শনিবার ২০ জানুয়ারী ২০১৮ ৭ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

ইভার মত ‘ত্যাজ’ নিয়ে বড় হ মা

S

‘ডাব পাকলে নাইরকেল হয় বাম পাকলে আওয়ামীলীগ-এই প্রবাদ শুইনা বুড়া হইলাম। অহন দেহি উল্টা! কেনরে ভাই হুদাই বাম পাট্টি করা মাইয়াডারে এই শীতের রাইতে গেটে বহায়া রাখলি!’ বিজ্ঞজনদের একটা অনানুষ্ঠানিক আলোচনার পাশ দিয়ে যেতে যেতে কথাগুলো কানে এলো। দাঁড়িয়ে গেলাম। ভদ্রলোকের উচ্চস্বর বহাল- ‘তবে যাই কন মাইয়াডার ত্যাজ আছে।’ আমি যোগসুত্র মেলাবার চেষ্টায় ব্যস্ত হয়ে পড়ি। টিউবলাইটের মত জ্বলতে অতটা সময় লাগে না আমার। বুঝে ফেলি। ‘বাকৃবি’র প্রথম বর্ষের ছাত্রী বামফ্রন্ট কর্মী আফসানা আহমেদ ইভা’র প্রতিবাদের গল্পটাই ছিলো ‘বিজ্ঞজনদে’র আলোচনার বিষয়।

ডিবিসি টিভির টকশো রাজকাহনে ছাত্রলীগ সভাপতির বক্তব্য শুনছিলাম। অসত্য যে আত্মবিশ্বাসের সাথে উচ্চারণ করতে পারলে সত্যের মত শোনায় কিংবা কিঞ্চিত বিভ্রান্তি অন্তত ছড়াতে পারে সে উপলব্ধি হলো। তবে দেখার মত হয়েছিলো উপস্হাপিকার চেহারাটা। তোতলাকে তোতলাতে তিনবার জিজ্ঞেস করলেন একই প্রশ্ন- ‘অাপনি বলছেন বাংলাদেশে কোথাও প্রশ্নপত্র ফাঁসই হয় নাই?’ আমাদের দেশের ভবিষ্যত কর্ণধারদের একটজন, ছাত্রলীগ সভাপতি, এ প্রশ্নের উত্তরে কি বলেছেন দেশের মানুষ সেটা পরম অবিশ্বাস নিয়ে শুনেছেন। কিন্তু আমার কৌতুহল অন্য জায়গায়- অকপটে অসত্য বলার এ আত্মবিশ্বাস তারা কোথায় পান!

সুলেখক যুবায়ের হাসান ভাই’র আজকের একটা স্ট্যাটাস থেকে কিছু অংশ ছবি সহ তুলে দিচ্ছি-

‘সকালে চুপচাপ হেঁটে যাচ্ছিলাম । কলাভবনের সামনের চত্বরটা তখন অন্য দিনগুলোর মতোই নিরিবিলি । শীত আর কুয়াশার দাপটে আজ যেন আরেকটু ফাঁকা ফাঁকা । এই পরিবেশের মধ্যেই কে একজন পিছনের দিকে কিছু একটা দেখানোর চেষ্টা করে বলে উঠল, অবস্থা দেখেছেন স্যার–কী করে শুয়ে আছে ! একটু পিছিয়ে এসে এবার চোখে পড়ল, তবে না পড়লেই স্বস্তি পেতাম । দিনটা ক্যামন যেন ফ্যাকাশে হয়ে গেল হঠাৎ করেই ।
হাঁটাপথের পাশেই শুকনো নর্দমার লাইন । প্রস্থে আট-নয় ইঞ্চির চেয়ে একটুও বেশি হবে না আর এর মধ্যেই শুয়ে নয়-দশ বছরের ছেলেটি । এই হিমশীতল কনকনে ঠাণ্ডায় পায়ের কাছে এক টুকরো কাঁথার মতো কিছু একটা । পাশ ফেরার উপায় নেই ! এত বড় পৃথিবীতে আর কোথাও ওর মতো শিশুর জায়গা হয়নি।’

এ লেখার শেষে একজন বিবেকবান মানুষের মত উনি উনার দায় এবং অক্ষমতার কথাও লিখেছেন। শেষে লিখেছেন উনার অসহায় ভাবনার কথাও-

‘নাগরিক অভ্যাসবশে এগিয়ে যাই সামনে আর ভাবি, এসব যাদের বাস্তবে দেখার কথা, তারা কি আজীবন বড় বড় বুলি দিয়েই দিন পার করবে?’

হ্যা যুবায়ের ভাই উনারা অতি আত্মবিশ্বাসের সাথে সত্যের মত করে অসত্য বলেই তাদের দায়িত্ব শেষ করবেন।

উত্তরে এবার প্রচন্ড শীত। বন্যার ধকল কাটতে না কাটতেই আরেক বিপর্যয়। দায় আর সাধ্যের সমন্বয় করে বিপর্যস্ত মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করি। এরমধ্যেই মেয়ের জন্মদিন এসে পড়ে। ওর মাথায় স্নেহের হাত রেখে শুভকামনা জানাই-

‘ঝড়ে বন্যায় মাড়ি আর মড়কে বড় অসহায় মানুষ। ওদের পাশে দাঁড়াতে হবে। তাই ইভার মত ‘ত্যাজ’ নিয়ে বড় হ মা।’

লেখক-সুভাষ দাশ

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ।

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর