মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারী ২০২১ ৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

একাত্তরে বর্বরোচিত হত্যার শিকার গনেশতলার ব্যাংক অফিসার সাজিরউদ্দীন

দিনাজপুর শহরের গনেশতলায় যে বাড়িটি এখন খাদেমুল কন্ট্রাক্টরের বাড়ি নামে পরিচিত, সেই বাড়িতে থাকতেন  মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম শহীদ সাজিরউদ্দীন আহমেদ। তাঁকে জীবন্ত অবস্থায় গাড়ীর সাথে বেঁধে গাড়ী চালিয়ে দেয়া হয়েছিল এবং চলন্ত গাড়ীর সাথে টেনে-হিঁচড়ে, থেতলে থেতলে হত্যা করা হয়েছিল ১৯৭১ সালের ১৪ এপ্রিল।

শহীদ সাজিরুদ্দীন আহমেদ এর পিতার নাম আজমত আলী, মা সুরাতন বিবি। ১৯১৮ সালে মালদা জেলার  মানিকচর থানাধীন মিরাগ্রামে জন্ম তাঁর। উচ্চ শিক্ষিত সাজিরুদ্দীন ১৯৩৫ সালে মেট্রিক, ১৯৩৭ সালে আইএ এবং ১৯৩৯ সালে বি.এ পাশ করেছিলেন। ১৯৪২ সালে কলকাতায় সিভিল সাপ্লাই ডিপার্টমেন্টে চিফ ইন্সপেক্টর পদে চাকুরীতে যোগ দেন তিনি। ১৯৪৭ সালের পর স্বপরিবারে তৎকালিন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) আওতাধাীন দিনাজপুর জেলার গনেশতলায় এসে বসাবস করতে থাকেন।  মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি ইউনাইটেড ব্যাংকের ডেভেলপমেন্ট অফিসার পদে কর্মরত ছিলেন। সাজিরউদ্দীনের ৩য় পুত্র বর্তমানে দিনাজপুর শহরের পাহাড়পুর নিবাসী ফারুক আহমেদ (দুখু) মুক্তিযুদ্ধের সময় ১০ম শ্রেণীর ছাত্র ছিলেন। তার কাছ থেকে জানা যায় যে, মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পর ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল হতে দিনাজপুর শহরের পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করতে থাকে এবং গনেশতলাস্থ তাদের পাশের বাড়ির আব্দুল আওয়াল, কালাবাবু, জগদীশ কবিরাজ প্রমুখ নিজ নিজ বাড়ি-ঘর ছেড়ে পালিয়ে যায়। এমতাবস্থায় বাবা বলেন, পরিস্থিতি ভাল না। সবাই শহর ছেড়ে দিচ্ছে। তোমরাও চলে যাও। মা জোবেদা খাতুন প্রশ্ন করলেন, তুমি যাবে না? বাবা বললেন, তোমরা যাও, তারপর পরিস্থিতি বুঝে আমিও চলে যাব।

সাজিরউদ্দীন আহমেদ তাঁর স্ত্রী জোবেদা খাতুনসহ সন্তানদেরকে ইন্ডিয়ায় পাঠিয়ে দিলেন। এ প্রসঙ্গে ফারুক আহমেদ দুখু বলেন, বাবার কথায় ১২ এপ্রিল বাড়ি থেকে বের হয়ে বিরল দিয়ে ইন্ডিয়ার মহীপাল দিঘীর পাশ দিয়ে দক্ষিণ দিনাজপুরের কুশমন্ডী থানাধীন শমসিয়া গ্রামে ঢুকি। সেখানে আমাদের পূর্ব পরিচিত ও নিকট আত্মীয় সাজ্জাদ হোসেনের বড় মেয়ে সৈয়দা মেহের আফরোজ ডলি’র (স্বামী সাইফুজ্জামান সাহেব) বাসায় রাত যাপন করি। এরপর ১৩ এপ্রিল মালদার মিরাগ্রামে যাই এবং আমার বড় আব্বা কেরামত আলীর বাড়িতে গিয়ে উঠি। সেখানে যাওয়ার দুই-তিন দিন পর জানতে পারি যে, বাবাকে ১৪ এপ্রিল সকাল ৯-১০টার দিকে হত্যা করা হয়েছে। কারা কিভাবে হত্যা করেছে তখন জানতে না পারলেও পরে শুনেছি যে, তাকে খুব নৃশংস ভাবে করা হয়েছে। তবে আমরা তার লাশ পাইনি।

