বুধবার ৩ জুন ২০২০ ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ঈদ ও পূজাকে সামনে রেখে ঠাকুরগাঁওয়ে মাদকের মজুদ বৃদ্ধি

ঠাকুরগাঁও শহর ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় কমপক্ষে ২০ টি স্পটে প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত মাদকের হাট বসছে। পুলিশের শিথিল তৎপরতার সুযোগে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে মাদক ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা। সন্ধ্যার পর এসব স্পট এদের দখলে চলে যায়। মূলত উঠতি বয়সের তরুণ ও যুবকরা এর মূল ক্রেতা।
সরেজমিন অনুসন্ধানে এমন উদ্বেগজনক তথ্য পাওয়া গেছে। অভিজ্ঞ মহল মনে করছে প্রশাসন মাদক নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ। মাদক নির্মুলে পাড়ায় পাড়ায় করা হচ্ছে মাদক বিরোধী সমাবেশ করছে কিছু সমাজসেবী সংগঠন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বালিয়াডাাঙ্গী জিয়াখোর, সেন্টারের হাট, হরিণমারী ও শহরের রোড, মুন্সিপাড়া এলাকায় সন্ধ্যায় বসে মাদকের হাট। এলাকাবাসীদের অভিযোগ- এখানে প্রতিদিন শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে মাদক সেবনকারীরা সন্ধ্যায় রোড ষ্টেশন ও বিভিন্ন পয়েন্টে আনাগোনা শুরু করে। মাদক বিক্রেতারা তাদের শরীরে মাদক বহন করে বিক্রি করে বেড়ায়। এলাকার অবিভাবকগণ তাদের স্কুল পড়ুয়া ছেলে-মেয়েদের নিয়ে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে।
ওই এলাকার মুসল্লিরা জানান, সারাদিনই মাদকের কেনাবেচা চলে। তবে সন্ধ্যার পর মাদকের হাট বসে এখানে। মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবীদের বেপরোয়া কার্যকলাপের জন্য প্রতিনিয়ত বিব্রত অবস্থায় পড়তে হয় স্থানীয়দের। তাদের দেয়া ভাষ্যমতে একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা মাদক সেবন এবং মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। ফলে মাদক ব্যবসায়ীদের পোয়াবারো অবস্থা। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে এ জন্য দিতে হচ্ছে মাসোহারা।
এদিকে ভারতীয় সীমান্তবর্তী মুন্ডুমালা, ধর্মগড়, ডাবুরী এলাকা থেকে পাচার হয়ে আসা মাদকদ্রব্য বিভিন্ন উপজেলায় ও শহরে প্রবেশের ফটক হিসবে ব্যবহৃত হচ্ছে সদর উপজেলার ভাউলার হাট ও বালিয়াডাঙ্গী সড়ক। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা দেখা গেলে মাদক ব্যবসায়ীরা বিকল্প পথ হয়ে বিনা বাঁধায় শহরে প্রবেশ করে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিন সীমান্ত দিয়ে প্রায় ১০ হাজার পিস ফেনসিডিল ও কয়েক কেজি গাঁজাসহ বিভিন্ন প্রকার মাদক আসে। যার বড় অংশ সড়ক পথে চলে যায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। শুধু ঠাকুরগাঁও শহর ও আশপাশ অঞ্চলে বিক্রি হয় আড়াই থেকে তিন হাজার পিস ফেনসিডিল। এছাড়া মাদকের সবচেয়ে বড় মার্কেটগুলো হলো- বালিয়াডাঙ্গীর জিয়াখোর, দুসুও, হলদিবাড়ী, কাচকালাই, ফরকাবস্তি, বাদামবাড়ি, বালিয়াহাট, স্কুলের হাটসহ বিভিন্ন এলাকা।
প্রতি পিস ফেনসিডিলের ভারতে ক্রয় মূল্য বাংলাদেশি ২০০-২৫০ টাকা। আর তা বাংলাদেশে খুচরা বিক্রি হয় ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা। অর্থাৎ প্রতিদিন প্রায় অর্ধ কোটি টাকার মাদক ব্যবসা চলে ঠাকুরগাঁওয়ে। পূজা এবং ঈদকে সামনে রেখে মাদকের চাহিদা আরও বেড়েছে।
সমাজসেবী সাইফুল ইসলাম জানান, প্রশাসন মাদক নিয়ন্ত্রণের বদলে মাদক ব্যবসায়ীদের পৃষ্ঠপোষকতা করছেন। ফলে অনিয়ন্ত্রিতভাবে মাদকের বিস্তার লাভ করছে সর্বত্রই। তাই যুব সমাজকে বাঁচাতে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষকে নিয়ে মাদক প্রতিরোধ কমিটি গঠন করা দরকার।
ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার চেয়ারম্যান তৈমুর রহমান মাদকের ভয়াবহ বিস্তারের কথা স্বীকার করে বলেন, যুব সমাজকে মাদকের হাত থেকে বাঁচাতে না পারলে দেশের ভবিষ্যত অন্ধকার। প্রশাসন আন্তরিক হলে ঠাকুরগাঁও জেলাকে মাদকমুক্ত করা সম্ভব।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email