সোমবার ১৮ জানুয়ারী ২০২১ ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আজ ২৩ আগস্ট খেলোয়াড় তৈরির কারিগর মোতাহার ওস্তাদের ১১তম মৃত্যু বার্ষিকী

কিছু কিছু মানুষ অন্যকে সুখী দেখে নিজে সুখী হয়। অন্যকে বড় হতে যোগান দেয় নিজের সবকিছু। পৌছে দেয় গন্তব্যে অনেক মানুষকে। অথচ নিজে এগোতে পারে না বেশি দুর। এমনি হাস্যজ্বল সদালাপী একজন মানুষ ছিলেন অতি পরিচিত আমাদের মোতাহার ভাই। যাকে অনেকে মোতাহার ওস্তাদ বলেন জানতো। দিনাজপুর বিরল উপজেলার বিজোড়া ইউনিয়নের সাত ভাইয়া গ্রামে ১৯৫২ সালের ১৫ নভেম্বর মোতাহার ওস্তাদের জন্ম। বাবা মরহুম হবিবুল্লাহ সরকার ও মাতা সেরাজুন নেসার ৫ ছেলে ও ৩ মেয়ের মধ্যে সে ৫ম। ছোটবেলায় বোনের সংসারে চাউলিয়াপট্টিতে ঠাই হয় মোতাহার ওস্তাদের। একাডেমী স্কুলে পড়াশোনার পাশাপাশি শুরু হয় খেলাধুলা। পাকিস্তান আমলে এমএটি ক্লাব, উদয়ন ক্লাব ও ডিসি টিমের খেলোয়াড়দের সাথে নিজেকে যোগ্য করে তোলেন। দেশ স্বাধীনতার পর বড় মাঠের সেই কাঠে গড়া টাউন ক্লাবে নিজের জায়গা করে নেন। নিজের প্রতিভা মেলে ধরতে দেশের অনেক জেলায় খেলতে শুরু করেন। ডাক আসে বিভিন্ন ক্লাবের। পরে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তি সংগ্রাম শুরু হলে ঘরে থাকতে পারেননি ওস্তাদ মোতাহার ভাই। পাক-হানাদারের বিরুদ্ধে প্রাণপন লড়ে যান তিনি। বীর মুক্তিযোদ্ধা ওস্তাদ মোতাহার ১৯৭৩ সালে ডিগ্রি পাস করার পর ১৯৭৫ সালে সংসার জীবন শুরু করেন। পাশে বন্ধুর মতো হাত বাড়িয়ে এগিয়ে যেতে সাহায্য করেন সহধর্মিনী রওশন আরা বেগম। খেলতে আর খেলোয়াড় তৈরি করতে সংসার গোছানোর কাজটাও খুব একটা হয়ে উঠেনি। কিন্তু দিনাজপুরে বাঘা বাঘা খেলোয়াড় তৈরি করে ফেলেন ওস্তাদ মোতাহার ভাই। মাবুদ ভাই, মাহফুজ ভাই, মানিক ভাইয়ের মতো খেলোয়াড় যারা মোতাহার ভাইয়ের নেতৃত্বে দিনাজপুরকে মেলে ধরে দেশব্যাপী। মোতাহার ওস্তাদের ক্রীড়া নৈপুন্যে ঢাকা ওয়ান্ডার্স ক্লাবে খেলেছে ফুটবল খেলোয়াড় কল্যাণের ওয়াসি, আর রানা ইকবাল বাংলাদেশ পুলিশে। ওয়ান্ডার, ইসা ভাই ওয়াবদায়। মোতাহার ভাইয়ের বড় অবদান ছিল, উত্তরবঙ্গের একজন নাম করা খেলোয়ার তৈরিতে যিনি এক সময় আজাদ স্পোর্টিং, ব্রাদার্স ইউনিয়ন ও আবাহনীর মতো দলেও খেলেছেন। শুধু তাই নয় ব্রাদার্স ও আবাহনীর মধ্যকার খেলার ব্রাদার্স ইউনিয়নকে আবাহনীর বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় পাইয়ে দেয় পুলিশ সদস্য মরহুম মঞ্জের ভাই। এই মঞ্জের ভাইও মরহুম মোতাহার ওস্তাদের হাতে গড়া। অমর বাবলু ভাই, মকবুল ভাই এদের