রবিবার ২২ এপ্রিল ২০১৮ ৯ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আজ কবি শেখ ফজলল করিমের ৮১তম মৃত্যু বার্ষিকী

লালমনিরহাট প্রতিনিধি : ‘কোথায় স্বর্গ/কোথায় নরক
কে বলে তা বহুদুর /মানুষের মাঝে স্বর্গ-নরক /মানুষেতে সুরাসুর’ কবি শেখ ফজলল করিমের এমর্মস্পৃশী কবিতাটি ছোট বেলায় পড়েননি এমন লোক খুজে পাওয়া দুষ্কর। আজ (২৮সেপ্টেম্বর) বৃহস্পতিবার কবি শেখ ফজলুল করিম এর ৮১ তম মৃত্যুবার্ষিকীতে উপজেলার প্রশাসন থেকে নেই কোন আয়োজন। লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনায় কবি শেখ ফজলল করিমের স্মৃতি বিজড়িত গ্রামের বাড়িটি বর্তমানে অতীত ঐতিহ্য প্রশাসনের অবহেলায় আজ হারাতে বসেছে। সরেজমিনে দেখা যায়, ২০০৫ সালে কবি শেখ ফজলুল করিম এর স্মৃতি রক্ষার্থে কাকিনা বাজারে একটি দ্বিতলা ভবনে নির্মিত পাঠাগারটি এখন পরিতেক্ত অবস্থায় আবর্জনায় ভরপুর, সেখানে নেই কোন কেয়ারটেকার, নেই পাঠক, রয়েছে বইয়ের সংকট। সামনে থেকে বোঝার উপায় নেই এখানে একটি পাঠাগার রয়েছে। পাঠাগার ভবনের সামনের অংশ যেন উন্মুক্ত প্রসাবখানা। পাঠাগারটির মূল গেটের সামনের প্রায় ৯০ শতাংশ জায়গা দখল করে বসানো হয়েছে দোকান। বাকি অংশে রয়েছে ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাইনবোর্ড। এছাড়াও ভিত্তি প্রস্তরের সামনের জায়গা দখল করে বসে আছে একটি কামারের দোকান। সন্ধ্যার পর মাদক সেবীদের অভয়ারন্য হয়ে ওঠে এই পাঠাগার চত্তর। সামনে থেকে বুঝা যায়না এটি কোন পাঠাগার। এখানে ব্যাটারী চালিত অটোক্সিা ও তিনচাকার মহেন্দ্র নামাক গাড়ী রাখার স্টান। অবশ্য স্থানীয়দের সহযোগিতায় ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সার কাউন্টার তুলে দেন। নতুন করে দেখা গেছে সেখানকার আরেক চিত্র। রাত হলেই শুরু হয় তরুন মাদক সেবীদের আড্ডা। স্থানীয়রা ভয়ে তাদের কিছু বলতে পারে না। তথ্য সংগ্রহের সময় একজন পথচারি বলে ওঠেন, ‘এপাঠাগারটি যেন কবিকে সম্মানের নামে অপমান।’
বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সরকারের আমলে মন্ত্রী ও উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাসহ রাজনৈতিক নেতা, কবি লেখক অনেকেই কবির বাড়ি পরিদর্শনে এসেছেন এবং বিভিন্ন রকম প্রতিশ্রুতি দিয়ে গেছেন। দিবসটি পার হয়ে গেলে সেই প্রতিশ্রুতিগুলো প্রতিশ্রুতিই থেকে যায়। প্রতিশ্রুতি অনুয়ায়ী কবির বাড়ি যাওয়ার রাস্তাটি পাকা হওয়া এবং কবির নামে কাকিনা বাজারে একটি দ্বিতলা ভবনের