বৃহস্পতিবার ২৪ জানুয়ারী ২০১৯ ১১ই মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আমার বাবা

ছোটবেলা থেকেই বাবা নির্মল কান্তি দেব বাদল নামটি আমাদের ভাইবোনদের কাছে একজন বন্ধুর নাম। কত সহজে একজন বাবা বন্ধু হয়ে উঠতে পারে আমার বাবাকে না দেখলে কেউ বুঝতে পারবে না।

আমাদের ছোটবেলাটা বরাবরই কৃষি বিভাগের সরকারি চাকুরীর সুবাদে বাবার বাইরেই কেটেছে। বৃহস্পতিবার ছিলো বিকেলে আমাদের তিনভাইবোনের বাড়ির গেটে অপেক্ষার পালা। বাবার সাথে পাইন এপেল বিস্কুট ও নাবিস্কো চকলেট পাবো বলে। বাবাকে ও এগুলো পাওয়ার আনন্দ আমাদের বাকী ছয়দিন না পাওয়ার কষ্টটা ভূলিয়ে দিতো।

আম কাঁঠালের দিন এলে বাবা ছুড়ি নিয়ে বসে সকলকে আম কেটে খাওয়াতো। রাস্তার পাশে বাড়ি হওয়াতে কে যাচ্ছে ডেকে বাড়িতে আড্ডা দেয়া। সন্ধ্যায় শ্যামল কাকুর দোকানে আড্ডা। কারো বিপদে ছুটে যাওয়া সব মিলিয়ে ছিলেন আমার বাবা।

তাঁর তিন ছেলেমেয়েকে নিয়ে ভীষন গর্ব ছিলো। বাড়িতে দালান তিনি হয়তো তুলতে পারেননি কিন্তু ভীষন গর্ব করে বলতেন, আমি তিনটি বিল্ডিং তুলেছি। তাঁর তিন ছেলেমেয়ের একমাত্র ছেলে বিসিক এ আজ এক্সটেনশন অফিসার। দু মেয়ে শিক্ষক।

আমরা গর্ববোধ করি আমাদের দাদু নলিনী কান্তি দেব ১৯৫৩ সালে প্রতিষ্ঠিত উলিপুর সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন।

কথা বলছিলাম বাবাকে নিয়ে, বাবা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। আমরা গর্বিত বাবাকে নিয়ে। জানুয়ারী মাসে সকলে যখন নতুন বছরের আনন্দে মাতে আমরা পরিবারের সকলে তখন আমাদের প্রাণপ্রিয় বাবাকে হারানোর অসীম শূন্যতায় বাবাকে খুঁজি। সেই অভাবটা বোধকরি কোন মূল্যে মাপা সম্ভব নয়।কারন জানুয়ারী মানে আমাদের কাছে বাবা হারানোর মাস।

কেউ বাবা ডাকলে কোথাও বুকের মাঝে ধাক্কা লাগে। মনে হয় আমার বাবা কেন নেই? ঈশ্বর আমাদের সাথে অবিচার করেছেন বড়ই। ঠিক করেননি তিনি! ৬৩ বছর বয়স কি খুব বেশী চলে যাবার জন্য! ঠিক করেননি ঈশ্বর মোটেও আমাদের সাথে।

প্রার্থনা করি সকল বাবা যেন সুস্হ থাকেন। সকল সন্তানের মাঝে ভালোবাসায়। নতুন বছর পরিবারের সকলের সাথে ভালো কাটুক সকলের।

 

লেখক-সুচরিতা দেব।

নারী নেত্রী।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ

ঠাকুরগাঁও জেলা শাখা।