শুক্রবার ১৭ অগাস্ট ২০১৮ ২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আজ কি সূর্য্য উঠবে!

উত্তরে এবার তীব্র শীত। শুধু উত্তরেই বা বলি কেন শীতের বাড়াবাড়ি তো পুরো দেশ জুড়েই। তবে উত্তরের শীতের বিশেষত্ব হচ্ছে তীব্রতার সাথে সাথে এটার মেয়াদকালটাও অপেক্ষাকৃত দীর্ঘ। গত তিনটা মৌসুমে শীত ছিলো অনেকটাই কম। স্হানীয় চায়ের দোকানগুলোর গবেষণাগারে এ নিয়ে বিস্তর আলোচনা চলেছে সে সময়ে। প্রত্যেকটা আলোচনার উপসংহার এসেছে এভাবে, ‘আসলে এটা গ্লোবাল ওয়ার্মিং’র প্রভাব।’ চায়ের কাপের চিনি ঘুটতে ঘুটতে স্বশিক্ষিত দোকানীও মাথা দুলিয়েছে, ‘আসলেই দুনিয়াটা দিনেদিনে গরম হইতাছে। শীতের বাহাদুরি শ্যাষ।’ শীতের বাহাদুরি যে ‘শ্যাষ’ হয় নাই এবার সেটা বেশ বোঝা যাচ্ছে। বিগত কয়েকটি মৌসুমের অভিজ্ঞতায় শীত মোকাবেলায় এবার মানুষের প্রস্তুতিটা ছিলো ঢিলেঢালা যেন ভুটান জাতীয় দলের সাথে মাশরাফিদের প্রীতিম্যাচ।

ফুটপাতের গরম কাপড়ের দোকানগুলোর তোড়জোড় শুরু হয় নভেম্বরের প্রথম থেকে। গতবছরের অবিক্রিত অনেক কাপড় পড়ে আছে। সেগুলোর সাথে আরও কিছু যোগ করে বিরস মুখে তাবু খাঁটিয়েছে সবাই। মনে আশা (নাকি আশংকা) এবার যেন ঠান্ডায় কাঁপে দেশ! ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত মানুষগুলোর বিরস মুখ আর সরস হয় না। কিন্তু অবস্হাটা পাল্টে গেল দ্রুতই। ছোট্ট বাবুটার যে একজোড়া উলের হাতমোজা দু’দিন আগেও ত্রিশ টাকায় বিক্রি হয় নাই সেটাই দু’দিন পড়ে হয়ে গেল আশি। উপচে পড়া ভীড় ঠেলে কাঙ্খিত কাপড়টার নাগাল পেলেও দরাদরির সুযোগ নাই। এক্কেবারে আমাদের সংবিধানের সত্তর অনুচ্ছেদের মত অবস্হা! কথা বললেন তো কাপড় হারালেন। দিনশেষে দোকানীর মুখের হাসি কান ছাড়িয়ে মাথার দিকে বিস্তৃত হয় – ‘গতবারের ফাডাফুডাও শ্যাষ ভাই।’

মিডিয়ার কল্যাণে ‘শৈত্য প্রবাহ’ শব্দটার সাথে দেশের মানুষ ব্যাপক পরিচিত। শীত মওসুমে এ শব্দ যথেষ্ট জনপ্রিয়তাও অর্জন করে। কয়টা শৈত্য প্রবাহের কবলে এবার দেশ পড়বে তার পুঙ্খানুপুঙ্খ হিসেব আছে সবার কাছে। মিডিয়া যথারীতি পাবলিকের এই উৎসাহকে উস্কে দিতে থাকে। কনিষ্ঠার কড় গুনেগুনে আমরা বলে যাই, ‘ডিসেম্বরে দুইটা জানুয়ারিতে চারটা। খবর আছে!’ এখন এন্ড্রয়েড যুগ। সকাল বেলা পরিচিত কারও সাথে দেখা হলে কুশল বিনিময় হয় এভাবে- ‘তোর মোবাইলে টেম্পারেচার দেখা যায় না! দেখতো কি অবস্হা।’ পরম উৎসাহে পকেটে ভরে রাখা হাত মোবাইল সহ বের করি, -‘নয়!’
-ধুর! ভুল আছে।
‘নয়ে’ প্রশ্নকারীর মন ভরে না আমারও না। তবে নয় ডিগ্রীতে খারাপ হওয়া মন ভালো হতে সময় লাগে না। মুহুর্তে জনেজনে মুখেমুখে উগরে ওঠে আনন্দধ্বনী, ‘তেঁতুলিয়ায় টু পয়েন্ট সিক্স, তেঁতুলিয়ায় টু পয়েন্ট সিক্স। টিভিতে দেখাচ্ছে।’ টিভি চ্যানেলগুলো থেকেও দিনভর ব্রেকিং নিউজ নামে না-
‘ভয়াবহ শীতে কাঁপছে সারা দেশ। আজ দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। দুই দশমিক ছয়। গত পঞ্চাশ বছরে এটাই সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।’ আহা কি আনন্দ! ঘনঘন মোবাইল স্ক্রিনে চোখ রাখি। ছ’য়ের নিচে নামেই না। আছাড় দেয়ার সামর্থ না থাকায় মোবাইলটা এ যাত্রায় বেঁচে যায়।

শীত বাড়ার সাথে সাথে প্রান্তিক মানুষের কষ্টও বেড়েছে। এবার ধানের উচ্চমূল্য পাওয়ায় নিম্নবিত্তদের সামর্থ কিঞ্চিৎ মাত্রায় বেড়েছে। কিছুদিন আগে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন গেল। এটা আবার জাতীয় নির্বাচনের বছর। মাঠে তাই জনদরদীদের অভাব নাই। ঘরে ঘরে দেড়শো টাকা দামের ফিনফিনে কম্বল পৌঁছে যাচ্ছে। এনজিও আর স্বেচ্ছাসেবীরা ছাড়াও সদাশয় সরকার মধ্যরাতে কম্বল হাতে দরিদ্র ঘরের ভাঙ্গা দরজার কড়া নাড়ছে। কিন্তু তারপরেও শিশু আর বয়স্করা আছেন চরম কষ্টে। হিমালয়ের বরফ ছুঁয়ে আসা হিম বাতাস হুড়হুড় করে ঢুকে যাচ্ছে বাঁশের বেড়ার অসংখ্য ছিদ্র পথে অভাজনদের ঘরে ঘরে। সোজা শরীর সোজা রাখা যায় না, বাঁকা হয়ে আসে। সারারাত মাটির মালসায় আগুন জ্বালিয়ে বেঁকে যাওয়া শরীর সোজা রাখার প্রানান্ত চেষ্টা করতে করতেই রাত শেষে সকাল হয়। পূব আকাশে অসহায় চোখ মেলে মানুষ-

আজ কি সূর্য্য উঠবে!

 

লেখক-সুভাষ দাশ

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর