বৃহস্পতিবার ১৬ অগাস্ট ২০১৮ ১লা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আসমা বিবি তোমাকে অভিবাদন মা।

অাটষট্টি বছর অবরুদ্ধ থাকার পর ভারত বিভক্তির বিষফোঁড়া ছিটমহলের মানুষ অবশেষে মুক্ত বাতাসে দম নেয়ার সুযোগ পেয়েছে এইতো সেদিন। এর আগে তারা ছিলো রাষ্ট্রহীন, নাগরিকত্বহীন একধরনের নেইমানুষ (People of nowhere)। দেশিরাজ্য নামক ভুখন্ডের শৃঙ্খলিত স্বাধীনতা আর র‍্যাডক্লিফ সাহেবের স্হল সীমানা নির্ধারনের ভৌতিক সমাধান উভয় ছিটের বায়ান্ন হাজার মানুষের অস্তিত্ব অবলিলায় অস্বীকার করে ফেললো। গত শতাব্দীর চল্লিশের দশক থেকে দু’হাজার পনের পর্যন্ত লম্বা সময় এই মানুষগুলো যাপন করেছে অবর্ণনীয় দূর্ভোগের জীবন। সেখানে না ছিলো শিক্ষা, না চিকিৎসা না সভ্যতা বিকাশের ন্যুনতম সুযোগ।

খুব কাছ থেকে ছিটের মানুষদের বেঁচে থাকার লড়াই দেখেছি আমরা খুব কম মানুষই। একটা স্বাধীন সার্বভৌম দেশের ভূখন্ডের মধ্যে অন্য একটা দেশের ছোট ছোট জমিনে বাস করা বিপন্ন মানুষগুলো দশকের পর দশক থেকেছে খবরের অন্তরালে। উপমহাদেশের ভূ-রাজনীতি ঔপনবেশিক জগাখিচুড়ি শাসনের ডামাডোলের সাথে তাল মেলাতে গিয়ে কি নিষ্টুর অাচরণ করেছে এই ভাগ্যহত ছিটমহলের মানুষগুলোর সাথে সেগুলো জানতে আমাদের কেটে গিয়েছে প্রায় পৌণে এক শতাব্দী। কিন্তু ততদিনে কত অজস্র ভুল আর মিথ্যার কালো কালি দিয়ে কত অসংখ্য অসহায় জীবনের গল্প লেখা হয়েছে তার হিসাবই বা রেখেছে কে! মিথ্যে পিতৃ-মাতৃ পরিচয়ে জন্ম নিতে বাধ্য হয়েছে সহস্র শিশু। হাসপাতালের রেজিস্ট্রারে তাদের মিথ্যে বাবা মা। স্কুল উপস্হিতি খাতায় জন্মদাতার মিথ্যে নাম। সরকারি সাহায্যের বিলাসী আকাঙ্খার দায় মেটাতে হয়েছে জন্ম পরিচয়ের সত্যকে মিথ্যের বাতাবরণে ঢেকে।
এই অগৌরবের জীবন যাপন সবার কাছে সহনীয় ছিলো এমন কিন্তু নয়। আটষট্টি বছরের এই অন্ধকার সময়ে ‘আলো হাতে আঁধারের যাত্রি’ হওয়ার সাহস দেখিয়েছেন অনেকেই। সংগত কারনেই সে সব গল্পের বেশীর ভাগই খবর হয়ে পাদপ্রদীপের অালোয় আসেনি। কিন্তু একেবারেই কি আসেনি! ছিটের অদৃশ্য কিন্তু দূর্ভেদ্য দেয়াল ভেদ করে এক সাহসী মায়ের গল্প একদিন প্রচন্ড বেগে আঘাত করেছিলো ভারতীয় সার্বভৌমত্বের একদম পাঁজরে।

আসুন সে সাহসী মায়ের গল্প শুনি-

ছিটমহলের নাম মশালডাঙ্গা। ভারতে অবস্হিত বাংলাদেশী ছিটমহল। কোচবিহার জেলার দিনহাটা সদর হাসপাতাল থেকে দুরত্ব খুব বেশী নয়। মশালডাঙ্গার শাজাহান শেখের সন্তান সম্ভবা স্ত্রী আসমা বিবি প্রসব যন্ত্রনায় কাতর। অতি দ্রুত হাসপাতালে নেয়া দরকার। শাজাহান জানেন অসুস্হ স্ত্রীকে সরকারি হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করানো কতটা ঝুঁকিপূর্ণ। ভারতের ভূ-সীমানার মধ্য তার জন্মভিটা হলেও ভারত তার দেশ না। এখানে তার কোন নাগরিক অধিকার নেই। দুরবর্তী স্বদেশভুমি বাংলাদেশ তার অচেনা। স্ত্রী আসমা বিবি আগের দুটি সন্তানের জন্ম দিয়েছেন পিতৃ পরিচয় গোপন করে। গোপন করে বলা হলেও আসলে গোপন করে নয়, মিথ্যে পরিচয় দিয়ে। একজন ভারতীয় নাগরিকের স্ত্রী পরিচয়ে ভুমিষ্ট করতে হয়েছে তার আগের যে দুটি সন্তান তাদের পিতৃ পরিচয় চীরকালের জন্য মিথ্যে হয়ে আছে। আসমাকে দিনহাটা সরকারি হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে। স্বামী শাজাহান যখন অন্য একজনকে তার অনাগত সন্তানের পিতা সাজিয়ে স্ত্রীকে হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্হা করতে ব্যস্ত ঠিক সে সময়ই বেঁকে বসেন আসমা। ছিটমহলের ঠিকানা আর স্বামীর পরিচয় লুকাতে অস্বীকার করেন তিনি। আগের দু’টোর মত তাঁর এই সন্তানও মিথ্যা পরিচয়ে জন্ম নিয়ে মিথ্যা জীবন বয়ে বেড়াক এটা এবার হতে দেবেন না তিনি। আসল পরিচয় জেনে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাঁকে ভর্তি করাতে রাজী হয়না। এদিকে দ্রুতই চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে এ খবর। পুলিশ আসে হাসপাতালে। অসম সাহসী মা, বাবা আর স্বজনদের গ্রেপ্তারে তৎপর হয়ে ওঠে তারা। খবর পেয়ে ছিটমহল থেকে ছুটে আসে দলে দলে মানুষ। ভারতীয় গণমাধ্যমকর্মী,মানবাধিকারকর্মীরাও আসেন। আসেন অসংখ্য উৎসাহী মানুষ। প্রত্যেকেই সংহতি জানাতে থাকেন আসমার দাবীর প্রতি। ইতিহাস সৃষ্টির যুগসন্ধিক্ষণে তখন তৈরী হতে থাকে মানবিক মূল্যবোধের আর এক নতুন ইতিহাস। কুচবিহার জেলা প্রশাসন অতি দ্রুত এ দাবীর যথার্থতা উপলব্ধি করতে পারে। আসমার অধিকারের মৌলিকত্ব স্বীকৃত হয়। আসমার সব দাবী মেনে তাকে ভর্তি করা হয় হাসপাতালে। এর ঠিক দু’ঘন্টা পর দিনহাটা সরকারি হাসপাতালে পৃথিবীর আলো চোখে মেখে ‘জন্মমাত্র সুতীব্র চিৎকারে’ কেঁদে ওঠে ‘জিহাদ হোসেন ওবামা’- আসমা বিবির স্বাধীন তৃতীয় সন্তান।

আসমা বিবি তোমাকে অভিবাদন মা।

 

লেখক-সুভাষ দাশ।

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ।

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর