রবিবার ১ নভেম্বর ২০২০ ১৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ইউএনও ওয়াহিদার বাবার করা মামলায় জামিন পেল নৈশপ্রহরী পলাশ

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের ইউএনও (সদ্য ওএসডি হওয়া) ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখের ওপর হামলার মামলায় জামিন পেল নৈশপ্রহরী পলাশ।

গ্রেফতারের একমাস পর রোববার বিকেলে তাকে জামিন দেন দিনাজপুরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আঞ্জুমান আরা। সন্ধ্যায় তাকে কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয়েছে।

দিনাজপুরের আদালত পুলিশের পরিদর্শক ইসরাইল হোসেন জানান, জামিনপ্রাপ্ত নাদিম হোসেন পলাশ দিনাজপুর সদর উপজেলার পরজপুর গ্রামের সুলতান মাহমুদের ছেলে ও ঘোড়াঘাট ইউএনওর বাসভবনের নৈশ প্রহরী। ওই মামলায় তাকে গত ১২ সেপ্টেম্বর গ্রেফতার দেখায় দিনাজপুরের ডিবি পুলিশ। তবে এর আগে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছিল।

পুলিশ আরো জানায়, ঘোড়াঘাট ইউএনও ও তার বাবার ওপর হামলার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় মোট পাঁচজন আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তারা হলেন- ঘোড়াঘাট ইউএনও কার্যালয়ের বরখাস্তকৃত মালি রবিউল ইসলাম, ঘোড়াঘাট পৌর যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা আসাদুল ইসলাম, রংমিস্ত্রী নবীরুল ইসলাম, সান্টু কুমার দাস ও ইউএনওর বাসভবনের নৈশ প্রহরী নাদিম হোসেন পলাশ।

এদের মধ্যে বরখাস্তকৃত মালি রবিউল ইসলাম এই ঘটনায় সম্পৃক্ত থাকা ও হামলার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। আর আবেদনের প্রেক্ষিতে শুধুমাত্র পলাশকে জামিন দিলেন আদালত।

নৈশপ্রহরী আসামি নাদিম হোসেন পলাশকে ১২ সেপ্টেম্বর গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ড আবেদন ছাড়াই আদালতে সোপর্দ করা হলে আদালত তাকে জেলহাজতে পাঠান।

উল্লেখ্য, গত ২ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে সরকারি বাসভবনে ঢুকে ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখকে নির্মমভাবে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে দুর্বত্তরা।

এই ঘটনায় ইউএনও ওয়াহিদা খানমের বড়ভাই শেখ ফরিদ উদ্দীন বাদী হয়ে গত ৩ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে ঘোড়াঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি ঘোড়াঘাট থানা থেকে দিনাজপুর ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email