সোমবার ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আহা জীবন….!!!

পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি অমানবিক ও নৃশংসতার শিকার ওরা। কিন্ত ওদের হাসিমুখটা দেখেন, কি নিষ্পাপ হাসি ওদের। সামান্য পাঁচ টাকা দামের চকো, চানাচুর, লিচি আর ডাল ভাজা কিনে দিয়েছিলাম। তাতেই কি খুশি ওরা…আহা কি অমলিন হাসি..!!!

শিশুদের সঙ্গে আমার খাতির হয়ে যায় দ্রুত। তা সেটা যেখানেই হোক। গতকাল যখন কাজ শেষে রোহিঙ্গাদের সতের নং ক্যাম্পের একটি দোকানে এসে বসি, সেখানেই পরিচয় ছোট্ট ইয়াসমিনের সঙ্গে। ফুটফুটে ও চটপটে মেয়েটিকে একটা লিচির প্যাকেট কিনে দিলাম। তারপর একে একে আরো এলো জনা বিশেক শিশু। সবাইকে কিনে দিলাম, যে যেটা খেতে চায়। ওরা আনন্দে উচ্ছাসে আমার ঘাড়ে কোলে এসে লাফিয়ে পড়ছিল।

আজ যখন সকালে একই পথে ট্রেইনিং করাতে যাচ্ছিলাম, তখন একটা শিশু আমাকে দেখে। সে দৌড়ে গিয়ে খবর দেয় ইয়াসমীনকে। অনেকদূর চলে যাবার পর দেখি পেছন থেকে কেউ স্যার স্যার বলে ডাকছে। পেছন ফিরে দেখি ইয়াসমীন, সঙ্গে আরো কয়েকজন। আপ্লুত আমি ওদের বুঝিয়ে ফেরত পাঠালাম। ফেরার সময়ে অন্যদিকে কাজ থাকলেও ওই পথে ফিরে ইয়াসমীন এবং তার সঙ্গীদের সঙ্গে সুন্দর সময় কাটলো। যে যেটা খেতে খাইয়েছি। আজ ছিল ওরা ত্রিশ জন।

অদ্ভুত একটা অনুভূতি হলো আজ। ফিরে আসার সময় যখন ওরা টাটা দিচ্ছিল, সত্যিই মনটা খারাপ হয়ে গেল।

লেখক- নুরুজ্জামান লাবু।

সাংবাদিক ও কলামিষ্ট