সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ইনডিন পল্লীর গণহত্যা আর দশ রোহিঙ্গা শহীদের করুন গাঁথা।

বাংলাদেশের সেন্টমার্টিন দ্বীপ পেরিয়ে আরো একটু দক্ষিণে গেলে বঙ্গোপসাগরের সৈকতে রাখাইন প্রদেশের জেলে পল্লী নাম ইনডিন।এই গ্রামে প্রায় ৬হাজার মুসলমান রোহিঙ্গারা শত শত বছর ধরে বসবাস করে আসছিল প্রতিবেশী বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের সাথে মিলে মিশে। এই ছয় হাজার মানুষের সবাই এখন বাংলাদেশে শরণার্থী।

প্রতিটি শরণার্থীর সাথে আলাপচারিতায় মগ সেনা দস্যুদের অত্যাচার আর গণহত্যার অভিযোগ বেরিয়ে আসলেও সুচির সরকার তা অস্বীকার করে আসছিলো এতদিন। কিন্তু ২০১৭ সনের ডিসেম্বরের ১৭ তারিখ ইনডিন গ্রামে রয়টার্সের দুই জন বার্মিজ সাংবাদিক ১০জন শহীদের গণকবর আবিষ্কার করে সংবাদ প্রকাশ করে দেয়। সাংবাদিক দুজন এখন বার্মার ৩২ ধারা ধরণের আইনে গ্রেফতার হয়ে বন্দি আর বিচারাধীন, তারা দেশের গোপন খবরের ছবি কেন তুলেছিল, — সেটি অপরাধ।

রয়টার্সের এই দুই সাংবাদিকের বিচারে যদি ১৪ বছর জেল হয়েও যায়, তারা ইতিহাসে অমর হয়ে থাকবেন। তারা গণহত্যার যে করুন কাহিনী প্রকাশ করেছেন, তার কারণে সূচি আর তার মিলিটারি জুন্টা এই প্রথম স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছে রাখাইনে —গণহত্যা হয়েছে। জড়িত সামরিক ব্যক্তিদের বিচার করবে বলে ঘোষণাও দিতে বাধ্য হয়েছে মগা সরকার।

সারা পৃথিবীর মানবাধিকার সংগঠনগুলির নজর এখন এই গ্রামের হত্যাকান্ড নিয়ে। গত ৩ দিন ধরে পৃথিবীর সব বড় গণমাধ্যমগুলির মূল সংবাদ এটি। এই প্রমাণিত সংবাদের ওপর ভিত্তি করেই হয়তো আন্তর্জাতিক অবরোধ আসবে মায়ানমার সরকারের ওপর।

২০১৭ সনের পঁচিশে আগস্ট ৩০টি পুলিশ চৌকিতে হামলা হয়েছিল। তার প্রেক্ষিতে ২৭ আগস্ট বিকেল বেলা জলপাই রঙের পোশাক পড়া ৮০জন সৈনিকের দল ইনডিন গ্রামে এসে ঘাঁটি গাড়ে। তারা ছিল ৩৩ তম লাইট আর্টিলারি ইনফ্যান্ট্রি ডিভিশনের সৈন্য এবং ৮ নম্বর সিকুরিটি পুলিশ ব্যাটেলিয়নের সদস্য।

স্থানীয়দের তারা বাধ্য করে তাদের খানা দানা আর রসদ জোগাতে। তাদের অভিযোগ ২০০ রোহিঙ্গা, তাদের ভাষায় বাঙালী মুসলমান– তলোয়ার আর লাঠি নিয়ে স্থানীয় বৌদ্ধ রাখাইনদের ভয় দেখিয়েছিলো এবং তার ফলশ্রুতিতে মাউং নি নামের একজন স্থানীয় কৃষক নিখোঁজ হয়েছে।

পহেলা সেপ্টেম্বর ইনডিন গ্রামের এক মেঘাচ্ছন্ন কালো সকালে মিলিটারির উপস্থিতিতে গ্রামের সব পুরুষকে জড়ো করে।এর মধ্যে আরো ছিল, সমুদ্রের পাড়ে অস্থায়ী তাঁবুতে আশ্রয় নেয়া পল্লীবাসী যারা বাংলাদেশে পালিয়ে যাবার মনস্থ করেছিল। হানাদাররা তাদের খুশিমত ১০জনকে ধরে নিয়ে যায়, তাদেরকে মাথার পেছনে হাত রেখে ছবি তোলে, রাতের বেলা স্কুলে আটকে রেখে পরের দিন তাদেরকে হত্যা করা হয়।

নিখোঁজ কৃষক ‘মাউং নি’র ছেলেকে বলা হয় তোমার নিখোঁজ পিতার হত্যার বদলা নাও। রামদা হাতে নিয়ে সে বেছে নেয় ইনডিন গ্রামের একমাত্র মসজিদের ইমাম ৩০ বছর বয়সী আব্দুল মালেককে। ৫ সন্তানের জনক আব্দুল মালেক তার ইসলামিক জ্ঞানের কারণে বিশ বছর বয়সে গ্রামের মসজিদের ইমাম নিযুক্ত হয়েছিলেন। তিনি মসজিদের মক্তবে শিশুদের ইসলাম শেখাতেন, কোরান পড়াতেন। ফ্লাস্কে বানানো চা আর কেরোসিন বিক্রি করে তিনি জীবিকা নির্বাহ করতেন। তিনি তার মসজিদে মাইক লাগিয়ে আজান দিতেন। গ্রামবাসী তাকে বলেছিলো মাইকে আজান দেয়া নিষিদ্ধ, তুমি আজান দিওনা।তিনি শুনতেন না। সূর্যোদয়ের আগে তার আজান শুনেই জেলেপল্লী জেগে উঠতো। তার চায়ের টঙে জেলেরা আসতো, আড্ডা হতো, রাজনীতি নিয়েও কথা হতো।

