বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০ ১৮ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আটক ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতকে ছেড়ে দিয়েছে ইরান

ইরানের রাজধানী তেহরান থেকে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত রব ম্যাকেয়ারকে আটকের তিন ঘণ্টা পর তাকে ছেড়ে দিয়েছে দেশটির পুলিশ। স্থানীয় সময় শনিবার তাকে তেহরানের আমির কবির বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বিক্ষোভকারীদের উসকানি দেওয়ার অভিযোগে তাকে আটক করা হয়।

আজ রোববার আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি’র এক খবরে জানানো হয়, আটকের তিন ঘণ্টা পর ওই রাষ্ট্রদূতকে ছেড়ে দেয় ইরানের পুলিশ।
 
বিবিসি’র প্রতিবেদনে বলা হয়, সামরিক বাহিনীর অনিচ্ছাকৃত ভুলে ১৭৬ আরোহীসহ ইউক্রেনের একটি যাত্রীবাহী বিমান ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে ভূপাতিত করে ইরান। এ কথা দেশটি স্বীকার করার পর একদল ইরানি শনিবার বিকেলে তেহরানের আমির কবির বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেন। এ সময় কিছু  আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে সমাবেশকারীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

ইরানে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতকে সমাবেশকারীদের মধ্যে পাওয়া যায়। এ সময় তিনি পুলিশের বিরুদ্ধে দুষ্কৃতকারীদের উসকে দেওয়ার মতো অপতৎপরতা চালান বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। 

ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব এক বিবৃতিতে বলেন, ‘সুস্পষ্ট কারণ ও ব্যাখ্যা ছাড়া তেহরানে আমাদের রাষ্ট্রদূতকে আটক করা হয়েছে। এতে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘিত হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, ভুলবশত ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমান ভূপাতিত করায় ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনির বিরুদ্ধে বিক্ষোভে নামে দেশটির হাজারো  মানুষ। কর্মকর্তারা কেন দীর্ঘ সময় ধরে এই ঘটনা নিয়ে মিথ্যা বলেছেন, সেই ক্ষোভ থেকেই বিক্ষোভ করছেন তারা।  

গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ড্রোন হামলা চালিয়ে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্র। এরপর গত ৮ জানুয়ারি ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় তেহরান। ওই হামলার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ইউক্রেনের একটি যাত্রীবাহী বিমান খামেনি বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের তিন মিনিটের মাথায় বিধ্বস্ত হয়।

ওই দুর্ঘটনায় বিমানটিতে থাকা সব আরোহী নিহত হন। তাদের মধ্যে ৮২ জন ইরানি, ৬৩ জন কানাডীয়, ১০ জন সুইডেনের, চারজন আফগানিস্তানের, তিনজন জার্মানির এবং তিনজন ব্রিটেনের নাগরিক। অপরদিকে নয় ক্রুসহ ১১ জন ইউক্রেনের নাগরিক নিহত হন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email