পাঠাগার নির্মিত হলেও রয়েছে বইয়ের সংকট। কবির বাড়িটি ও ব্যবহারিক সংগ্রহশালা এখন ধংসের পথে। পাঠাগারটিতে একজন লাইব্রেরীয়ান (কেয়ারটেকার)সহ পর্যাপ্ত বইয়ের ব্যবস্থা করা এবং কবির জীবনী বা তার বিভিন্ন বই সংরক্ষন করে জেলা শহরে কবির নামে একটি পাঠাগার স্থাপন করার দাবী জানান বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও এলাকার সচেতন নাগরিক সমাজ। ২০০৫ সালে নির্মিত পাঠাগারটিতে ২০০৯ সালে দেখভালের জন্য উপজেলা প্রশাসন থেকে স্থানীয় আজিমুদ্দিন নামের এক ব্যক্তিকে ১হাজার টাকা সম্মানীতে নিয়োগ দেয়া হয়। কিন্তু বাস্তবে একটি টাকাও সম্মানী পাননি তিনি। এখন আর তিনি দেখভাল করেন না। কবি শেখ ফজলল করিম স্মৃতি পাঠাগার সর্ম্পকে কাকিনা ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল হক শহিদ  বলেন, দেখভালের জন্য কাউকে স্থায়ী নিয়োগ না দেয়ায় পাঠাগারটি অযত্ননে রয়েছে। নিভৃত পল্লী গাঁয়ে সাহিত্য, কাহিনী উপন্যাস প্রবন্ধসহ গদ্য রচনার স্থান ছিল লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা। ১৮৮২ সালের ১৪ এপ্রিল সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন কবি শেখ ফজলল করিম। মাত্র ১৩ বছর বয়সে পার্শ্ববর্তী বিনবিনা গ্রামের গনি মোহাম্মদ সর্দারের মেয়ে বসিরন নেছা খাতুনের সাথে বিয়ে হয় কবির। ১৮৯৯ সালে মধ্যে ইংরেজী পরীক্ষায় দ্বিতীয় বিভাগে উত্তীর্ণ হন তিনি। কাকিনার মত অজো পাঁড়াগায়ে নিজ বাড়ীতে শাহাবিয়া প্রিন্টিং ওয়ার্কস নামের ছাপাখানা প্রতিষ্ঠা করেন কবি। তার বৈচিত্র্যময় রচনায় ফুটে উঠেছে সম-সাময়িক ঘটনা, চিন্তা-চেতনা, ধর্ম দর্শন, সাম্প্রদায়িক বিরোধ, সমাজ সংস্কার, নারী শিক্ষাসহ সমাজ পরিবর্তন ও মননশীলতা অঙ্গীকার। জীবদ্দশায় সাহিত্য কর্মের স্বীকৃতি পেয়েছিলেন কবি শেখ ফজলল করিম। তিনি মোট ৫৫টি কাব্যগ্রন্থ লিখে ছিলেন সংরক্ষনের অভাবে যার অনেক গুলোর এখন আর হদিস মিলছে না। সাহিত্য চর্চার সুবিধার্থে স্থানীয় জনসাধারনের জন্য উম্মুক্ত কবি বাড়ীতে ১৮৯৬সালে করিমস্ আহামদিয়া লাইব্রেরী নামের একটি পাঠাগার স্থাপন করেছিলেন, যার কোন চিহৃই আজ আর অবশিষ্ট নেই। কবির উপদেশ মূলক রচনা ‘পথ ও পাথেয়’ গ্রন্থের জন্য পেয়েছিলেন রৌপ্য পদক। পরবর্তী বাংলা ১৩২৩সনে ভারতের নদীয়া সাহিত্য পরিষদ তাকে সাহিত্য বিশারদ উপাধিতে ভূষিত করেন। কিন্তু ১৯৩৬সালের ২৮সেপ্টেম্বর কবি শেষ নিশ্বাস ত্যাগের পর অরক্ষিত হয়ে পড়ে কবি শেখ ফজলল করিমের গ্রামের বাড়ী।