মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০ ৩০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ইউক্রেইনের সংঘাত বন্ধে সম্মত দুইপক্ষ

UKRAINE-UNREST-EU-RUSIA-POLITICSইউক্রেইনের প্রেসিডেন্ট ও বিরোধীদলীয় নেতারা দেশটিতে চলমান সংঘাত বন্ধে সম্মত হয়েছেন। তবে ইতোমধ্যে দেশটিতে সাম্প্রতিক এই সংঘর্ষে ২৬ জন নিহত হয়েছেন।  প্রেসিডেন্ট ভিক্টর ইয়ানুকোভিচের অফিসিয়াল ওয়েবপেইজে বলা হয়েছে, ‘‘দেশে চলমান রক্তপাত বন্ধে স্থিতিশীলতা ও সামাজিক শান্তি আনার লক্ষ্যে আলোচনা শুরু হচ্ছে।’’

 

বুধবার রাতে প্রেসিডেন্ট ইয়ানুকোভিচ দেশটির সেনাপ্রধান কর্নেল জেনারেল ভে­ দিমির জামানাকে বরখাস্ত করে নৌ কমান্ডার অ্যাডমিরাল ইউরি ইলিয়িনকে তার স্থলাভিষিক্ত করেছেন। তবে ঠিক কি কারণে তিনি এই পরিবর্তন আনলেন তার কারণ জানা সম্ভব হয়নি।

ইউক্রেইনের প্রেসিডেন্টের এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। কিন্তু পাশাপাশি পরিস্থিতির ওপর হোয়াইট হাউজ নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ অব্যাহত রাখবে বলেও তিনি জানিয়েছেন। অবশ্য ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেইনের ২০ জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞ  আরোপ করেছে। এদিকে, ইউক্রেইনে সংঘাতের অবসান ঘটাতে সরকার ও বিরোধীপক্ষ সম্মত হওয়ার পর ইউরোপীয় একটি প্রতিনিধিদল দেশটির রাজধানী কিয়েভ সফরে গেছে। এই প্রতিনিধি দলে রয়েছে ফ্রান্স, জার্মানি ও পোল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। তারা ইউক্রেইনের সরকার ও বিরোধীদলীয় নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন বলে জানা গেছে। দেশটির ওপর ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) নিষেধাজ্ঞ  আরোপ করবে কি না এ ব্যাপারে ব্রাসেলসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বৈঠক হওয়ার আগেই কিয়েভ গেল এই প্রতিনিধি দল। মঙ্গল ও বুধবার কিয়েভে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে অমত্মতপক্ষে ২৬ জন নিহত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে এসব পদক্ষেপ গ্রহণ করা হল। সংঘর্ষে নিহতদের স্মরণে বৃহস্পতিবার ইউক্রেইনে একদিনের শোক পালন করার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। ইউরোপীয় তিন রাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ইউক্রেইন সফর শুরুর আগে দেশটির সাম্প্রতিক সহিংসতাকে অগ্রহণযোগ্য আখ্যা দিয়ে সরকার ও বিরোধীপক্ষকে আলোচনায় আসার আহবান জানানো হয়। ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লরা ফ্যাবিয়াস রীতিমতো হুমকি দিয়ে বলেন, এ ধরনের রক্তপাত নিষেধাজ্ঞ  ছাড়া বন্ধ হবে না। কিয়েভ সফর শেসে তিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রাসেলসে যাবেন। সেখানেই ইইউ’র সম্ভাব্য নিষেধাজ্ঞ র ব্যাপারে আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। ২০১৩ সালের নভেম্বরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে একটি বাণিজ্য চুক্তিতে না গিয়ে রাশিয়ার কাছ থেকে দেড় হাজার কোটি ডলার ঋণ নেয়ার পর ইউক্রেইনে সরকারবিরোধী এই বিক্ষোভ শুরু হয়। পরে পার্লামেন্টে বিক্ষোভ বিরোধী বিভিন্ন আইন পাসকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ সহিংস রূপ পায়। সম্প্রতি রাশিয়ার কাছ থেকে ইউক্রেইন আরো দুইশ কোটি ডলার ঋণ নেয়ার পর নতুন করে বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভকারীরা মঙ্গলবার দিনের বেলায় প্রেসিডেন্ট ভিক্টর ইউনুকোভিচের ক্ষমতা কমানোর দাবিতে মিছিল নিয়ে পার্লামেন্টের দিকে যেতে চাইলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে।

দুপুরে সরকারি দলের একটি কার্যালয়ে ভাংচুর ও লুটতরাজ চালানো হয় বলেও খবর পাওয়া যায়। ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, যুক্তরাষ্ট্র ও জাতিসংঘ ইউক্রেইনের এই সহিংসতার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। অবশ্য রাশিয়া এ পরিস্থিতির জন্য পশ্চিমা দেশগুলো ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নকে দায়ী করছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email