রবিবার ১৬ জুন ২০১৯ ২রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

এবার বর্জন নয়, নির্বাচন

বাংলাদেশে নির্বাচন বর্জন ও নির্বাচনে অর্জন এক উল্লেখযোগ্য ঘটনা। দূর অতীতের কথা না বললেও গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঘটনা-দূর্ঘটনা ও দূরবস্থার কথা সবার স্মরণে রয়েছে। গত ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৫ সনে প্রায় ৩ বছর ধরে আওয়ামী লীগ ও তাদের সঙ্গীরা বাদে বিএনপি-জামাত ও তাদের সঙ্গীরা ৫ জানুয়ারি ২০১৪ এ অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচন শুধু বর্জন করেছে বললে অসম্পন্ন বলা হবে। দেশে উক্ত নির্বাচন যাতে না হয় তার জন্য তারা কী অপচেষ্টায় না করেছেন! জাতীয় সংসদ ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনে জনগণ ভোট দিয়ে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করবেন এটাই স্বাভাবিক। নির্বাচন সুষ্ঠু, সবার অংশগ্রহণ ও স্বতস্ফুর্ত হওয়ার কথা। দলগত বা ব্যক্তি বিশেষে কেউ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা বা ভোট প্রদান করা বা না করার অধিকার সকল জনগণের রয়েছে। কিন্তু ২০১৪ সনের নির্বাচন শুধু বয়কট নয়, বরং নির্বাচনকে দেশে-বিদেশে কালিমাময় ও সর্বসাধারণকে ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য এমন কোন অস্ত্র নাই যা বিএনপি-জামাত জোট প্রয়োগ করেননি। দিনের পর দিন এমনকি মাসের পর মাস তারা ক্ষমতাসীন সরকারকে ধর্মঘট, হরতাল শুধু নয়, জনমানুষের মৌলিক অধিকার সমূহে হস্তক্ষেপ করেছেন। রাস্তা বন্ধ, আতঙ্ক সৃষ্টি, গাড়ী ভাঙ্গা, নিশ্চিত মৃত্যু জেনেও গাড়ী সমূহে অগ্নিসংযোগ করাসহ রাস্তা সমূহ ও রাস্তার পাশ্ববর্তী গাছাপালাসমূহ কেটে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছেন। শুধু তাই নয়, নির্বাচন পূর্ব ও নির্বাচনকালীন সময় ব্যালট পেপার সমূহ ছিনতাই, পুড়ে ফেলা, কেন্দ্র সমূহে মরনাস্ত্র দিয়ে আক্রমণ করা, আতঙ্ক সৃষ্টি শুধু নয়, নির্বাচনী কর্মকর্তাকে গুলি করে হত্যাও করেছন। ফলে বিতর্কিত এক নির্বাচন স্বল্প সংখ্যক ভোটারের ভোট দেয়ার মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়। অধিকাংশ সংসদ সদস্য বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়ে পড়েন।

অপরদিকে হেফাজত-এ-ইসলামি নামক বিশাল ধর্মান্ধগোষ্ঠীর বিরোধীতায় আওয়ামী লীগ ও বামভাবাপন্ন রাজনৈতিক দল আতংকগ্রস্থ হয়ে পড়ে। তাদের অভিযান চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা পর্যন্ত বিস্তৃত হয়। অনেক ধ্বংসলীলা ও আতঙ্কের মধ্যে সময় কাটাতে হয়। যাই হোক এবার সেই পরিস্থিতি নাই। মূলত হেফাজত-এ-ইসলামের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়ে কওমী মাদরাসার শিক্ষায় ‘‘দাওরায় হাদিসের’’ স্বীকৃতি অর্থাৎ মাস্টার্স পর্যায়ের সমতুল্য ডিগ্রী প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ ও ভুল বুঝাবুঝির অবসান ঘটাতে পেরেছেন শেখ হাসিনার সরকার। শুধু তাই নয় তারা এ বিষয়ে শুকরানা আদায়, প্রকান্তরে রাজনৈতিক না হোক মানসিক প্রশান্তি প্রকাশ করেছেন। এক বাক্যে বলা যায়, ২০১৮ ডিসেম্বরের নির্বাচনে বড় রকমের বাধা সৃষ্টির উপযোগী ব্যবস্থাসমূহ একরূপ সুপ্ত বা অনুপস্থিত। উপরন্ত বিএনপি’র ঘনিষ্ঠ সহযোগী জামাতে ইসলামী নামে দলের নিবন্ধন বাতিল হয়েছে। যদিও তারা অভ্যন্তরীনভাবে এখনও সংগঠিত।

