বৃহস্পতিবার ২১ জুন ২০১৮ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

আসুন ছেলেটির কান্না আর তার বক্তব্যের ব্যবচ্ছেদ করি

একটা ভিডিও দেখলাম ফেসবুকে। সম্ভবত আপনারাও দেখে ফেলেছেন এতোক্ষণে। অঝোরে কাঁদছে একটা ছেলে। কান্নার কারন এসএসসিতে ফেল করেছে সে। তার কান্না ঠেলে বেরিয়ে আসা শব্দগুলোর সত্তর ভাগ অকথ্য খিস্তি। এইসব খিস্তি উগড়ে দিচ্ছে সে বাঁধভাঙ্গা রাগ আর অভিমান থেকে। এ দেশের এডুকেশন সিস্টেমের লিঙ্গ পরিচয় কি আমি জানিনা। তবে ছেলেটির ক্ষোভ এতটাই তীব্র যে যদি সেটা স্ত্রীবাচক হয় তাহলে আমাদের দেশের এডুকেশন সিস্টেম এতক্ষণে সন্তান সম্ভবা হয়ে গেছে। যে ছেলে প্রাথমিক সমাপনী আর জেএসসিতে ‘গোল্ডেন’ জিপিএ পেয়ে পাশ করেছে সে কিভাবে এসএসসিতে ফেল করে!-এ প্রশ্ন সে ছুঁড়ে দিয়েছে কাঁদতে কাঁদতে। ছেলেটি জানাচ্ছে এ মুহুর্তে তার বাবা মা বাড়িতে নেই। একা একাই সে এই লাইভ ভিডিওটি করছে। তার আবেদন প্রত্যেক দর্শকের কাছে যেন সবাই ভিডিওটি শেয়ার করেন।

আসুন ছেলেটির কান্না আর তার বক্তব্যের ব্যবচ্ছেদ করি-

কান্না আবেগের প্রকাশ। এর উদগিরণ হয় দু:খ ক্ষোভ এবং কখনও কখনও আনন্দের আতিশয্যেও। ছেলেটির ক্ষেত্রে নি:সন্দেহে এটা দু:খ ও ক্ষোভজাত। আহারে! কাঁদুক ছেলেটা। দশ বছর পড়ে এসএসসি ফেল করে আমরাই কাঁদতাম আর ও তো পড়েছে বারো বছর! কান্নাটা তাই ওর যৌগিক অধিকারের মধ্যেই পরে।
বারো বছর শুনে চমকালেন নাকি! না চমকে নিজের ঘরের দিকে তাকান। ফেল না করলেও দশ ক্লাশ পাশ করতে আমাদের বাচ্চাদের এখন বারো বছরই লাগে। চার বছরের বাচ্চার পিঠে ব্যাগ ঝুলিয়ে দিয়ে মা নিয়ে যাচ্ছেন স্কুলে। এই অসহ্য দৃশ্য দেখে বিরক্ত হয়ে আপনি হয়তো মাকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘আপা এতটুকু বাচ্চাকে স্কুলে দিয়েছেন!
-আরে না! ওখানে তো পড়ায় না। শুধু খেলা আর ছবি আঁকা। তাছাড়া ধীরে ধীরে স্কুলে যাওয়ার অভ্যাসটাও গড়ে উঠুক।
আপনার কি! উঠুক গড়ে অভ্যাস। বড়জোড় আপনার ভাবনায় আসতে পারে- চার বছর বয়স থেকে স্কুল, কোচিং, ড্রয়িং ক্লাস, হোম ওয়ার্ক, ভালো স্কুলে ভর্তি হওয়ার প্রস্তুতি,প্রশ্ন ফাঁস তারপর কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় তারপর চাকরি, বিয়ে, সংসার- আরে, এ ছেলে ‘মা’ ডাকবে কখন!
ছেলেটা ভিডিওতে প্রচুর স্ল্যাং বলেছে। এগুলো শিখলো কোথায়! ও নিজেই বলছে ওর বাবা মা দুজনেই চাকরি করেন। দুজন শিক্ষিত মানুষের পরম পরিচর্যার মধ্যে বেড়ে ওঠা একটা পনের ষোল বছরের কিশোর এভাবে গড়গড় করে অশ্লীল শব্দ বলতে পারে-আমার মানতে ইচ্ছে করেনা। কেবল মনে হয় ‘মা’ ডাকতে না পারার সময়টায় ও মাদারচোদ বলতে শিখেছে। কিংবা বোধহয় ক্ষোভ প্রকাশে ব্যবহার করা ভাষায় শব্দগুলো যে অশ্লীল হতে হয় এটা ওকে প্রকৃতিই শিখিয়ে দিয়েছে।

