সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আমরা কি পারি না মাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখতে

মা কে নিয়ে লেখা, কিভাবে শুরু করব? মা-কে নিয়ে পৃথীবির অনেক লেখক, কবি ও সাহিত্যকরা অনেক লেখা লিখছে। পৃথিবীতে অনেক গুণীজন আছেন যারা মাকে নিয়ে অনেক ভাল ভাল লেখা লিখিছেন।

আমার সীমিত জ্ঞানে লিখার যে সাহস করেছি তা অনেকের ভাল নাও লাগতে পারে। তাই সকল বন্ধুদের কাছে আমি ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি, এবং আমার এ অল্প জ্ঞানে যতটুকু লিখেছি দয়াকরে ধৈর্য সহকারে পরবেন।

মায়ের জন্য আবার নাকি বিশেষ দিন! ধুর। হয় নাকি কোনওদিন! মা ছাড়া জীবনের একটা মুহূর্তও ছিল নাকি কোনওদিন! ছিলাম যাঁর জন্য, রয়েছি যাঁর জন্য, থাকার প্রার্থনাও যে সবথেকে বেশি করে, তাঁর জন্য নাকি মাত্র ১ টা বিশেষ দিন! গোটা জীবনটাই তো মা – তোমারই জন্য।

মা’ পৃথিবীর সবচেয়ে আপন ও প্রাণের একটি শব্দ। এ শব্দতেই লুকিয়ে থাকে গভীর ভালোবাসা আর মমত্ববোধের আকুলতা। মমতাময়ী ‘মা’ এর কাছেই সন্তানদের হাজারো বায়না, গল্প কত কি! মনের সব লুকোনো কথাগুলোও কেমন করে এই মা জেনে যায়। সব সুখ দুঃখের এক মাত্র প্রিয় বন্ধু হয় মা। এই ‘মা’ নিয়ে অনেকেই লিখে গেছেন তাঁদের নিজেদের মতো করে-

মায়ের চেহারা চোখে ভাসলেই ভেসে ওঠে তার স্নেহ,ভালোবাসা আর মমতায় মাখা মুখ। নি:স্বার্থ আর প্রতিদান অপ্রত্যাশী মা তার জীবন দিয়ে আগলে রাখেন সন্তানকে।

‘মায়ের পায়ের নিচে সন্তানের বেহেশ্ত’, ‘জননী স্বর্গের চেয়েও গরীয়সী’ বলা হয়েছে যুগ-যুগ ধরে।

মা’কে ভালোবাসার জন্য প্রয়োজন নেই কোনো বিশেষ দিন, প্রতিদিনই ভালোবাসা যায় এ মানুষটিকে। কোন মা’কে যেন বৃদ্ধা শ্রম নামে কারাগারে যেন না হয়, এটাই সকল সন্তানের কাছে প্রত্যাশা। ভাল থাকুক আমার মা’সহ সন্তানের গর্ভধারীনি মা গুলো।

লেখক-তানভীর হাসান তানু।

সাংবাদিক