সোমবার ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আওয়ামী লীগের সাবেক সাংসদ লিটাকে কলেজ সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে বর্তমান সাংসদ জাহিদ!বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন

রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) সংবাদদাতা ঃ মেয়াদ পূর্তির এক বছর আগেই রহস্যজনক কারনে ঠাকুরগাঁও-৩ এর বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমান সম্প্রতি তার ডিও লেটারের মাধ্যমে সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি সেলিনা জাহান লিটাকে রাণীশংকৈল মহিলা ডিগ্রী কলেজের সভাপতির চলমান পদ থেকে সরিয়ে দিলেন। এমপি’র ঐ সুপারিশকৃত চিঠির প্রেক্ষিতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পক্ষে কলেজ পরিদর্শক ড.মনিরুজ্জামানের গত ২৫/০৭/২০১৯ খ্রি. স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে রানীশংকৈল ডিগ্রী কলেজের সহকারি অধ্যাপক ও উপজেলা আ’লীগ সভাপতি সইদুল হককে মহিলা কলেজের নূতন সভাপতি পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। কিন্তুু সরকারি বিধি অনুযায়ি কোনো এমপিওভূক্ত শিক্ষক কোনো বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সভাপতি হতে পারবেন না বিধায় সইদুল হকের সভাপতি হওয়ার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। প্রসঙ্গত মহিলা কলেজসহ সইদুল হক বর্তমানে ৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি। এ নিয়ে ঐ কলেজ ও এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক প্রয়াত সংসদ সদস্য আলী আকবরের কন্যা রানীশংকৈল উপজেলা মহিলা লীগ সভানেত্রী, দু’বারের সফল মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি সেলিনা জাহান লিটা গত ২০১৪ খ্রি. জাতীয় সংসদের ৩০১ (ঠাকুরগাঁও-পঞ্চগড়) সংরক্ষিত আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে রাণীশংকৈল মহিলা ডিগ্রী কলেজের সভাপতি হন। ঐ কলেজের সভাপতি থাকাকালে তিনি কলেজের অবকাঠামো নির্মাণ, শিক্ষকদের বেতন নিয়মিত করন ও বোনাসবৃদ্ধি, ক্লাস নিয়মিত করনসহ বিভিন্ন  উন্নয়ন সাধন করেন। তার সভাপতির মেয়াদ আগামি ২০/০৭/২০২০ খ্রি. পর্যন্ত বহাল আছে। কিন্তু তার আগেই তাকে স্থানীয় এমপি জাহিদের হস্তক্ষেপে সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হলো।

এ ব্যাপারে মহিলা কলেজ অধ্যক্ষ তফিল উদ্দীন বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন- আমি তো এ বিষয়ে কিছুই জানিনা, এর চিঠি পেয়ে আমি মাননীয় এমপি জাহিদুর রহমানের কাছে গেলে তিনি আমাকে বলেছেন, এটা নাকি তিনি রাজনৈতিক চাপে করেছেন।

সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমানের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন- সাবেক মহিলা এমপি ঐ কলেজের সভাপতি ছিলেন, এটা আমি জানতাম না এবং তিনি আমার সঙ্গে এ ব্যাপারে যোগাযোগ করেননি। আওয়ামী লীগ সভাপতি সইদুল হক যোগাযোগ করেছেন তাই তাকে ডিও লেটার দিয়েছি। এজন্য কোনো রাজনৈতিক চাপ ছিল কিনা, এ প্রশ্নের উত্তর তিনি এড়িয়ে যান। এ নিয়ে এলাকায় ক্ষোভ ও চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে।