রবিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

উত্তাল সময়ের ছাত্র নেতা শফিউর রহমান

ষাট দশকের ছাত্রনেতা শফিউর রহমান স্কুল বয়স থেকে রাজনৈতিক কর্মকান্ডে যুক্ত ছিলেন। তার পিতার নাম মোহাম্মদ হোসেন, মায়ের নাম শাফিয়া খাতুন। দুজনেই পরলোকগমন করেছেন। দিনাজপুর শহরের লালবাগ নিবাসী শফিউর রহমান বর্তমানে অবসর জীবন যাপন করছেন। এখন তার নাম-গন্ধ কোথাও শোনা যায় না। কিন্তু ষাটের দশকে তিনি ছিলেন সংগ্রামী, সুপরিচিত, আলোচিত ছাত্রনেতা।

শফিউর রহমান যখন দিনাজপুর জিলা স্কুলের ছাত্র ছিলেন সেই সময় বায়ান্নোর ভাষা আন্দোলন সংঘটিত হয়। বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্র ভাষা করার দাবীতে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি তথা বাংলা ৮ ফালগুন তারিখে ঢাকায় ছাত্ররা বিক্ষোভ মিছিল বের করলে পুলিশ মিছিলে গুলি চালায়। পাকিস্তানি পুলিশের হাতে রফিক, সালাম, বরকত, জব্বারসহ অনেকে সেই সময় ঢাকার রাজপথে শহিদ হয়।

সেই গণহত্যার বিরুদ্ধে সারাদেশের ছাত্র-জনতা বিক্ষোভে ফেটে পড়েছিল। গণহত্যার প্রতিবাদে দিনাজপুরেও ছাত্রদের বিরাট মিছিল বের হয়েছিল। মিছিলে অংশ নেন শফিউর রহমানসহ দিনাজপুর জেলা স্কুলের আরো অনেক ছাত্র। শফিউর রহমান জানান যে, তিনি যখন জেলা স্কুলে পড়তেন, সেই সময় একুশে ফেব্রুয়ারির গণহত্যা সংঘটিত হয় এবং এর প্রতিবাদে ছাত্রদের যে মিছিল হয়েছিল সেই মিছিলে তিনি নিজে এবং জেলা স্কুলের অনেক ছাত্র অংশ গ্রহণ করেছিল।

‘আমরা স্কুল গেটে দাঁড়িয়ে থাকতাম। এর সামনে দিয়ে প্রতিবাদ মিছিল যাওয়ার সময় মিছিলের অগ্রভাগে থাকা নেতারা আমাদেরকে ডেকে নেন। তখন আমরা মিছিলে অংশ নিয়ে রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই বলে শ্লোগান দেই। আমরা আরো শ্লোগান দেই যে শহিদদের রক্ত বৃথা যেতে দিব না। একুশের রক্ত বৃথা যেতে দিব না।’ জানান শফিউর রহমান

প্রকিবাদ মিছিলে অংশ নেয়ার স্মৃতি হাতড়িয়ে শফিউর রহমান আরো  বলেন,  যখন এই মিছিলে অংশ নিয়েছি তখনো শহিদ মিনার হয় নাই, একুশের শোভাযাত্রা কিংবা শহিদ মিনারে ফুল দেয়া শুরু হয় নাই। তখন ভালমত রাজনীতিও বুঝতাম না। কিন্তু এটা বুঝতাম যে, আমাদের মুখের ভাষা কেড়ে নেয়ার ষড়যন্ত্র হচ্ছে। সে কারনেই রফিক, সালাম, বরকত, জব্বারকে হত্যা করা হয়েছে। তাই তখন ভালমত না বুঝে প্রতিবাদ মিছিলে শরিক হলেও পরবর্তীতে সচেতন ভাবেই আমাদের মাতৃভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় রাজপথের সকল আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছি।

শফিউর রহমান দিনাজপুর জেলা স্কুলে ৬ষ্ঠ শ্রেণী হতে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করেন। ৯ম শ্রেণীতে গিয়ে ভর্তি হন দিনাজপুর হাই মাদ্রাসা স্কুলে। ১৯৬৫ সালে এই স্কুল হতে মেট্রিক পাস করার পর দিনাজপুর সরকারি কলেজে ইন্টারমিডিয়েট ভর্তি হন। সুরেন্দ্রনাথ কলেজ সরকারি কলেজে রুপান্তরিত হওয়ার পর প্রথম যে ব্যাচ চালু হয়েছিল শফিউর রহমান সেই ব্যাচের ছাত্র ছিলেন। কলেজে ভর্তি হয়েই ছাত্রলীগের নেতা হিসেবে সক্রিয় রাজনীতি শুরু করেন। ১৯৬৯ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন এবং এই কলেজেই ডিগ্রী ভর্তি হন। কলেজে ভর্তি হয়ে বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত ছয় দফা আন্দোলন ও ছাত্র সমাজের ১১ দফা আন্দোলনে নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে কাজ করেন। এ সময় মোজাফফর হোসেন খান ওরফে মজু খান, আব্দুত তোয়াব, মাহতাব সরকার, সিরাজুল আলম খান প্রমুখ ব্যক্তিকে তিনি তার নেতা হিসেবে পান। তিনি আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় গ্রেফতারকৃত বঙ্গবন্ধুর মুক্তির দাবীতেও রাজপথ উত্তাল করে তোলেন। ১৯৬৯ সালে বোস্তান সিনেমা হলে দিনাজপুর জেলা ছাত্রলীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এই কাউন্সিলে ছাত্রলীগের জেলা ও মহকুমা কমিটি পুনর্গঠণ করা হলে শফিউর রহমান দিনাজপুর মহকুমা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদকের পদ লাভ করেন। মহকুমা কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন চিরিরবন্দরের মাহতাব সরকার।

১৯৭০ সালে তৎকালিন পাকিস্তানে কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক পরিষদ তথা সংসদীয় নির্বাচনের পর দিনাজপুর সরকারি কলেজে ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ঐ নির্বাচনে শফিউর রহমানকে ভিপি এবং মোজাম্মেল হোসেন বুকুসকে জিএস প্রার্থী করে আওয়ামী লীগের সহযোগি সংগঠন ছাত্রলীগ প্যানেল দাখিল করে। নির্বাচনে ছাত্র ইউনিয়নের প্যানেলসহ আরো কয়েকটি প্যানেল প্রতিদ্বন্ধীতা করে। বলা বাহুল্য ষাট দশকের উত্তাল আন্দোলনের সেই পটভূমিতে ছাত্রলীগের পুরো প্যানেল জয়লাভ করে এবং শফিউর রহমান বিপুল ভোটে ভিপি নির্বাচিত হন।

তখনকার রাজনীতিতে ছাত্র সংসদের ভিপি হিসেবে তার গুরুত্ব অনেক বেড়ে গিয়েছিল। সংসদের ভিপি হিসেবে তিনি দিনাজপুর সরকারি কলেজে শহিদ মিনার নির্মাণে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। দিনাজপুরের প্রথম শহিদ মিনার সরকারি কলেজেই নির্মিত হয়েছিল তার নেতৃত্বাধীন ছাত্র সংসদের উদ্যোগে।

মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পর শফিউর রহমান ভারতের রায়গঞ্জে চলে যান। কি করবেন বুঝতে না পেরে সেখানে কয়েকদিন উদ্দেশ্য বিহীন ভাবে ঘুরে বেড়ান। এর কয়েক দিনের মধ্যে সেখানে দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আজিজুল ইসলাম জগলু, অন্যতম নেতা ডা. মো. নইমউদ্দিন এর সাথে দেখা হলে তারা ছাত্রলীগের ছেলেদের জন্য রিক্রুটিং ক্যাম্প খুলতে পরামর্শ দেন। মূলত তাদের অনুপ্রেরণা ও পরামর্শে ভারতীয় দিনাজপুরের ডালিমগাঁওয়ে মুক্তিযোদ্ধা সংগ্রহের লক্ষ্যে ছাত্রলীগের ছেলেদের জন্য একটি রিক্রুটিং ক্যাম্প স্থাপন করেন শফিউর রহমান। তার নেতৃত্বে এই ক্যাম্পে আব্দুল কাইয়ুম, মমতাজ আলী (চাউলিয়াপট্টি), আবুল হাসেম তালুকদার (ভাটিনা), আব্দুল মান্নান তালুকদার (লালবাগ), লুৎফর রহমান (মঙ্গলপুর), মজিবর রহমান (সেতাবগঞ্জ)সহ আরো অনেকে ব্যাপকভাবে তৎপর হয়ে উঠেন এবং মুক্তিবাহিনী গঠনে ক্যাম্পটি কার্যকর অবদান রাখতে সমর্থ হয়। এই ক্যাম্পে রিক্রুট হওয়া ছাত্রলীগাররা পরে মুজিব বাহিনীর সদস্য হিসেবে দেরাদুনের পানিঘাটায় উচ্চতর ট্রেনিং গ্রহণ করেন এবং বাংলাদেশের অভ্যন্তরে কখনো গেরিলা পদ্ধতিতে, কখনো সম্মুখ যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করেন।

ক্যাম্পটির প্রতিষ্ঠাতা ইনচার্জ শফিউর রহমান নিজেও দেরাদুনে ট্রেনিং গ্রহণ করেন। তিনি দেরাদুনে যাওয়ার সময় হামিদুর রহমানকে ইনচার্জের দায়িত্ব দিয়ে যান। এরপর ট্রেনিং গ্রহণ শেষে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর, বিরল ও সদরের বিভিন্ন স্থানে অপারেশন পরিচালনা করেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে ডিগ্রী পাস করেন। পরবর্তীতে দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা পেশায় চাকুরি নেয়ার মধ্য দিয়ে কর্মজীবন শুরু করেন। শফিউর রহমান ছাত্র জীবনে যেভাবে সক্রিয় রাজনীতি করেছেন এবং ছাত্রলীগ নেতা হিসেবে সফল নেতৃত্ব দিয়েছেন তা ষাটের দশকের রাজনৈতিক ইতিহাসের এক গৌরবজ্জল অধ্যায়। তবে কর্মজীবনে এসে তিনি রাজনীতির মাঠ থেকে নিস্ক্রিয় হয়ে যান। কর্ম জীবনে দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন স্বনামখ্যাত শিক্ষক হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছিলেন। এখন অবসরে আছেন। শিক্ষকতা পেশায় অবসর লাভের পর এখন বাড়ির পাশে দোকান খুলে ব্যবসা করছেন। উত্তাল সময়ের এই ছাত্রনেতা ১ পুত্র ও ৩ কন্যা সন্তানের জনক।

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল

সাংবাদিক, কলামিস্ট, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক

পাটুয়াপাড়া, সদর, দিনাজপুর

০১৭১৬৩৩৪৬৯০/০১৯০২০২৯০৯৭