বড় খেলোয়াড় হতে সহায়তা করে মোতাহার ভাই। লিটু অনুর্দ্ধ-১৮ দলে জায়গা করেন নেয়। এ ছাড়াও আবু , পিএমএন এর পলাশ, আলাল, হাবু, তরু, শুভ, ভুট্টা, ডামবেল, পাপ্পু ও এক সময়ের ৮টি মেডিকেল কলেজের শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় বরিশাল মেডিকেল কলেজের ছাত্র জুনসহ অনেককে খ্যাতি পাইয়ে দেয় মোতাহার ওস্তাদ। সদালাপী এই মানুষটি ভোর বেলা ঘুম থেকে উঠেই বাড়ী বাড়ী গিয়ে খেলোয়াড়দের ঘুম থেকে ডেকে বড় মাঠে প্রশিক্ষণের কাজ করতেন। খেলোয়াড় তৈরি করতে করতে সংসারি হতে পারেননি আমাদের মোতাহার ভাই। সারাজীবন ভুমি অফিসে চাকুরি করেও নিজের মাথা গোজার জন্য এক চিলতে জায়গা যোগাড় করতে পারেন নাই। অবশ্য তার স্ত্রী পরে নিজের সামান্য আয় ও জমি বিক্রি করে শহরের পাহাড়পুর এলাকায় মাথা গোজার জন্য একটি ঠাই গড়ে তোলেছেন। অথচ সরকারের রেকর্ডকৃত তফশীল: জেলা- দিনাজপুর, মহল্লা- পাহাড়পুর, মৌজা- কাঞ্চন, জেএল নম্বর-৬১, দাগ নম্বর- ২৭২১, সরকারী রাস্তা। সেই রাস্তাটি এখনও বন্ধের পায়তারা চালিয়ে যাচ্ছে প্রভাবশালী প্রতিবেশী নুরুল ইসলাম। এছাড়াও নুরুল ইসলাম এই রাস্তা বন্ধ করতে গেলে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী রওশন আরা এ ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত হতে হয়। সে সময় এ ঘটনাটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়। মোতাহার ভাইয়ের জীবদ্দশায় স্ত্রী রওশন আরা বাড়ির কথা বললে তিনি বলতেন বাড়ি দিয়ে কি হবে, তুমি তো থাকলে, ৩ মেয়েকে দেখে রাখিও। শুধু কি তাই, তিনি তার আয়ের পয়সা দিয়ে একটি টেলিভিশন পর্যন্ত কিনতে পারেননি। পুরোনো একটি বাইসাইকেল ছিল তা একমাত্র বাহন। এভাবেই তিনি নিজেকে বিলিয়ে খেলার জগতে এক উজ্জল নক্ষত্র হিসেবে গড়ে তোলেন। অবশেষে ২০০৯ সালে ২৩ আগস্ট ওই উজ্জল নক্ষত্রের প্রস্থান হয়। আমাদের মাঝ থেকে চির বিদায় নেন সকলের প্রিয় মোতাহার ওস্তাদ। তিনি আমাদের মাঝ থেকে বিদায় নিলেও তার হাজারও স্মৃতি আজও আমাদের তাড়া করে ফেরে। আজ তাই আমরা তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। আজ রোববার ২০২০ সালের ২৩ আগস্ট তার মৃত্যুর ১১তম বার্ষিকীতে ঘরোয়াভাবে দোয়া খায়েরের আয়োজন করেছে তার পরিবার। পরিবারের সদস্যরা মরহুম মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার ওস্তাদের জন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছে।

লেখক-হুমায়ুন কবীর, সাংবাদিক, দিনাজপুর

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email