দিনাজপুর জেলার প্রথিতযশা সাংবাদিক আ হ ম আব্দুল বারী ১৯৭২ সালের ২৪ জানুয়ারি অধুনালুপ্ত দৈনিক বাংলা পত্রিকায় দিনাজপুর শহরের গণহত্যা নিয়ে একটি রিপোর্ট করেছিলেন। ঐ রিপোর্টে প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী জানা যায় যে, আলবদরের লোকেরা ইউনাইটেড ব্যাংকের স্থানীয় শাখার ডেভলপমেন্ট অফিসার সাজিরউদ্দীনের দুই পা বেঁধে চলন্ত মটরে বেঁধে দেয় এবং ছেঁচড়ে ছেঁচরে টেনে নিয়ে পুরো শরীর ক্ষত-বিক্ষত করার পর হত্যা করে। সম্প্রতি প্রকাশিত মোজাম্মেল বিশ^াসের গবেষণা গ্রন্থ “গণহত্যা-বধ্যভূমি ও গণকবর জরিপ বইতেও এই তথ্য উঠে এসেছে। গবেষক মোজআম্মেল বিশ্বাসের মতে, সাজিরুদ্দীনকে (রিপোর্ট ও বইটিতে সাজিরউদ্দীনের নাম সজিরুদ্দীন লেখা হয়েছে) হত্যা করা হয়েছিল পৈশাচিক কায়দ্য়া। এই জেলার আলবদর বাহিনী কি পরিমাণ নৃশংস ছিল তা এই হত্যাকান্ডের নিষ্ঠুরতা থেকে প্রমাণিত হয়।

ইউনাইটেড ব্যাংকের ডেভেলপমেন্ট অফিসার সাজিরুদ্দীন আহমেদ ছিলেন একজন চৌকস অফিসার। কিন্তু পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ১৪ এপ্রিল দিনাজপুর শহর পুনর্দখল করলে বিহারিরা বাঙালিদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খুঁজতে থাকে এবং তাকে পেয়ে নির্মম ও পৈশাচিকভাবে হত্যা করে।

মৃত্যুকালে সাজিরউদ্দীন স্ত্রী ও পাঁচ সন্তান রেখে গিয়েছিলেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার কয়েক বছর পর স্ত্রী মারা যান। পাঁচ সন্তানের মধ্যে ১ম, ২য়, ৪র্থ ও ৫ম যথাক্রমে সাইফুদ্দিন আহম্মেদ বাচ্চু, সাইফুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম বাবু ও নাজিমুদ্দীন আহমেদ জাপানী বর্তমানে আমেরিকায় প্রবাস জীবন-যাপন করছেন। শুধুমাত্র ৩য় পুত্র ফারুক আহমেদ ওরফে দুখু (৬৫) বাংলাদেশে থেকে গেছেন। তিনি বর্তমানে দিনাজপুর শহরের পাহাড়পুর মহল্লায় অর্থনৈতিক কষ্টের মধ্যে দিনাতিপাত করছেন।

বর্তমানে দিনাজপুর শহরের পাহাড়পুরে বসবাসরত শহীদ সাজিরউদ্দীনের পুত্র ফারুক আহমেদ দুখু হতাশা প্রকাশ করে বলেন, আমার পিতা দেশের জন্য কঠিন ত্যাগ স্বীকার করলেও এখন তাঁকে সবাই ভুলে গেছে। তাঁর আত্মত্যাগের কথা কেউ বলে না, লেখেও না।

 লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল, সাংবাদিক, কলামিষ্ট, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক

মোবাঃ ০১৭১৬-৩৩৪৬৯০/০১৯০২০২৯০৯৭

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email