বুধবার ১৯ জুন ২০১৯ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আমাদের স্বাধীনতা ও ফেসবুক

মানুষ জন্মগতভাবে স্বাধীনতা উপভোগ করতে চায়।মানুষের সাধারণ ধারণা হচ্ছে যে,তিনি স্বাধীন, তিনি যা খুশি তা ভাবতে পারেন,যা খুশি তা লিখতে পারেন,যা খুশি তা করতে পারেন।আমাদের দেশের সংবিধানসহ সভ্য দেশের সংবিধান সমূহে জনগনের চিন্তা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা প্রদান করা হয়েছে। জনগণের এ স্বাধীনতার পাশাপাশি তাদের কিছু দায়িত্বের কথা বলা হয়েছে।আমার নিজের স্বাধীনতা উপভোগ করতে গিয়ে আমার আশেপাশের মানুষের স্বাধীনতা খর্ব হচ্ছে কি-না এটি আমরা প্রায়শই ভুলে যাই। এখানেই স্বাধীনতা উপভোগের কিছু সীমাবদ্ধতা বিদ্যমান রয়েছে।ধরা যাক, একটি পাবলিক বাসে পাশাপাশি সীটে বসে দু’ব্যক্তি যাওয়ার সময় এক ব্যক্তি তার এক পায়ের উপর আরেক পা তুলে দুলাতে থাকলেন।পা দুলাতে দুলাতে পাশে বসা অপর ব্যক্তির নাক পর্যন্ত জুতো চলে গেল।এখন এক ব্যক্তির স্বাধীনতার চরম উপভোগ হলেও অপর ব্যক্তির স্বাধীনতার চরম অবমাননা সংঘটিত হলো।এখানেই স্বাধীনতা উপভোগের সীমাবদ্ধতা বিদ্যমান।আপনি আপনার স্বাধীনতার চরম উপভোগ সেই সীমা পর্যন্ত করতে পারবেন,যেখানে অপরের স্বাধীনতার সীমা শুরু।
কিন্তু আজকাল ফেসবুকে ফাঁকা মাঠ পেয়ে কিছু মানুষ এমন ভাবে কোন বিষয় নিয়ে লেখালেখি করেন যে, তিনি তাঁর স্বাধীনতার চরম উপভোগ করতে গিয়ে আরেকজনের নাকের মধ্যে তাঁর জুতো দুলিয়ে যাচ্ছেন।তিনি সামান্যতম ভাবছেন না যে, অপর ব্যক্তির স্বাধীনতার বারোটা বাজিয়ে ছাড়ছেন।তাই সভ্য দেশে স্বাধীনতা মানে অপরের অধিকার ক্ষুন্ন না করে নিজের অধিকার উপভোগ করাকেই বুঝায়।
যে কোন বিষয়ে একটি পোস্ট করা বা কারো পোস্ট এ কমেন্ট করার ক্ষেত্রে আমাদের এটুকু ভাবতে হবে যে, আমার এ পোস্ট বা কমেন্ট এ অন্য মানুষের অধিকার সামান্যতম ক্ষতি হচ্ছে কি- না? এটি যদি আমরা সকলে করতে পারি তাহলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হতে পারে আমাদের জন্য আশির্বাদ এবং সভ্য জাতি গঠনের একটি শক্তিশালি হাতিয়ার,নতুবা;আমাদের কোন পোস্ট এ হয়তো ব্যাপক কমেন্টস, লাইক পড়তে পারে বা ভাইরাল হতে পারে,কিন্তু সেটি আমাদের কোন নাগরিকের ব্যক্তিগত অধিকার ক্ষুন্ন করে তার জীবন দুর্বিসহ করতে পারে।
আমরা আর একটি বিষয়ে খুবই অবিবেচকের মতো কাজ করি। সমাজে কোন ব্যক্তি কোন ফৌজদারী অপরাধ( ক্রিমিনাল অফেন্স) করলে তাকেসহ তার পরিবার,মা- বাবা, ভাই বোন,এমনকি আত্মীয়-স্বজনের ছবিসহ বা ছবি ছাড়া তাকে বা তাদেরকে হেয় প্রতিপন্ন করতে স্টেটাস দিই।আমাদের ফৌজদারী কার্যবিধি ও দন্ডবিধি অনুযায়ী কোন ব্যক্তি কোন ফৌজদারি অপরাধ করলে তার দায় তাকেই ব্যক্তিগত ভাবে বহন করতে হবে,আইন দ্বারা প্রমাণিত হলে তাকেই আইনে বর্ণিত সাজা ভোগ করতে হবে।তার অপরাধের জন্য কোন ভাবেই তার পরিবারের অন্যকোন সদস্যকে দায়ী করা বা সাজা দেয়া যাবে না। কিন্তু আমরা কখনো কখনো কোন ব্যক্তির এরূপ অপরাধ বিষয়ে স্টেটাস বা মন্তব্য করতে গিয়ে তার পরিবারের আদি অন্ত সকলকে জড়িয়ে ফেলার চেষ্টা করি।এতে হয়তো অনেক লাইক বা কমেন্টস পাওয়া যেতে পারে,কিন্তু অন্যায় ভাবে নিরপরাধ ব্যক্তিগনকে সম্পৃক্ত করে তাদের ব্যক্তি অধিকার আমরা ক্ষুন্ন করি।এটি সভ্য সমাজে কোন ভাবেই কাম্য ও গ্রহনযোগ্য নয়।
তাই আসুন আমরা সোশ্যাল মিডিয়া বা ফেসবুক এ এমন ব্যবহার করি যাতে অন্যের অধিকার ক্ষুন্ন না হয়,নইলে হয়তো এমন একদিন আসবে যেদিন অন্যের দ্বারা আপনার অধিকার ক্ষুন্ন হবে,কিন্তু আপনার কিছুই করার থাকবে না।

লেখক-মো.হামিদুল হক।
জেলা প্রশাসক
ঝালকাঠি।