এবার নির্বাচন পূর্ব সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ঘটনা হলো দুইটি বৃহৎ ও পরস্পরবিরোধী রাজনৈতিক গোষ্ঠীর মধ্যে সংলাপ অনুষ্ঠিত হওয়া, বিশেষ করে বিএনপি’র পক্ষ থেকে কয়েকবছর ধরে সরকারের সঙ্গে রাজনৈতিক কর্মকান্ড নিয়ে সংলাপ -সংযোগের কথা বলা হচ্ছিল। অপরদিকে জামাত ও বিএনপিকে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে হত্যা ও খুনের অভিযোগে সংলাপ প্রত্যাখান করা হয়েছিল। বিএনপি গত নির্বাচন বিমুখতা তাদের বিশাল কর্মীবাহিনীকে জনগণ থেকে একরূপ বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছিল। যদিও বিএনপি স্থানীয় সরকার নির্বাচন সমূহে অংশগ্রহণ করে বেশ সফলতাও পেয়েছে।

বিএনপি ও তাদের সহযোগীরা মনে করে তারা এক ধাক্কায় ক্ষমতার অধিকারী হবে। ক্ষমতার বাহিরে তাদের থাকা মানায় না। উপরন্ত আওয়ামী লীগ মূলত দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত। তাই যে করেই হোক তারা আবার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার সাধ গ্রহণ করবে। দেশ ও জাতির জন্য কে কার চেয়ে ভালো, যোগ্য এবং দেশ পরিচালনা ও উন্নয়ন করবে তার চেয়ে কে বিরোধী পক্ষকে নিশ্চি‎হ্ন ও নিগ্রহ করবে সেই প্রতিযোগিতা দেখা যায়। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের মূল আদর্শ ছিল বঞ্চিত জনগণের প্রত্যাশা পূরণ। যা রাষ্ট্রের মূল নীতিতে উল্লেখ রয়েছে তা বাস্তবায়িত হবে। যাই হোক বর্তমান পরিস্থিতির আলোকে বলা যায়, বিতর্কিত নেতৃত্বের হাত থেকে খানিকটা দূরে অবস্থান করে ড. কামাল হোসেন ঐক্যফ্রন্ট গড়ে তুলেছেন। যদিও তিনি জোটের হয়ে প্রধানমন্ত্রীকে পত্র লিখেছেন এবং প্রধানমন্ত্রী তড়িৎ উত্তর প্রদান করে সংলাপের ব্যবস্থা করেছেন।