অনেকে বলছেন এ সকল জিপিএ ফাইভ বোগাস। একজন শিক্ষার্থীর প্রকৃত মেধা যাচাই’র ক্ষেত্রে এই উচ্চ গ্রেডিং পয়েন্ট কোন কিছুই ব্যক্ত করতে পারেনা। যারা এভাবে বলেন তাদের সাথে সহমত পোষন করছি। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে আপনার সন্তানের বেলায় যদি এরকম ঘটে তখন আপনার প্রতিক্রিয়াটা কেমন হবে? আপনি কি নিজেকে প্রস্তুত করেছেন কিংবা আপনার সন্তানকে? যদি শিক্ষা পদ্ধতির এই নির্মম বাস্তবতা থেকে নিস্তার পেতে চান এ প্রশ্নের জবাব জানতে হবে। তবে শুধু জানা পর্যন্ত ঠেকে থাকার সুযোগ নেই বিকল্প পথও খুঁজে পাওয়া জরুরি। আর এখানে এসেই থমকে দাঁড়িয়ে যাচ্ছেন অনেক সাহসী অভিভাবকও। কারন বিকল্প খোঁজার দায় রাষ্ট্রের। আমার আপনার না। প্রণোদনা দিয়ে একজন আপাত ব্যর্থকে হয়ত জাগিয়ে দেয়া যায়। কিন্তু তার জন্য কোন লক্ষ্য স্হির করবেন আপনি! সেই তো একই গন্তব্য- জিপিএ ফাইভ।

আচ্ছা, ফলাফলের মধ্যে ‘গোল্ডেন’ শব্দটা ঢুকে গেল কিভাবে! গ্রেড নির্ধারনের ক্ষেত্রে নম্বর প্রাপ্তির সীমাকে বিবেচনায় নেয়া হয়। সেখানে শতকরা পঁচাশি যা পঁচানব্বইও তাই। অথচ দেখবেন সব বিষয়ে আশি না পেয়েও কোন শিক্ষার্থী যখন গ্রেড পয়েন্ট পাঁচ অর্জন করে তখন সেই শিক্ষার্থীর অভিভাবক কিন্তু খুশি হন না। বিমর্ষ হন, লজ্জিত হন। কেন! কারন ওই একটাই, ছেলেটি তথাকথিত ‘গোল্ডেন’ পায় নাই। জানা মতে এটা কোন স্বীকৃত অর্জন নয়। শুধুমাত্র নিজের বাচ্চার শ্রেষ্ঠত্ব বোঝাতে এই শব্দটি আমরা অকারণে হামেশাই ব্যবহার করছি। কি হীণমন্য আচরন! অথচ পরীক্ষা পদ্ধতির মধ্যে গ্রেডিং সিস্টেমের অন্তর্ভুক্তির অন্যতম প্রধান কারনই ছিলো এই শ্রেষ্ঠত্বের ধারনাকে নাকচ করে দেয়া।

যে বাচ্চারা সর্বোচ্চ জিপিএ অর্জন করছে তাদের অভিনন্দন। যারা সেটা পারছে না দয়া করে তাদেরকে অপরাধী বানাবেন না। সুবিধা বঞ্চিত বা সিস্টেমের বলি হয়ে অনেক বাচ্চার মধ্যেই নিজের সম্পর্কে হীণ ধারনা তৈরী হয়। প্লিজ, আমাদের কোনও বালখিল্য আচরণের কারণে যেন বাচ্চাদের মনে এ ধারনা আরও গভীর না হয় সেটা খেয়ালে রাখবেন।

লেখক-সুভাষ দাশ।

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর