সোমবার ২৬ অগাস্ট ২০১৯ ১১ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ইট ভাটার বিষাক্ত ধোয়ায় পুড়েছে কৃষকের কপাল

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে দুটি ইট ভাটার বিষাক্ত ধোয়ায় প্রায় ৫০একর জমির ধান ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। এতে কপাল পুড়েছে দুই ইউনিয়নের শতাধিক কৃষকের। প্রতিবাদ করায় ভাটা মালিক মিথ্যে মামলা দায়ের করেছে বলে দাবি এলাকাবাসীর। বার বার ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় দ্রুত সময়ে কৃষি এলাকা হতে ইট ভাটা সরিয়ে নেওয়ার দাবিও জানান তারা।

উপজেলার পাল্টাপুর ইউনিয়নের সাদুল্ল্যপাড়া গ্রামে আবাদি জমির উপর স্থাপিত আরডিএফ ইট ভাটা এবং নিজপাড়া ইউনিয়নের নখাপাড়া গ্রামে এসবিএম ইট ভাটার বিষাক্ত ধোয়ায় শতাধিক কৃষকের জমির ধানক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। এতে চরম বিপাকে পড়েছে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকেরা। এ দিকে কৃষি সম্প্রসারণের অফিসের পক্ষ থেকে পুড়ে যাওয়া ফসলে সাদাপানি ও ছত্রাক নাশক ওষুধ স্প্রে করার পাশাপাশি ইট ভাটার গ্যাস যাতে অন্যান্য ফসলের ক্ষতি করতে না পারে সে ব্যাপারে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

স্থানীয় কৃষকরা জানায়, ইট ভাটার বিষাক্ত ধোয়ায় আনুমানিক ৫০একর জমির বোরো ধান ও ভুট্টা ক্ষেত পুড়ে গেছে। বিষাক্ত ধোয়ার প্রভাব পড়েছে আম, কাঠাল, লিচুসহ বেশকিছু গাছে। এই বিষাক্ত ধোয়ায় ক্ষতি থেকে বাকি ফসল বাচাতে কৃষি অফিসের পরামর্শে  কীটনাশক স্প্রে করা হচ্ছে। এতে করে তাদের খরচ বেড়েছে এবং পুঁজি শেষের পথে। এখন যদি ক্ষতিপুরণ না দেওয়া হয় তাহলে পথে বসতে হবে তাদের।

ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক পাল্টাপুর ইউনিয়নের সাদুল্ল্যাপাড়া গ্রামের মোঃ মজনু জানান, আবাদি জমির উপর স্থাপিত আরডিএফ ইট ভাটার চিমনি সেকেলের। এ কারণে প্রতিবছর ইট ভাটার বিষাক্ত ধোয়ায় ফসলের ক্ষেত পুড়ে যাচ্ছে। ইট ভাটা বন্ধের দাবি করেও কোন কাজ হয়নি। ববং গত বছরের ফসলের ক্ষতিপুরণের দাবি জানাতে গিয়ে ৪জন কৃষকের বিরুদ্ধে চাদাবাজির মামলা দ্ওেয়া হয়েছে ভাটা মালিকের পক্ষে।

একই গ্রামের কৃষক মোঃ আব্দুল্লাহ হেল তানিম বলেন, এই এলাকার কৃষকদের ফসল রক্ষার লক্ষ্যে দ্রুত এই ইট ভাটা সরিয়ে নিতে হবে। পাশাপাশি কৃষদের ন্যায্য ক্ষতিপুরণ দিতে হবে। তা না হলে কৃষকদের পথে বসতে হবে। বিশেষ করে যারা বর্গাচাষী তাদের ভিক্ষা করা ছাড়া কোন উপায় থাকবে না। ইট ভাটা বন্ধ এবং ক্ষতিপুরণের দাবি জানিয়ে স্থানীয় কৃষক ও গ্রামবাসী বিভিন্ন দপ্তরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে বলে তিনি আরও জানান।

নিজপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মোঃ ওবাইদুল হক জানায়, কৃষি জমি নষ্ট করে ইট ভাটা নির্মাানে বাধা দেওয়া হয়। কিন্তু অদৃশ্য শক্তির বলে সেখানে ইট ভাটা স্থাপিত হয়েছে। সে সময় বাধা দেওয়ার কারণে আমাকে বিভিন্ন ধরণের হুমকি প্রদান করা হয়েছে। বাধ্য হয়ে আমি আইনি ব্যবস্থা গ্রহণে আদালতের শরণাপন্ন হয়েছি।

আরডিএফ ইট ভাটার ম্যানেজার মোঃ আব্দুল মান্নান জানান, গত বছর ইট ভাটার কারণে ফসলের ক্ষতি হয়েছিল কিন্তু ভাটা মালিক প্রত্যেক কৃষকে ক্ষতিপুরণ প্রদান করেছেন। তবে এবার কি কারণে ফসলের ক্ষতি হয়েছে এখন পর্যন্ত নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

উপজেলা ইট ভাটা মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফরহাদ হোসেন জানান, উপজেলায় মোট ১৩টি ইট ভাটা রয়েছে যে গুলির চিমনির উচ্চতা ১২০ফিট। তবে গত ৩বছরে উপজেলায় ইট ভাটার সংখ্যা দাঁড়ায় ৩২টি। নতুন করে স্থাপিত ইট ভাটার আইনগত অনুমতি এবং চিমনির উচ্চতা বিষয়ে তেমন কোন তথ্য আমার জানা নেই।

উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি অফিসার আম্বিকা চরণ রায় জানান, বিষয়টি জানার সাথে সাথে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়। পরিদর্শনে ইট ভাটার ধোয়ায় ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এরআগেও এমন ঘটনা ঘটেছে। এবারও ক্ষতিগ্রস্থ ফসলে একই নমুনা পাওয়া গেছে। আমরা বাকি ফসল রক্ষা এবং ক্ষতির পরিমান নিরুপনে কাজ করে যাচ্ছি।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মনোরঞ্জন অধিকারী জানান, লিখিত অভিযোগে প্রেক্ষিতে পাল্টাপুর ইউনিয়নের সাদুল্ল্যাপাড়া গ্রামে অবস্থিত আরডিএফ ইট ভাটা বিষাক্ত ধোয়ায় আক্রান্ত জমির পরিমান আনুমানিক ২০একর। এ ছাড়া নিজপাড়া ইউনিয়নের নখাপাড়া গ্রামে এসবিএম ইট ভাটার বিষাক্ত ধোয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেখানে ক্ষতির পরিমাণ নিরুপণে কৃষি অফিস কাজ করছে।

বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন জানান,উপজেলার আরডিএফ ইট ভাটা এবং এসবিএম ইট ভাটার বিষাক্ত ধোয়ায় ধানের ক্ষতি হয়েছে এমন দুইটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টির সত্যতা নিরুপনে কৃষি অফিসকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তাদের নিকট থেকে এ ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য পেলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ইতিমধ্যে দুই ইট ভাটার মালিক আমাকে আমার সাথে যোগাযোগ করেছে। তারা কৃষকদের ন্যায্য ক্ষতিপুরন দিবে বলে আমাকে আশ্বস্ত করেছেন।