সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ইসরায়েল ও হিজবুল্লাহর মধ্যে গোলাগুলি

সপ্তাহব্যাপী উত্তেজনার পর লেবানন সীমান্ত বরাবর ইসরায়েল ও হিজবুল্লাহর মধ্যে ব্যাপক গোলাগুলি হয়েছে। এতে সেখানে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে এবং এ ঘটনার পরপরই বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশগুলো উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।  ইসরায়েল জানায়, হিজবুল্লাহ বাহিনী সেনা সদরদফতর ও সামরিক অ্যাম্বুলেন্স লক্ষ্য করে ট্যাঙ্ক বিধ্বংসী দুই বা তিনটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর রবিবার কামান হামলা চালিয়ে এর জবাব দেয়া হয়।

হিজবুল্লাহর হামলায় সামরিক গাড়ির  ভেতরের ব্যক্তিরা হতাহত হয়েছে ওই বাহিনীর এমন দাবি নাকচ করে দিয়ে ইসরায়েলি কর্মকর্তারা বলছেন, হিজবুল্লার হামলায় কেউ হতাহত হয়নি। ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেন, এ ব্যাপারে ‘পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে আমরা আলোচনা করছি। এ ক্ষেত্রে ‘আমাদের যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য বাহিনীকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছি আমি।’ জাতিসংঘ সংযত থাকার আহ্বান জানিয়েছে এবং ফ্রান্স উত্তেজনা হ্রাসে বিভিন্ন পর্যায়ে যোগাযোগ করছে। এদিকে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের এক কর্মকর্তা জানান, এ অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করতে ব্যাপারে ইরানের ভূমিকা প্রশ্নে যুক্তরাষ্ট্র উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছে ইসরায়েলের আত্মরক্ষার অধিকারের প্রতি ওয়াশিংটনের সমর্থন রয়েছে। ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘শত্রুতামূলক কর্মকান্ড থেকে হিজবুল্লাহর বিরত থাকা উচিত। তাদের এ ধরনের কর্মকান্ডের কারণে লেবাননের নিরাপত্তা, স্থিতিশীলতা ও সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে পড়েছে।’ এদিকে হিজবুল্লাহ জানায়, তাদের যোদ্ধারা আবিবিম ব্যারাক অভিমুখী সড়কে একটি সামরিক গাড়ি গুঁড়িয়ে দিয়েছে। এতে ওই গাড়ির যাত্রীরা হতাহত হয়েছে।

খবর এএফপি