শুক্রবার ২৯ মে ২০২০ ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

“আত্মতৃপ্তি”

প্রতিদিনের মতো নিজের পেশাগত দায়ত্ব পালনের জন্য গতকাল সকালে বাড়ী থেকে বেড় হয়ে ফুলবাড়ী উর্বশী হলের সামনে সহকর্মিদের সাথে দাড়িয়ে সবাই যে যার মতো বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলছিলাম ।
হঠাৎ চোখে পড়লো ৬০ উর্ধ বয়সের একজন বৃদ্ধ মহিলা পাশের বারান্দায় হেলান দিয়ে নিরবে বসে আছে । পরনে ময়লা একটি কাপড় পড়া চুলগুলো এলোমেলো সাথে একটি বস্তা রয়েছ । এক পা দুপা করে তার কাছে এগিয়ে যেতেই, তিনি তাকিয়ে রইলেন আমার দিকে। তাকে দেখে খুব মায়া লাগলো, ভাবলাম কিছু বলবে হয়তো আমাকে । কিন্তু না, কিছু না বলে এদিক ওদিক দেখছিলেন । নিজেই আগ্রহ করে তার কাছে জানতে চাইলাম ।
বুড়ি মা আপনার নাম কি,বাড়ী কোথায়,কিছু খেয়েছেন । উত্তরে কিছু্ই বললেননা তিনি,শুধু কি যেনো ইশারা করছিলো । এমন একটি সংঙ্কটময় মুহুর্তে সবাই যখন নিজেকে এবং পরিবারকে এই মরনঘাতি করোনার ছোবোল থেকে বাচতে ঘরে ঘরে রয়েছে, কতোরকম সুরক্ষার ব্যাবস্থা করছে । এ সময় একজন মানুষ কোথা থেকে এসেছে কোথায় যাবে যার কোনো চিন্তা নেই, সে যানেও না করোনা কি ?
এর পর বুঝতে পারলাম হয়তো তার কোনো মানষিক সমস্যা রয়েছ । ইচ্ছে হলো তার জন্য কিছু করি । এদিকে লকডাউনের কারনে দোকান পাঠ গুলো বন্ধ ।
ছুটে গেলাম দোকান খোলা আছে কিনা দেখতে দেখি কিছু খাবার পাওয়া যায় কিনা ।
অনেক খোঁজা খোঁজি করে দেখলাম একটি দোকানের সামনে সাটার বন্ধ করে পাশে দোকান মালিক দাড়িয়ে আছে । ওই দোকানদার কে বললাম আমার কিছু খাবার ক্রয় করতে হবে
একটু খুলুন । জরিমানার ভয়ে প্রথমে খুলতে না চাইলেও বিষয়টা শেয়ার করার পর তিনি দোকানের একটি সাটার কিছুটা আলগা করে
আমাকে দোকানের ভেতরে নিলেন । পেশাগত দিক থেকে আমি একজন গনমাধ্যম কর্মি এবং মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। আর এরকম সময়ে নেজেই কিছুটা আর্থিক সংঙ্কেটে রয়েছি এর পরেও নিজের পকেটে যা ছিলো সাধ্যমতো কিছু শুকনো খাবার কিনলাম ওই বুড়িমার জন্য । ফিরে এসে দেখি বুড়িমা সেখানেই বসে আছে । খাবার গুলো দিতে তাকে হাত বাড়িয়ে দিলাম ,কিন্তু অবাক ব্যাপার তিনি প্রথমে সেগুলো নিতে চাইলোনা । আমি তাকে কয়েক বার অনুরোধ করার পর তিনি খাবর গুলো হাতে নিলেন । এরপর আমার দিকে তাকিয়ে মৃদু হাসলেন । তাকে সামন্য সহযোগিতা করতে পেরে নিজেও ভিষন আত্মতৃপ্তি পেলাম । এ এক অন্য রকম অনুভুতি যা আপনাদের ভাষায় প্রকাশ করতে পারছিনা । তবে একটা বাস্তব জিনিষ উপলবদ্ধি করলাম ভোগে সুখ নয়,ত্যাগেই সুখ । ইচ্ছে হয় মানুষের জন্য কিছু করি , কিন্তু কি আর করার সাধ আছে সাধ্য নেই । তাই আমার এই সামান্য চেষ্টা মাত্র ।সমাজের বৃত্তবানদের প্রতি আমার অনুরোধ আপনারা যে যার অবস্থান থেকে দলমত নির্বিষেশে এই সংঙ্ককটময় সময়ে সকলে নিজনিজ এলাকার অসহায়, দুস্থ্য , কর্মহিন
এই মানুষ গুলোর পাশে দাড়ান । আপনাদের মনেও আত্মতৃপ্তি আসবে ।

লেখক-মো. মেহেদি হাসান উজ্জ্বল।

সাংবাদিক

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email