বুধবার ১ এপ্রিল ২০২০ ১৮ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আধুনিক কবি আবদুল হাই মাশরেকী’র মৃত্যুবার্ষিকী

আজ(৪ ডিসেম্বর) বাংলাদেশের প্রখ্যাত লোক সাহিত্যিক এবং মূলসংস্কৃতির শিকড়ের আধুনিক কবি আবদুল হাই মাশরেকী’র মৃত্যুবার্ষিকী।

জীবনবোধের এই কবি ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনেও ঢাকা ও ময়মনসিংহ অঞ্চলে একজন সক্রিয় কর্মী হিসেবে বাংলা ভাষার দাবিতে সোচ্চার ছিলেন।

১৯১৯ সালের ১ এপ্রিল আবদুল হাই মাশরেকী ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার কাঁকনহাটি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম ওসমান গণি সরকার যিনি জমিদার বিরোধী আন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী ছিলেন ও মাতা রহিমা খাতুন। শিক্ষাজীবনের প্রথম দিকে তিনি ময়মনসিংহের আনন্দমোহন কলেজে ইন্টারমিডিয়েটে ভর্তি হয়েছিলেন কিন্তু পরবর্তীতে কলকাতা পাড়ি জমান।

অষ্টম শ্রেণীতে পড়ার সময় তার প্রথম গ্রন্থ ‘চোর’ (গল্প) প্রকাশিত হয়। কলকাতা থাকাকালীন তিনি এইচএমভি প্রতিষ্ঠানে চুক্তিভিত্তিতে গান লেখার কাজ করেন।

১৯৪৬ সালে কলকাতায় হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা শুরু হলে তিনি পূর্ববঙ্গে চলে আসেন এবং পরবর্তীতে ঢাকার এইচএমভির হয়ে চুক্তিভিত্তিক গান লিখলেও এখানে কর্মজীবন শুরু করেন শিক্ষকতার মাধ্যমে। তার কর্মজীবনের অধিকাংশ সময় কাটে শিক্ষকতা, জুট রেগুলেশন, দৈনিক বাংলা পত্রিকার সহ-সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে।

১৯৭৬ সালে কর্মজীবন থেকে অবসর গ্রহণের পূর্বপর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ কৃষি মন্ত্রনালয়ের ম্যাগাজিন ‘কৃষিকথার’ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব নিযোজিত ছিলেন।

তিনি ছিলেন সাধারণ মানুষের নিত্যদিনের হাসি কান্না, সুখ-দুঃখ, বিরহ-বেদনা, আনন্দ-মিলন, আশা-আকাঙ্ক্ষার রূপকার। তিনি ছিলেন খেটে খাওয়া মানুষের জীবনবোধের আদর্শ কবি। গ্রামের মাটির সোঁদা গন্ধ আর শ্রমজীবী মানুষের গায়ের ঘাম তার কাব্যে পাওয়া যায়। তার প্রতিটি লেখনী বাংলা সাহিত্যেও শিকড়।

ত্রিশ ও চল্লিশ দশকে তিনি সাহিত্য জগতে বেশ সাড়া জাগিয়েছিলেন। মূলত গ্রাম বাংলার সাধারণ মানুষদের জীবনগাঁথাই তার লেখনিতে স্থান পেয়েছিল। তার লেখা অসংখ্য পালাগান, দেশাত্ববোধক গান, কবিতা ও গণসংগীতের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল, ‘রাখাল বন্ধু’, ‘জরিনা সুন্দরী’, ‘আল্লা মেঘ দে ছায়া দে’, ‘হে আমার দেশ’, ‘কিছু রেখে যেতে চাই’সহ আরও অনেক।

মূলত কলকাতাতে থাকাকালীনই তার লেখা কবিতা, গান, গল্প, নাটক ও প্রবন্ধ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এসময়ই তার লেখা গানগুলো রেকর্ড আকারে প্রকাশিত হয় কলকাতায় ও দেশ বিভাগের পর বাংলাদেশেও প্রকাশ হতে শুরু করে। সেসময়ের বহুল প্রচারিত আকাশবাণী, তৎকালীন রেডিও পাকিস্তান ও বাংলাদেশ বেতারে নিয়মিত তার গান প্রচার করা হত।

কবি মাশরেকীর গান ছিল হৃদয়স্পর্শী। তাই তৃণমূল মানুষের কাছে যেতে পেরেছিলেন তিনি। আজকের প্রজন্মের জন্য কবি আবদুল হাই মাশরেকীকে নিয়ে গতিশীল কাজ করা প্রয়োজন দেশ ও জাতির স্বার্থে।

তার লেখা ‘ওরে আমার ঝিলাম নদীর পানি’ ১৯৬৭-৬৮ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের রাষ্ট্রীয় ‘তঘমাই ইমতিয়াজ’ পুরস্কার লাভ করে কিন্তু তিনি পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেছিলেন।

কবি আবদুল হাই মাশরেকীর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ হচ্ছে- কিছু রেখে যেতে চাই (কাব্য), ভাটিয়ালী (কাব্য), দুখু মিয়ার জারি (কাব্য), মাঠের কবিতা মাঠের গান (কাব্য), হে আমার দেশ (কাব্য), বাউল মনের নকশা (গল্প), নদী ভাঙে (গল্প), মানুষ ও লাশ (গল্প), বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতার জারি (কাব্য), নতুন গাঁয়ের কাহিনী (নাটক), সাঁকো (নাটক) আকাশ কেন নীল (অনুবাদ) ইত্যাদি।

১৯৮৮ সালের ৪ ডিসেম্বর দত্তপাড়া গ্রামে নিজ বাড়িতে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email