বুধবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আওয়ামীলীগ নিশ্চিন্ত, কে পাচ্ছেন বিএনপির চূড়ান্ত মনোনয়ন

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দিনাজপুর-৪ (চিরিরবন্দর- খানসামা) আসনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ায় নিশ্চিন্ত হয়ে গেছে। ফলে নিশ্চিত রয়েছেন আওয়ামীলীগের দলীয় নেতাকর্মীরা। তবে এ আসনে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী চূড়ান্ত না হওয়ায় জোটের শরীক দল ও বিএনপির নেতাকর্মীরা অপেক্ষায় রয়েছেন।

চিরিরবন্দর ও খানসামা উপজেলা নিয়ে গঠিত সংসদীয় আসন-৯ দিনাজপুর-৪ আসনটি। নির্বাচন কমিশন অফিসের তথ্যমতে,  চিরিরবন্দর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ১৭ হাজার ২০১ জন এবং খানসামা উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ২৫ হাজার ৪৮১ জন।

এ আসন থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এমপি, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)’র মনোনীত প্রার্থী বিএনপি’র কেন্দ্রিয় কমিটির অন্যতম সদস্য জেলা বিএনপি’র যুগ্ম আহবায়ক ও উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আখতারুজ্জামান মিয়া, জেলা বিএনপি’র সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আখতারুজ্জামান মিয়া, জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি লুসাকা গ্রুপের চেয়ারম্যান শিল্পপতি আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান সরকারসহ-সভাপতি লুসাকা গ্রুপের চেয়ারম্যান শিল্পপতি আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান সরকার, জাতীয়পার্টির খানসামা উপজেলার আহবায়ক মোনাজাত চৌধুরী মিলন, বাংলাদেশের কমিউনিস্টপার্টির দিনাজপুর জেলা সংগঠক এ্যাড. রিয়াজুল ইসলাম রাজু, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র মিজানুর রহমান, বিপ্লবী ওয়ার্কাসপার্টি এ্যাড. সাজেদুল আলম চৌধুরী, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের মোজ্জাফর হোসেন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ইউসুফ আলী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। যাচাই-বাছাইয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ইউসুফ আলীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যায়। তবে এ আসন থেকে বিএনপি থেকে সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আখতারুজ্জামান মিয়া ও জেলা বিএনপি’র সাবেক সহ-সভাপতি লুসাকা গ্রুপের চেয়ারম্যান শিল্পপতি হাফিজুর রহমান সরকারকে প্রাথমিকভাবে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন। এ জন্যই তৃণমূলের নেতাকর্মীরা তার প্রতি আন্তরিক। সাধারণ মানুষের সাথে তার যোগাযোগ খুব কম থাকার অভিযোগ পাওয়া গেলেও এলাকায় উন্নয়নমূলক কাজ করায় দলীয় নেতাকর্মীরা তাঁর প্রতি আস্থাশীল রয়েছেন।

চিরিরবন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আহসানুল হক মুকুল বলেন, ‘দলে প্রভাব আছে, কাজ করার ক্ষমতা আছে এমন লোক না হলে এলাকার উন্নয়ন সম্ভব নয়। সেদিক থেকে আবুল হাসন মাহমুদ আলী একজন যোগ্য লোক। আমরা তাঁর হয়ে সাধারন মানুষের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছি। আমরা আশা করি, সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে মানুষ নৌকা মার্কায় পুনরায় ভোট দেবে।’

দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকার পরেও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)’র প্রার্থীরা আসনটি আসনটি দখলে নিতে জোর প্রচেষ্টা চালাবেন বলে নেতাকর্মীরা জানান।

১৯৯১ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত পাঁচবারের জাতীয় নির্বাচনে শুধুমাত্র ২০০১ সালে আওয়ামীলীগের প্রার্থী তিনবারের সংসদ সদস্য ও সাবেক হুইপ মিজানুর রহমান মানুকে হারিয়ে বিজয়ী হন বিএনপির আখতারুজ্জামান মিয়া।

বিএনপির প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আখতারুজ্জামান মিয়া জানান-‘হামলা-মামলার আতঙ্কে জনসংযোগে মাঠে নামতে পারিনি। তারপরেও জনগন আমাদের সাথে আছে। দল থেকে যেহেতু দু’জনকে মনোনয়ন দিয়েছে, চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি।’ তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন-‘যেহেতু এ আসন থেকে একবার নির্বাচিত হয়েছি দল আমার কথা অবশ্যই বিবেচনায় রাখবে।’

এ আসনে বিএনপির মনোনয়ন পাওয়া অপর প্রার্থী লুসাকা গ্রুপের চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান সরকার। ২০০৮ সালের নির্বাচনে দল থেকে মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। ওই নির্বাচনে তিনি ৫০,২৭৪ ভোট পান।তবে এবার আর স্বতন্ত্র প্রার্থী নয়, দলীয় প্রার্থী হয়েই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে নিতে চান তিনি। হাফিজুর রহমান সরকার বলেন- ‘দল যাকে মনোনয়ন দেবেন বা পাবেন, তাঁর পক্ষেই কাজ করবো। তবে মনোনয়ন পাবার ব্যাপারে আশাবাদি তিনি।’

চিরিরবন্দর ও খানসামা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, আওয়ামীলীগের হেভিওয়েট প্রার্থী পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। তিনি এলাকায় ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন। এ আসনে মন্ত্রীর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে বিএনপির একজন শক্তিশালী প্রার্থী প্রয়োজন। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কোন দল থেকে কে হবেন সৌভাগ্যবান। কার কপালে জুটবে জয়ের মাল্য।  তা দেখার অপেক্ষায় চায়ের দোকানের আড্ডাখানায় এবং মাঠে চলছে তুমুল আলোচনা।