বুধবার ৩ জুন ২০২০ ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

অ্যাম্বুলেন্স ভাড়ার সাহায্য তুলতে গিয়ে ৫ দিন বয়সী শিশুর মৃত্যু

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ে দিনমজুরের ৫ দিন বয়সী শিশুকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেলে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। ক্লিনিক থেকে নানার বাড়ি যাওয়ার পথে ঘাতক ট্রাকের ধাক্কায় প্রসূতি মা’র কোল থেকে ছিটকে পড়ে শিশুটি। তাকে সাথে সাথে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নেয়া হলে শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত ডাক্তার রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাকে রেফার করে। কিন্তু দিনমজুর বাবার কাছে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া ছিলো না, সেটার জন্য রাস্তায় নেমে সাহায্য তুলতে ঘণ্টা দুয়েক দেরি হওয়ায় পথেই মারা গেলো বাবা মা’র বহু আকাঙ্ক্ষিত শিশুটি ।

শিশুটির বাবার নাম হাফিজুল ও মায়ের নাম তাসলিমা বেগম। তাদের বাড়ি সদর উপজেলার গড়েয়া ইউনিয়নের চোংগাখাতা গ্রামে।এটি ছিলো তাদের দ্বিতীয় সন্তান (ছেলে)। হাফিজুল পেশায় দিনমজুর। এর আগে এ দম্পতির এক সন্তান গর্ভেই মারা যায়, ফলে বাবা-মা’র জন্য খুবই আকাঙ্ক্ষিত ছিলো এই নবজাতক শিশুটি। 

মৃতের বাবা-মা ও স্বজনদের সূত্রে জানা যায়, গত ২২ এপ্রিল শহরের রহমান ক্লিনিকে একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন তাসলিমা বেগম। রবিবার ৫ দিনের মাথায় ক্লিনিক থেকে শিশুটিকে নিয়ে তার বাবার বাড়ি সালন্দর ইউনিয়নের বিলপাড়া গ্রামে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে ঠাকুরগাঁও টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ এর সামনে একটি ট্রাক তাদের বহনকৃত অটোটিকে পিছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে অটো থেকে ছিটকে রাস্তায় পড়ে গিয়ে মারাত্মক জখম হয় শিশুটি। পরে শিশুটিকে উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নেন স্থানীয়রা।

শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে রংপুর মেডিকেলে নেয়ার পরামর্শ দেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু শিশুটির বাবা অত্যন্ত গরীব হওয়ায় বিভিন্নজনের কাছে চাঁদা তুলে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিতে ঘণ্টা দুয়েক দেরী হয়ে যায়। পরে রংপুরে যাওয়ার পথেই শিশুটি মারা যায়। এ ঘটনায় তার পরিবারসহ এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। বারবার অজ্ঞান হয়ে যাচ্ছেন শিশুটির মা, বাবাও শোকে পাথর।

শিশু নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তানভিরুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে অভিযোগ পেলে ঘাতক ট্রাকটির বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email