মঙ্গলবার ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

একাদশ জাতিয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ করে মৌসুমি সাংবাদিকের ছুটাছুটি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ করে দিনাজপুরসহ বিভাগের আট জেলাতে মৌসুমি সাংবাদিকদের ছুটাছুটি শুরু হয়েছে। ঢাকা থেকে প্রকাশিত নাম না শোনা, অচেনা অজানা, অজস্র দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক, মাসিক পত্রিকার ষ্টাফ রিপোর্টার কিংবা জেলা-উপজেলা প্রতিনিধি পরিচয় দিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহনকারি প্রার্থিদের আশে পার্শ্বে প্রায়ই ঘুরঘুর করতে দেখা যাচ্ছে এসব মৌসুমি সংবাদিকদের। তার সাথে রয়েছে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকে হঠাৎ করে চালু হওয়া অনলাইন নিউজ পোর্টাল গুলো।

দেশে জাতীয় নির্বাচনের মৌসুম শুরু হয়ে গেছে, সামনে মাত্র একটি মাস বাকি। এই অল্প সময়ের মধ্যে মৌসুমি সাংবাদিকদের লক্ষ যতটুকু সম্ভব অর্থ বাগিয়ে নেওয়া যায়। বছরের পর বছর দেখা না গেলেও ইদানিং তাদের মুখে এই সমস্ত সংবাদ মাধ্যম গুলোর প্রচার প্রচারনা চলছে তুঙ্গে। প্রার্থিদের কাছ থেকে বক্তব্য প্রকাশের নামে টাকা-পায়সা নিয়ে তা না প্রকাশেরও অজস্র অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে স্থানীয় বিজ্ঞাপনের বাজার নষ্ট করার। যার কারনে প্রকৃত সংবাদিক, পত্রিকা এবং নিয়মিত অনলাইন সংবাদ মাধ্যম গুলো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

এই প্রসঙ্গে দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরূপ বকসী বাচ্চুর বলেন, ঢাকার কিছু অচেনা পত্রিকা বগলদাবা করে সাংবাদিক পরিচয়ে বিভিন্ন স্থানে ঘুরঘুর করছে এক ধরনের ধান্দাবাজ লোক, এদের অনেকে আমাদের পরিচিত। নির্বাচনকে কেন্দ করে শুরু হয়েছে এদের ছুটাছুটি। যার কারনে প্রকৃত সাংবাদিকতা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অনেকের সংবাদিক পরিচয় থাকলেও কাগজের কোন অস্তিত্ব নেই। আবার অনেকের সাংবাদিক পরিচয়ও নেই। হুট করে সম্ভব না হলেও প্রশাসনের সহায়তায় এদের প্রতিরোধ করা হবে।

মৌসুমি সাংবাদিক সম্পর্কে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জনাব আবেদ আলী দিনাজপুর নিউজকে বলেন, আমাদের প্রেসক্লাবের পঞ্চাশ জন সদস্যের বাহিরে কিছু সংখ্যক সংবাদিক হঠাৎ করে উপজেলায় আনাগনা শুরু হয়েছে। যারা বিভিন্ন প্রার্থিদের সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি দিয়ে অর্থ সংগ্রহ করছে, কিন্তু সংবাদ প্রকাশ করছে না। আবার কোথাও কোথাও সভা সমাবেশ না হলেও সেরকম সংবাদ দুর দুরান্তের পত্রিকা ও অনলাইন গনমাধ্যমে আসছে, এমন অভিযোগও আছে। এধরনের কিছু সংখ্যক লোকের কারনে সংবাদিকতা কুলশিত হচ্ছে। আমরা প্রকৃত সাংবাদিকেরা একত্রিত হলে এদের এলাকা থেকে বিতাড়িত করা সম্ভব।

বহুল প্রচারিত রংপুর বিভাগীয় অনলাইন নিউজ পোর্টালের প্রকাশক জনাব মুরাদ মহমুদ দিনাজপুর নিউজকে বলেন, আজ কাল যে কেউ একটা অনলাইন নিউজ পর্টাল চালু করতে পারে। গতবারের তুলনায় এবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ করে নতুন বহু নিউজপোর্টাল চালু হয়েছে রংপুর অঞ্চলে। এটা তাদের একটা মৌসুমি ব্যবসা আর এধরনের জাতীয় ইস্যুকে কেন্দ্র করে মৌসুমি সাংবাদিকদের আবির্ভাব। নির্বাচন সমাপ্ত হলে এদের অনেকের অস্তিত্ব খুজে পাওয়া যাবে না। এদের কারনে নিয়মিত অনলাইন সংবাদ মাধ্যম গুলো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। যদি তথ্য মন্ত্রনালয় থেকে প্রকৃত নিউজ পর্টাল গুলোর একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়, তাহলে শুধু এই সমস্যা সমাধান করা সম্ভব।

দিনাজপুর জেলার বহুল প্রচারিত অনলাইন নিউজ পোর্টালের সম্পাদক ও প্রকাশক, কবি ও কলামিস্ট জনাব শরিফুল ইসলাম আজাদ জয় জানান, অনলাইন নিউজ কি তা এখনও এই এলাকার মানুষ ঠিক মত বুঝে উঠতে পারেনি। যার কারনে মৌসুমি সাংবাদিকতার দৌরাত্ম্য। কোন লেখা প্রকাশ করা যাবে, কোনটা যাবে না, মৌসুমি অনলাইন নিউজ পোর্টাল গুলো সেসব নিয়মনিতির ধার ধারছে না। যার কারনে মৌসুমি সাংবাদিকদের গা বেঁচে যাচ্ছে, কোথাও না কোথাও কোন না কোন পোর্টালে তো তাদের খবর আসছে। সংবাদ মাধ্যমটি সত্যিকার অর্থে কতটুকু জনপ্রিয় সেটা দেখার ব্যবস্থা, আমাদের এই অঞ্চলে ততটা জনপ্রিয় না। একমাত্র প্রশাসন পারে ভুয়া পোর্টাল গুলো বন্ধ করতে। এ ব্যপারে প্রশাসন উদ্দ্যোগ নিলে আমরা সহযোগিতা করবে।