চুক্তি না হওয়ার কারণে।

যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, এ চুক্তি হলে বাংলাদেশে
যুক্তরাষ্ট্রের বিনিয়োগ এবং যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশের পণ্য
রপ্তানি কয়েকগুণ বাড়বে।

তবে বিভিন্ন বাম দল এই চুক্তির বিরোধিতায় বলে আসছে, মেধাসত্ব আইনের কঠোর
বাস্তবায়ন হলে তা যুক্তরাষ্ট্রের বড় কোম্পানিগুলোর অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক
হাতিয়ারে পরিণত হবে। এই চুক্