মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আজ সেই ১১ সেপ্টেম্বর

প্রাণপ্রিয় হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) ২০ তম জন্মদিন তথা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস । রংপুর বিভাগের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় এটি। তেভাগা আন্দোলন এর জনক ও এই অঞ্চলের জনদরদী কৃষকনেতা হাজী মোহাম্মদ দানেশ এর নামানুসারে এর নামকরণ করা হয়। এটি উত্তর বাংলার অন্যতম সেরা বিদ্যাপীঠ। মাত্র একটি অনুষদ ও সামান্য সুযোগ সুবিধা নিয়ে যাত্রা শুরু করা এ বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন ২৩ টি ডিগ্রী দেয়া হচ্ছে , আছে ৯ টি অনুষদ ও ৪৫ টি বিভাগ । বর্তমানে বাংলাদেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক বিদেশী শিক্ষার্থী(প্রায় ২০০ জন ) এখানে পড়াশুনা করতেছেন, যা আমাদের ও দেশের জন্য গর্বের । বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ সুবিধার মধ্যে আছে আছে ৫ টি একাডেমিক ভবন (১০ তলা একটি নির্মাণাধীন) * কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ(এসি) সহ দুটি জামে মসজিদ*কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার*একটি অত্যাধুনিক প্রশাসনিক ভবন *৫টি ছাত্র হোস্টেল(একটি বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য )* ৪টি ছাত্রী হোস্টেল( একটি নির্মাণাধীন) *আধুনিক সাজসজ্জা বিশিষ্ট ১০০/১৫০ আসনের দুটি ভিআইপি কনফারেন্স রুম * ৭০০(নন এসি) ও ২৮০ আসন(এসি ) বিশিষ্ট আরও দুটি অডিটোরিয়াম* দুটি উন্নত মানের গেস্ট হাউজ* ভার্চুয়াল ক্লাসরুম* দিনাজপুরের মিনি চিড়িয়াখানা খ্যাঁত উট পাখি সহ বিভিন্ন পশু /পাখির জন্য গবেষণা ফার্ম * সাথে মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষার্থীদের জন্য একটি হ্যাচারী তৈরির কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে । এছাড়াও একটি বিশ্ববিদ্যালয়কে পূর্ণাঙ্গ করতে রয়েছেন ৩১৪ জন শিক্ষক, ২০০ জনের অধিক কর্মকর্তা, প্রায় ১১ হাজার শিক্ষার্থী এবং কয়েকশত কর্মচারী, পাশাপাশি তাদের জন্য আছে বিভিন্ন ক্লাব ও সংগঠন। শিক্ষক – কর্মকর্তা- কর্মচারিদের জন্য প্রায় ১৪৫ টি আবাসিক ইউনিট/ভবন( আরো একটি ভবন নির্মাণাধীন) আছে , ক্যাম্পাসে আরও আছে ১টি শিশুপার্ক, পোষ্ট অফিস, রূপালী ব্যাংক শাখা, মেঘনা ব্যাংক শাখা, শ্রমিক/আনসার ব্যারাক, সার্বক্ষণিক ইন্টারনেট(একাডেমিক কাজে) সুবিধা, নিজস্ব সার্বক্ষনিক বৈদ্যুতিক সুবিধা সহ আলাদা বৈদ্যুতিক লাইন ও সাবস্টেশন ,বৃহৎ খেলার মাঠ, ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ এবং ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থা। এ জন্য বর্তমানে বড় বাস, মিনি বাস, এসি বাস, মাইক্রো, অ্যাম্বুলেন্স, পিকআপ সহ ৩৫ টি যানবাহন রয়েছে। এবছর আরো কয়েকটি বড়বাস ও মাইক্রো আসবে বলে জানা গেছে। পাশাপাশি এ মাসেই বা সামনের মাসে আসছে ভ্রাম্যমাণ ভেটেরিনারি ক্লিনিক, এই ক্লিনিক বিশ্ববিদ্যালয়ের আসে পাশের এলাকার মানুষের বাড়ি বাড়ি যেয়ে গবাদিপশুর চিকিৎসা সহ প্রয়োজনীয় অপারেশন করবে। গবেষণা ও প্রশিক্ষণের সমন্বয় ও সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য রয়েছে ইনস্টিটিউট অব রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং (আই.আর.টি.)। আছে হাবিপ্রবি স্কুল, ১২ শয্যার একটি মেডিক্যাল সেন্টার, সাথে বর্তমানে মেডিকেলের বর্ধিত ৫ তলা অংশের কাজ চলমান । গবেষণালব্ধ থিসিস, রিপোর্ট, জার্নালের পাশাপাশি রয়েছে ৩৫ হাজার বইয়ের সমৃদ্ধ লাইব্রেরি। কয়েকশত প্রজাতির ফলজ, বনজ ও ঔষধি সহ বিভিন্ন দুষ্প্রাপ্য গাছ-গাছালির আকর্ষণীয় সংগ্রহ রয়েছে পুরো ক্যাম্পাস জুড়ে। হাবিপ্রবিতে আছে উত্তরবঙ্গের শ্রেষ্ঠ মুক্তিযুদ্ধ কর্নার, যা আমাদের জন্য গর্বের। বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীর পেছনে বাংলাদেশ সরকারের বার্ষীক ব্যয় প্রায় ৬০-৬২ হাজার টাকা । কোন দিক থেকেই এখন আমরা পিছিয়ে নেই । সামনে আরো দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাবে হাবিপ্রবি , এটাই প্রত্যাশা । এতোদিন পর এবারই প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের আনুষ্ঠানিক আয়োজনের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত হতে যাচ্ছে ।