সংলাপে ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে ৭ দফা দাবী না মানার কথা বলা হচ্ছে এবং আইনগত কিছু বাধ্যবাধকতা ব্যতিত অধিকাংশ দাবী মানা হয়েছে বলে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। তবে আমরা যা দেখছি, দেশে নির্বাচনী একটা পরিবেশ ফিরে এসেছে। দুই পক্ষই মনোনয়ন ও ভোটের প্রতিযোগিতার দিকে মনোযোগ দিয়েছেন। যতদূর লক্ষ করা যায়, পুরাতন বা গায়েবী মামলা মোকদ্দমা নিয়ে বিরোধী দলের নেতা কর্মীদের হয়রানী করা হচ্ছে। নির্বাচনকালীন সময়ে রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা ও দায়িত্ব অনেক বৃদ্ধি পাওয়ার কথা এবং সাংবিধানিক ভাবে তা আরও জোরদার করার ব্যবস্থা করা উচিত বলে প্রতীয়মান হয়। নির্বাচন কমিশনকে নির্বাচনকালীন সার্বভৌম ক্ষমতা প্রদান করা হয়েছে বটে। তবে চলমান সরকারের প্রশাসন-পুলিশ ও অন্যান্য বিভাগের প্রতি প্রয়োজনে চড়াও হওয়া বেশ কঠিন বলে প্রতীয়মান হয়। যদি সংসদ বহাল না থাকত বা সরকার অল্প কয়েক ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে গঠিত হতো বা রাষ্ট্রপতিকে সার্বিক দায়িত্ব প্রদান করা হতো তাহলে সমতল মাঠ নিয়ে নির্বাচন ব্যবস্থায় হয়তো কথা উঠতো না।

ঐতিহাসিকভাবে পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকে নির্বাচন ব্যবস্থাকে বিতর্কিত করা হয়েছে। সামরিক শাসনের যাতাকল থেকে বেরিয়ে আসতেও জাতিকে অনেক মূল্য দিতে হয়েছে। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট জয়ী হয়েও তৎকালীন প্রাদেশিক সরকার ক্ষমতা ধরে রাখতে পারেননি। তবে পশ্চিমা বিমুখতা বাঙ্গালিদের পেয়ে বসে। ১৯৬৯ এর গণঅভুত্থান এবং ১৯৭০ এর নির্বাচন বাঙ্গালীদের স্বতন্ত্র রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার তাগিদ দেয়। ১৯৭৫ এ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বাংলাদেশে সামরিক শাসন পূনরায় ভর করে। ১৯৯০ এ সামরিক শাসনকে সম্মিলিতভাবে ‘না’ বলা সম্ভব হয়। তবুও মাঝেমধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর দলাদলি, নেত্রীবৃন্দের অযোগ্যতা, হিংসা, রাষ্ট্রীয় সম্পত্তির দখলদারিত্ব, অবৈধভাবে অর্থলিপ্সা গণতান্ত্রিক ও সুশাসনের জন্য প্রতিষ্ঠানসমূহে হস্তক্ষেপ ইত্যাদি সুচিন্তিত ও সাধারণ জনগণকে পীড়া দেয়।

বাংলাদেশের কোন সরকার সুশাসন ও সুবিচার প্রতিষ্ঠার জন্য আত্মনিয়োগ করেছেন বলে প্রতীয়মান হয় না। বিএনপির শাসনের সময়ে দেশে জঙ্গীবাদের উত্থান ঘটে, তাদের মদদ দেওয়া হয় জাতির জনকের হত্যাচারীদের পদোন্নতি ও বিশেষ সুবিধা ও ইনডেমনিটি আইন তৈরি করা হয়। যদিও বিএনপি অমূলক দাবী করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের জন্য তাদের অবদান অনস্বীকার্য। তবে একথা স্বীকার করতে হবে যে বিএনপি একটি বিপুল সমর্থিত রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ। এদিকে আওয়ামী লীগের গত ১০ বছরের শাসনে অনেক দৃশ্যমান অগ্রগতি ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে। আবার সুশাসনের ও গণতন্ত্রের বিরুদ্ধাচারনে কিছু দোষে দোষী বলা যায়। বিচার বিভাগকে সম্পূর্ণভাবে বিশেষ করে নিম্ন আদালতকে উচ্চ আদালতের আয়ত্ত্ব থেকে আলাদা রাখা হয়েছে। প্রাক্তন প্রধান বিচারপতির (এস. কে সিনহা) বিরুদ্ধে অযাচিত অভিযোগ আনয়ন করা হয়। এমনকি দেশের অনেক গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে তুচ্ছ জ্ঞান করে গালমন্দ করা হয়। নোবেল বিজয়ী ড. ইউনুসের বিরুদ্ধাচারণ এ বিষয়ে উল্লেখযোগ্য উদাহরণ।

