রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ২৯শে মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

অসাম্প্রদায়ীক মানবতাবাদী ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা ক্ষত্রিয় সম্প্রদায়ের প্রাণপুরুষ ছিলেন

কাশী কুমার দাস, স্টাফ রিপোর্টার ॥ দিনাজপুর ক্ষত্রিয় সমিতির আয়োজনে বড়গুরগোলাস্থ পার্থ সারথী মন্দিরে পূজার্চনার মধ্য দিয়ে পালিত হলো ২৭ মাঘ ঐতিহাসিক উপনয়ন দিবস।
দিনাজপুর ক্ষত্রিয় সমিতির সভাপতি বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃ বসন্ত কুমার রায় এর সভাপতিত্বে ধর্মীয় সভায় ঠাকুর পঞ্চানন বর্মার কর্মময় জীবনের দিগ তুলে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ক্ষত্রিয় সমিতির সাধারণ সম্পাদক মৃত্যুঞ্জয় রায়। উপনয়ন দিবসের বিভিন্ন দিগের তাৎপর্য তুলে ধর্মীয় আলোচনায় বক্তব্য রাখেন অবসরপ্রাপ্ত জজ শ্রী সত্যেন্দ্র নাথ রায়, ডাঃ নির্মুলেন্দু রায়, ডাঃ তরুন কুমার রায়, অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অর্চনা অধিকারী, ডাঃ সুধারঞ্জন রায়, এ্যাডঃ অক্ষয় কুমার রায়, অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা কংস নাথ অধিকারী, অজিত কুমার রায়, মাধব চন্দ্র রায় প্রমুখ। বক্তারা বলেন, আজ থেকে ১০৬ বৎসর আগে রায় সাহেব ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার করতোয়া নদীর তীরে পেরালবাড়ী গ্রামে সমিতির ডাঙ্গায় ২৭ মাঘ ১৩১৯ বাংলা সনে ব্রাহ্মন পন্ডিতদের নিমন্ত্রণ্য ও মতামত দিয়ে ব্রাত্য ক্ষত্রিয়দের ব্রাত্যত্ব মোচন করার জন্য উপনয়ন এবং যজ্ঞানুষ্ঠানের আয়োজন করেন। সেইদিন ১০ লক্ষ লোক মাথা মুন্ডন করে গলায় পৈতা পরে এবং দ্বিজ ক্ষত্রিয় রুপে আত্মপ্রকাশ করেন। ডাঃ বসন্ত কুমার রায় বলেন, অসাম্প্রদায়ীক মানবতাবাদী ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা ক্ষত্রিয় সমাজের প্রাণ পুরুষ ছিলেন। তিনি সারাজীবন ক্ষত্রিয় সমাজের উন্নয়নের জন্য আন্দোলন সংগ্রাম করে গেছেন। তৎকালীন ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সদস্য ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে ভক্তদের মাঝে প্রসাদ বিতরণ করা হয়।

%d bloggers like this: