বুধবার ১৯ জুন ২০১৯ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

একমন ধানের দামে এককেজি গরুর মাংস

একমন ধানের দামে এককেজি গরুর মাংস- ইজ্জতের প্রশ্নে এই দুই পণ্যের কার কোথায় অবস্হান সেটা জানা জরুরী। হতে পারে গরুর মাংস ভোক্তার কাছে তার মর্যাদার উন্নয়ন ঘটিয়েছে অথবা সেই একই ভোক্তার কাছে ধানের মানের অবনমন ঘটেছে। গরুর মাংস দেশের সংখ্যা গরিষ্ঠ মানুষের আমিষের চাহিদা মেটাতে কার্যকর ভুমিকা রাখে। নব্বই দশক পর্যন্ত গ্রামাঞ্চলে কেজি প্রতি এ মাংসের দর ছিলো একশ টাকার আশেপাশে। তখন একমন ধান বেচলে সে টাকায় মোটামুটি তিন কেজি গরুর মাংস পাওয়া যেত। কিন্তু তারপরও বলা যায় প্রান্তিক কৃষকেরা কিন্তু ধান বিক্রির টাকায় মাংস খুব কম কিনতো। হঠাৎ আত্মীয় স্বজনের উপস্হিতি কিংবা একটা দিনের ভালো খাবারের প্রয়োজনে তাদের নির্ভরতা ছিলো বাড়ির পোষা হাস মুরগির উপরেই। তাই ধানের দামের সাথে মাংসের দামের তুলনাটা সে সময় সংগত কারনেই এতোটা প্রাসঙ্গিক ছিলোনা।

এখন অবস্হাটা অনেকটাই বদলে গেছে। বাৎসরিক হিসেবে আবাদি জমির পরিমান আশংকাজনকভাবে কমে আসছে। বাড়ির আঙ্গিনাগুলো ছোট হতে হতে এমন অবস্হায় এসে পৌঁছেচে যে গ্রামগুলোতেও এখন আর বড় উঠোনওয়ালা বাড়ি খুঁজে পাওয়া যায় না। হয়তো যৌক্তিক এসব কারনেই এখন আর একটা মা-মুরগির পেছনে দশটা বাচ্চা মুরগির ঘুরে বেড়ানোর দৃশ্য গ্রামের বাড়িগুলোতে সহজে চোখে পড়েনা। কেনা মাংসের উপরে তাই প্রান্তিক মানুষদেরও নির্ভরতা বেড়ে গেছে। ধান বিক্রির টাকার উপর ভাগ বসিয়েছে মাংস।

যেহেতু এদেশের কৃষকের উপার্জনের মুল ভিত্তি কৃষিজাত পণ্যের উৎপাদন এবং বিপণনের উপর নির্ভরশীল তাই উৎপাদিত কৃষি পণ্যের দাম কৃষকের জীবনমানের নির্ধারক। ভ্যারাইটি ভেদে গড়ে বিঘা প্রতি সর্বোচ্চ ত্রিশ মন ধান ফলাতে কৃষকের যত টাকা খরচ হয় তার হিসেব সংবাদ পত্রের পাঠকেরা ইতিমধ্যে জানেন। তারা এও জানেন বিক্রিলব্ধ অর্থ দিয়ে হয়তো উৎপাদন খরচটা কোনরকমে উঠে আসে। কিন্তু তারা অনেকেই জানেন না এরপর কৃষকের জীবন বাঁচে কিভাবে!

এবার ধানের দাম না পাওয়াতে কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক হতাশা তৈরী হয়েছে। উৎপাদিত ধান রাস্তায় ফেলে দেয়া কিংবা ক্ষেতের ধানে আগুন ধরিয়ে দেয়া দেখে সহজে আন্দাজ করা যায় তাদের এই হতাশা ইতিমধ্যে ক্ষোভে পরিনত হয়েছে। তাদের এই ক্ষোভ প্রশমনে সরকারি কোন উদ্যোগও দৃশ্যমান নয়। সংশ্লিষ্ট সরকারি দফতর থেকে দায়িত্বহীণ কথাবার্তা বলা হচ্ছে। মন্ত্রী কৃষকের এই দূর্ভোগের জন্য আশাতিত ভালো ফলন হওয়াকে দায়ী করেছেন। সেলুকাস কি দূর্ভাগা এদেশের কৃষক!

কৃষকের ছেলে মেয়েরাও কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন। ফসলের দাম না পাওয়ায় পিতার কষ্টের ভার তাদেরও বইতে হয়। সে রকমই একজন অসহায় সন্তান বাবার হয়ে শ্লোগান তুলেছেন-
“আর করবো না ধানের চাষ
দেখবো তোরা কি খাস।”

আচ্ছা যদি সত্যিই এমন হয়! কৃষকেরা ধান চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলে! কেমন হবে তাহলে! আসুন তো কল্পনা করি-

রাজ্যে সেইবার ধানের আবাদ হইলো না। রাজ্য জুড়িয়া ভয়াবহ পরিস্হিতির সৃষ্টি হইলো। উদ্ভুত পরিস্হিতির বিবেচনায় রাজা সভাসদ লইয়া দরবারে বসিলেন। মন্ত্রী আসিলেন, উজির নাজির সবাই হাজির। রাজা প্রত্যেকের মুখের পানে একবার করিয়া চাহিয়া সক্রোধে গর্জিয়া উঠিলেন,
-চাষা চাষ করে নাই কেন!
মন্ত্রী জবাব দিলেন, ‘গেল বছর তাহারা ধানের ন্যায্য মুল্য পায় নাই।’
-কেন পায় নাই?
উত্তর দিতে সংকোচ বোধ হইলেও নিরুপায় মন্ত্রী বলিলেন,
-সেবার ধানের ব্যাপক ফলন হইয়াছিলো তাই।
-রাজকোষের টাকাতো উছলাইয়া পড়িতেছে। উদ্বৃত্ত ধান কেনা হয় নাই কেন!
মন্ত্রী জানেন এই ‘কেন’র উত্তর দেয়া কত কঠিন! তিনি এটাও জানেন গ্রামে গ্রামে সরকারি ক্রয় কেন্দ্র খুলিয়া সরাসরি কৃষকদের নিকট হইতে ধান কিনিলে কৃষক ক্ষতিগ্রস্হ হয়না। কিন্তু তাহাতে তো মধ্যস্বত্বভোগীদের স্বার্থ ক্ষুণ্য হয়। সেটা তিনি করেন কি করিয়া! বিরস বদনে জবাব দেন তিনি,
-তাহাতে ব্যবসায়িদের ক্ষতি হয় তাই। ব্যবসায়িদের ক্ষতি করিয়া কৃষক বাঁচাইবার ঝুঁকিতো নেয়া যায়না মহারাজ।
মন্ত্রীর উত্তরে রাজা যুক্তি খুঁজিয়া পাইলেন। তাইতো, মসনদের খুঁটিতো উহারাই মজবুত রাখে!
রাজা আপন মনে ভাবিতে লাগিলেন- এককেজি চাল কিনিতে রাজকোষ হইতে খরচ হয় ছত্রিশ টাকা। পাটিগণিত হইতে ঐকিক নিয়মের সূত্র মনে মনে আওড়াইলেন তিনি। হিসাব করিলেন। সে হিসাবে প্রতিকেজি ধানের দাম হওয়া উচিৎ প্রায় বাইশ টাকা। কৃষকেরতো ক্ষতি হওয়ার কথা নয়! বিস্মিত রাজা জানিতে চাহিলেন,
-গেল বছর কৃষক বাজারে কেজিপ্রতি ধানের দাম কত পাইয়াছিল?
-দশ টাকা হুজুরেআলা।
-বাকী বারটাকার হিসাব কি?
এই প্রশ্নের উত্তর মন্ত্রীর জানা আছে। কিন্তু বলা বারন। তাহার চেয়ে নিরাপদ উত্তরটিই উগরাইলেন তিনি,
– নিশ্চয়ই কোথাও কোন ষড়যন্ত্র হইয়াছিলো জনাব।
রাজা মাথা দুলাইলেন। তিনি ষড়যন্ত্রের হোতাকে খুঁজিয়া পাইলেন। মনে মনে ভাবিলেন-এখনও উচিৎ শিক্ষা হয় নাই তাহার!

সভা শেষ হইবার পূর্বে কৌতুহলি দৃষ্টিতে সভাসদগণ রাজার মুখের পানে চাহিলেন। দূর্ভোগ মোকাবেলায় রাজার পরামর্শ চাহেন তারা। রাজা তাকাইলের হাতের এন্ড্রোয়েড ফোনের পর্দায়। সেখানে ফেসবুকের খোলা পাতায় কি দেখিয়া তিনি উৎফুল্ল হইয়া উঠিলেন। সহর্ষে প্রায় চিৎকার করিয়া উঠিলেন,
-মন্ত্রী বাজারে তো দেখি প্লাস্টিকের চাল বিক্রি হইতেছে। রাজকোষের অর্গল খুলিয়া দাও। আপাতত প্লাস্টিকের চাল দিয়া এ বছরের দুর্যোগ সামলাও।

লেখক-সুভাষ দাশ।

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ,দিনাজপুরল