বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০১৯ ৩রা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আজ তোমার জন্মদিন

তোমাকে হয়’তো সবাই স্বপ্ন পূরণের অংশিদার ভাবছে। ভাবাটাই স্বাভাবিক। তাদের স্মৃতিতে “তুমি অনন্ত যৌবনা “।
যৌবনের যে অমূল্য সময় গুলো তোমাতেই বিচরণ করে কেটেছে। সেদিক থেকে তুমি সবার জীবনের যৌবনের স্মৃতি। টিএসসি, মলচত্তর, কলাভবন, এফবিএস, লাইব্রেরী, কার্জন, খেলার মাঠ কিংবা শহীদ মিনার সবখানেই যৌবনের সরব উপস্থিতি। কিন্তু আমরা কি যৌবনের গান শুনি, আমরা কি উদ্যাত্ত চোখে আকাশ দেখি, কিংবা বিনিদ্র রজনি জেগে কবিতা পড়ি বা লিখি।

তোমার যেমন অতি ইতিহাস আছে দেশকে বীরপুরুষ তৈরী করে দেয়ার, যা তোমাকে সম্মানিত করে। তেমনই অনেক ইতিহাস আছে যা কুলষিত করে বইকি।

বিদ্যা, বুদ্ধি, ভালোবাসা, যুক্তি কিংবা শক্তি কোনটারই অভাব নেই তোমার, তোমার অপার সম্ভাবনা শুধু পরিচর্যার অভাবে তিলে তিলে ক্ষীণ প্রায়। হয়’তো তোমার কোন দোষ নেই, হয়’তো তুমি তোমার মতোই আছো। আমাদের উচ্চ আঙ্কাংকা, লোলুভ দৃষ্টি ভঙ্গি বা ঈর্শান্বিত চাহনী আমাদের এ পথে নিয়ে যাচ্ছে।

যে বাংগালী পূর্বে জ্ঞান কে সম্মান করতো টাকা পয়সার চেয়ে তার চরিত্র উল্টে গেছে, যে বাংগালী অনেকটা অগোছালো জীবন স্ব-ইচ্ছায় বেছে নিতো তা আর তারা চায় না। এই যে মানুষের অমন পরিবর্তন তার জন্য কি তুমিই দায়ি, আমি তা মোটেও মনে করি না।

তুমি তো তাদের জানাতে চেয়েছিলে তাদের অধিকার, তাদের সক্ষমতা। জাগ্রত করতে চেয়েছিলে তাদের বুদ্ধি, বিবেক-কে। তুমি পেরেছো এবং ভালো ভাবেই পেরেছো, কিন্তু যারা নিয়েছে তোমার কাছ থেকে তারা কি নিতে পেরেছে..?

এই যে এতো কিছু দেখছো নিজের চোখে, তোমারর কি সহ্য হয়, নাকি তুমিও হাল ছেড়ে দিয়েছো এই বলে যে “এ দেশে কিচ্ছু হবে না।”

কেমন আছো তুমি? খুব জানতে ইচ্ছে করে, খুব জানতে ইচ্ছে করে। দেখতে দেখতে ৯৮ তম জন্মদিন চলে যাচ্ছে তোমার, অন্ধকার পেরিয়ে আলো আসবেই। তোমার ছেলে-মেয়েরাই হবে তার কান্ডারী। এটুকু আশা তো করতেই পারি?

লেখক-তাপস রায়