বুধবার ২০ জুন ২০১৮ ৬ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

অর্থনৈতিক অসমতা রুখতে হবে : মেনন

‘সারা বিশ্বে এখন অর্থনৈতিক অসমতা। এটাই এখন বিশ্বের প্রধান চ্যালেঞ্জ। বিশ্ব বিবেক জাগ্রত করে অর্থনৈতিক অসমতা রুখতে হবে।’

সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন শুক্রবার দক্ষিণ এশিয়া ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার বামপন্থি দলগুলোর নেতাদের পরবর্তী বিশ্ব ভাবনা শীর্ষক সম্মেলন ‘এশিয়ান অ্যাসেম্বলি অব পিপলস্ মুভমেন্ট অ্যান্ড অরগানাইজেশন’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বর্তমান বিশ্বে মাত্র আটজন লোকের হাতে চলে গেছে গোটা বিশ্বের ৫০ ভাগেরও বেশি সম্পদ। এটি মানবতার চরম লঙ্ঘন। এই অর্থনৈতিক অসমতা আজ এশিয়া ও দক্ষিণ এশিয়াতেও চলে এসেছে। যা খুবই উদ্বেগজনক।

রাশেদ খান মেনন বলেন, বিশ্বব্যাপী এক শ্রেণির মানুষ আজ কঠোর শ্রম দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে চলেছে। অন্যদিকে আরেক শ্রেণির হাতে রয়েছে অস্ত্র, পুঁজি ও পেশিশক্তি। এক শ্রেণির মানুষ দিনরাত পরিশ্রম করে দেশের, পরিবারের, প্রতিবেশীদের উন্নয়ন ঘটাচ্ছে, অন্যদিকে পূঁজিবাদী শক্তি দুর্বল শ্রমজীবী মানুষদের ওপর দমন নিপীড়ন চালাচ্ছে। এই অবস্থা চলতে দেওয়া যায় না। আমাদেরকে এই বৈষম্য দূর করতে হবে।

ভারতের পিপলস্ সাইন্স মুভমেন্টের সভাপতি প্রবীর পুরোকায়স্ত এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মূল বিষয়বস্তু উপস্থাপন করেন নেপালের সিপিডির চেয়ারম্যান ও সেদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাধব কুমার নেপাল।

অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বক্তব্য রাখেন।

মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, বর্তমান নব্য বিশ্বায়ন ভাবনার বিরুদ্ধে সবাইকে সর্বদা সোচ্চার থাকতে হবে। বৈষম্যহীন শোষণ  বঞ্চনাহীন অসাম্প্রদায়িক বিশ্ব গড়তে হবে।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বিশ্বব্যাপী প্রভুত্ববাদ, কর্তৃত্ববাদ ও নব্য উদার অর্থনীতি এবং এর প্রভাব নিয়ে আলোচনা করেন। বর্তমান অনলাইনের যুগে বিশ্বের সকল প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা সব বাম শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান নেপালের সিপিডির চেয়ারম্যান মাধবকুমার।

২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৫ মার্চ পর্যন্ত ভেনিজুয়েলার রাজধানী কারাকাসে বামদলভিত্তিক পরবর্তী সম্মেলন ‘ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অব পিপলস্ মুভমেন্ট অ্যান্ড অরগানাইজেশন’ অনুষ্ঠিত হবে।