বৃহস্পতিবার ১৬ অগাস্ট ২০১৮ ১লা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

অল্প সময়ে, ফলনের আশায় খানসামায় ধানের বাজার মুল্য বেশী ॥ আউশের চাষে ঝুকছে কৃষক ॥ পাটে মন্দা

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ এবার ধানের বাজার মুল্য বেশী, রশুনের দাম কম আবার গতবছর পাটের ফলন কম হওয়ায় এবার চলতি মওসুমে আউস ধানের চাষে ঝুকছে কৃষকরা।

দিনাজপুরের খানসামায় চলতি মৌসুমে তাই আউশ ধান চাষ বাড়লেও বাজার মূল্য ও ফলন কম হওয়ার কারণে এ মৌসুমে পাটের চাষ কমে গেছে। পাটের জমিতে চাষ হচ্ছে আউশ আর ভুট্রা।

চলতি বছর খানসামা উপজেলার প্রায় ৪ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে রসুন এবং ৩৫৫ হেক্টর জমিতে গমের চাষ করা হয়েছে। গত দু’তিন বছর আগে রসুন ও গম চাষের জমিগুলোতে আগ্রহ নিয়ে চাষিরা পাট চাষ করত। গতবছর পাট চাষ হয়েছে ২ হাজার ৮১০ হেক্টর জমিতে। কিন্তু চলতি বছর এসবের বেশির ভাগ জমিতে আউশ ধান চাষ করছে চাষীরা। আউশের প্রস্তুতি হিসেবে বিভিন্ন এলাকায় আদর্শ পদ্ধতিতে শুকনা ও ভেজা স্থানে চাষিদের তৈরি বীজতলা বিশেষ ভাবে লক্ষনীয়।

উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, চলতি মৌসুমে আউশ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৬৩৩ হেক্টর জমিতে। গত বছর ছিল ৬২০ হেক্টর। তবে এ পর্যন্ত প্রায় ১ হাজার ৭ শত ২০ হেক্টর জমিতে আউশ রোপন করা হয়েছে। যা গত কয়েক বছরের তুলনায় অনেক বেশি। এবছর প্রায় ৩ হাজার হেক্টর জমিতে আউশ ধান চাষ হতে পারে বলেও ধারণা করা হচ্ছে। পাশাপাশি সরিষা ও আলু চাষের জমিগুলোর প্রায় ৫ হাজার ৩৫০ হেক্টর জমিতে ইরি বোরোর চাষ হচ্ছে। গতবছর উৎপাদিত পাটের আশানুরুপ ফলন না হওয়ায় এ বছর অধিকাংশ চাষী পাট চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে।

ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের দুলাল হোসেন, কায়েমপুর গ্রামের মোজাম্মেল হোসেন, দুহশুহ গ্রামের আব্দুল বাতেনসহ অনেকে জানান, গত বছর পাটের ফলন ভালো হয়নি। আর এ বছর রসুনের দাম কম। কিন্তু ধানের দাম আছে। তাই বোরো ধানের পাশাপাশি আউশ ধান চাষও করছি। এছাড়া আউশ চাষে খরচ কম। আগের ফসলে যে সার আছে তাতেই আউশ ধান উৎপাদন হবে। এতে পাটের কম ফলন আর রসুনের লোকসান পুষিয়ে নিতে পারবেন বলে আশা করছেন তারা।

খানসামা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আফজাল হোসেন জানান, ভূ-গর্ভস্থ পানি ব্যবহার কম, প্রাকৃতিক পানি দ্বারাই সেচ কাজ, জীবনকাল কম হওয়ায় এবং আউশ চাষ করে সহজেই আমন চাষ করা যায়। ফলে আউশ চাষ কৃষকদের কাছে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এবার ধানের বাজার মূল্য বেশি। অপরদিকে রসুনের বাজার মূল্য কম থাকায় তারা ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আউশ ধানের চাষে ঝুকেছে কৃষক। তবে সঠিক সময়ে সঠিক পরিচর্যা করলে ভাল ফলনও নিশ্চিত হবে।