শুক্রবার ২৯ মে ২০২০ ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আম্পানে লণ্ডভণ্ড পশ্চিমবঙ্গ, অন্তত ৭২ জনের মৃত্যু

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে আঘাত হানা শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে মৃতের সংখ্যা ৭২ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে কয়েক’শ মানুষ।

বৃহস্পতিবার রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী এক বিবৃতিতে এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, আম্ফানের কারণে ৭২ জনকে আমরা হারিয়েছি। এছাড়া হাজার হাজার ঘরবাড়ি ও গাছপালা ধ্বংস হয়ে গেছে। বৈদ্যুতিক খুঁটি উপড়ে পড়ে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে আছে। নিম্নাঞ্চলে বন্যা লেগে বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। কর্তৃপক্ষ ত্রাণ তৎপরতার জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস সংকটের মধ্যেও।

মমতা বলেন, ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে যারা মারা গেছেন, তাদের পরিবারের জন্য আমি আড়াই লাখ রুপি ক্ষতিপূরণ দেয়ার ঘোষণা দিচ্ছি।

সারাদিনই নবান্নের কন্ট্রোল রুম থেকে ঝড়ের গতিপ্রকৃতিক খোঁজখবর রাখছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ঝড়টি পুরোটাই পশ্চিমবঙ্গের ওপর দিয়ে বয়ে গেছে। এতে উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণা ‘ধ্বংস’ হয়ে গেছে, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে, প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে ক্ষয়ক্ষতি কতটা হয়েছে, সেই সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য পেতে তিন-চার দিন লেগে যাবে বলেও জানান তিনি।

বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে ঘূর্ণিঝড়টি স্থলভূমিতে ঢুকে পড়তে শুরু করে এবং সন্ধ্যায় দক্ষিণ ২৪ পরগনার সুন্দরবন উপকূলে আছড়ে পড়ে আম্পান। কলকাতায় ঘণ্টায় প্রায় ১৩৩ কিলোমিটার বেগে বয়ে যায় ঝড়ো হাওয়া। এর জেরে লণ্ডভণ্ড হয় কলকাতাসহ দুই ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুর। হাওড়া, হুগলি এবং পশ্চিম মেদিনীপুরেরও হাজার হাজার কাঁচা ঘরবাড়ি এবং গাছপালা ভেঙেছে। ক্ষয়ক্ষতি আরো বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী জানান, প্রশাসন ও সাধারণ মানুষের সাহায্যে একদিনের মধ্যেও পাঁচ লক্ষ মানুষকে সরাতে পেরেছিলেন, তই ক্ষয়ক্ষতি কিছুটা ঠেকানো গিয়েছিল।

তিনি বলেন, ‘এলাকার পর এলাকা ধ্বংস হয়ে গেছে। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। উপকূলীয় সুন্দরবন,দিঘাসহ দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার বহু এলাকা,মন্দারমণি, শংকরপুর, তাজপুর, কুলপি, কাকদ্বীপ মিনাখাঁ, হিঙ্গলগঞ্জ, সন্দেশখালি, হাসনাবাদ, হাড়োয়া-সহ উত্তর ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর জেলার বিস্তীর্ণ অংশ বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। পানির তোড়ে ভেসে গেছে সড়ক, সেতু, বাড়িঘর। পূর্ব মেদিনীপুরের বিভিন্ন জায়গায় প্রবল বৃষ্টির সঙ্গে ঝড়ের দাপট বাড়ে। দিঘায় সকাল থেকেই সমুদ্র ছিল উত্তাল। প্রবল জলোচ্ছ্বাস হয়েছে। সমুদ্রবাঁধও কিছু জায়গায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতি খারাপ হয়েছে। উপকূলীয় অনেক জায়গাতেই বাঁধ ভেঙে সমুদ্রের পানি ঢুকে পড়ে। বিভিন্ন জায়গা থেকে এখনো ক্ষয়ক্ষতির খবর আসছে। কাঁচাবাড়ি ভেঙে পড়েছে অনেক জায়গায়। কলকাতার মানুষ বহুবছর এমন ভয়াবহ ঝড় দেখেনি। শত শত গাছ ও বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়ায় যোগাযোগ কার্যত বন্ধ। বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে গোটা শহর।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email