স্থানীয় মুসলমানদের প্রধান ব্যক্তি হিসাবে সর্বপ্রথম ‘মাউং নি’র বড় ছেলে ‘সেঁ চাই’ তার হাতের অস্র দিয়ে ইমাম আব্দুল মালেকের ঘাড়ের পেছনে কোপ দেয়, মাটিতে পরে গেলে তার আজান দেয়া আর কোরান পড়া গলায় ছুরি চালিয়ে তার শিরোচ্ছেদ করে এই পাষন্ড। ঢালাও ভাবে কবর দেয়ার আগে মওলানার কাটা মুন্ডু ধরের পাশে রেখে ছবি তোলে হানাদাররা, সেই ছবি রয়টার্সের হস্তগত হয়েছে এবং তারা তা গ্রাফিক হলেও প্রকাশ করেছে।

দ্বিতীয় শিরোচ্ছেদটি করে মাউ নিংএর ছোট ছেলে। আবুল হাশেম স্কুল ছাত্র যার বয়স ছিল ১৭, যাকে তার বিনয়ী চরিত্রের জন্যে সবাই ডাকতো আবুলু, তাকে বেছে নেয় সে। আবুলুর মা ‘নূরজান’ বলেছেন, ‘আবুলু গোস্ত খেতে পছন্দ করতো, আমি শুঁটকি রাঁধলে সে আত্মীয়ের বাসায় চলে যেত খানা খেতে। তার শখ ছিল লেখাপড়া শিখে গ্রামে ফার্মেসি খুলবে।’

একজন রিটায়ার্ড আর্মি রয়টার্সের রিপোর্টারকে বলেন, এরপর সেনারা বাকিদেরকে দুটো তিনটে গুলি করে মেরে ফেলে।

নিহতদের মাঝে দিল মোহাম্মদ দিলুর স্ত্রী আর তাদের ১৫ বছরের ছেলে এখন বালুখালী ক্যাম্পে।

শওকত আলী (৩৫) গুলি খেয়ে মরলেও গুলির শব্দ শোনেনি, সে ছিল জন্ম বয়রা।

পানের দোকানদার আব্দুল মজিদের ৮ সন্তান যাদের বয়স ১ থেকে ১৯ তারা তাদের মা আমেনা খাতুন এখন টেনখালী রিফুজি ক্যাম্পে।

শাকের আহমেদের স্ত্রী গত নভেম্বরে তার নবম সন্তান প্রসব করেছেন মুহাজির হিসাবে।

১৫টি ছাগলের মালিক হাবিজু’র স্বপ্ন ছিল একটি গাভী কিনবেন, তার স্ত্রী সোনা খাতুন বালুখালী ক্যাম্পে মোহাম্মদ সাদেক নামের পুত্র সন্তান জন্ম দিয়েছেন গত মাসে।

বার্মিজ আর ইংরেজি বলতে জানা রশিদ আহমেদের বয়স ছিল মাত্র ১৮, রিফুজি ক্যাম্পে তার পিতা আব্দুস শাকুর পুত্রশোকে বাক্য হারা। মেধাবী রশিদ উচ্চ শিক্ষিত হতে চেয়েছিলো।

বাঙ্গু ওরফে নূর মোহাম্মদ যার সিক্স এবস শাহরুখ খানের চেয়েও সুন্দর,– মাছ বিক্রি করে খেতো, তার স্বপ্ন ছিল শুধু তার ছোট্ট পরিবারটিকে নিয়ে। তার স্ত্রী রেহানা খাতুন রিফুজি ক্যাম্পে উদাস তাকিয়ে থাকেন চুপচাপ।

গ্রামের সবচেয়ে সচ্ছল মানুষটি ছিলো আবুল হাশিম, ১৬টি মহিষের মালিক, মেশিন পার্টস বিক্রির দোকান ছিল, এনজিওরা দানের চাল জমা রাখতো তার কাছে, তিন একর জমিতে করেছিলেন বৃক্ষ উদ্যান।তার স্ত্রী হাসিনা খাতুন টেনখালী রিফুজি ক্যাম্পে যাকে পান তাকেই বলেন, ওদেরকে মারলো কেন? ওরা সবাইতো ভালো মানুষ ছিল।

গত নভেম্বরে হাসিনা খাতুনের একটি পুত্রসন্তান হয়েছে, নাম রেখেছে আব্দুল মজিদ।

মওলানা আব্দুল মালেকের হত্যাকারী ‘সেঁ চাই’ কে গ্রেফতার করতে বাধ্য হয়েছে মগা সরকার। চারজন সেনাকে আপাততঃ বিচার করার কথা বলছে মায়ানমার।

 

সংবাদ আর ছবি সূত্র – https://www.reuters.com/…/special-r…/myanmar-rakhine-events/