শুধু ক্ষমতার মসনদ বা রাজনৈতিক দখলদারিত্বের জন্য দেশ ও জাতি নয়। এই উপলব্ধি থেকে সম্মিলিত ভাবে দেশ পরিচালনার হওয়ার কথা। শুধু নির্বাচন গণতন্ত্র নয়। সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য প্রান্তিক জনগণকে ক্ষমতায়ন করতে হবে, শিক্ষার হার বৃদ্ধি ও সুশিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। সুষ্ঠু জাতি গঠনের জন্য জাতীয় সংসদ ও স্থানীয় সরকারের নির্বাচনসমূহ যথেষ্ঠ অর্থবহ। সুস্থ্য, স্বাভাবিক, নির্ভেজাল নির্বাচন একটি জাতির উন্নয়নের পূর্বশর্ত। কারচুপি বা রাজনৈতিক বিরোধীদের দমন পীড়নের মাধ্যমে তথাকতিথত নির্বাচনে মিছামিছি জনপ্রতিনিধি হওয়ার মাধ্যমে কোন তৃপ্তি বা শান্তি-স্বস্থি নেই।

পাশাপাশি সরকার বিরোধী বা রাজনৈতিকভাবে নিপীড়িত দল বা গোষ্ঠীকে বুঝতে হবে। রাতারাতি বা অতি শীঘ্রই পট বদলানো যাবে না। বদলাতে হবে গণমানুষের মানসিকতা এবং সেজন্য তাদের নৈকট্য লাভ করতে হবে, বিশ্বস্ত হতে হবে। তৃতীয় শক্তির উপর ভর করে নয় বা দেশকে দুর্বিপাকে ফেলে বাধ্য করে নয়। যেন জনপ্রতিনিধির যোগ্যতা অর্জন করে জয়ী হওয়া যায়, সরকার গঠন করা যায়। এজন্য জাতীয় সংসদে যোগ্যতর সরকারী ও বিরোধী দলের প্রতিনিধি সংখ্যায় যত কম বা বেশি হোক অতি প্রয়োজনীয়। ৭ মার্চ’৭১ বঙ্গবন্ধুর ভাষণের একটি বাক্য মনে রাখার মতো। ১৯৭০ সনের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠ হলে যখন ঢাকায় প্রথম জাতীয় সংসদ অধিবেশন বসার কথা, বঙ্গবন্ধু পশ্চিমাঞ্চলের প্রতিনিধিদের অভয় দিয়ে বলেছেন। আপনাদের সংখ্যালঘু সদস্যদের শুধু নয়, একজনও যদি ন্যায্য কথা বা দাবী তোলেন আমরা তা মেনে নিব।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়, বর্তমান প্রশাসন ও পুলিশকে রাজনৈতিক দল বা সরকারের আজ্ঞাবহ করা হয়েছে। পুলিশ বাহিনীকে হয়ত ভূতে পেয়েছে। ছোটবেলায় একটি বাক্য গ্রামে গঞ্জে খুব প্রচলিত হতে শুনেছি, যে কোন অকারণ বা উটকো ঘটনা ঘটলে মুরব্বীরা ছোটদের বলতেন, ভূতের হাতে খন্তি (শাবল) তুলে দিলে এমন ই হয়। বর্তমান সরকার মনে হয়, পুলিশের হাতে খুন্তি তুলে দিয়েছেন। তাই তারা যা ইচ্ছা করছেন। এই খুন্তি কেড়ে নেওয়ার ব্যবস্থা না করলে ভূতুড়ে কাণ্ড বন্ধ হবে বলে মনে হয় না। পুলিশি রাষ্ট্র নয়, গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে এবং সুশাসনের জন্য এর বিকল্প নাই। গণতন্ত্র ও সুশাসন ধীরে ধীরে হলেও প্রতিষ্ঠা লাভে অগ্রগতি হোক, এটাই দেশবাসীর আশা।
যাই হোক ২০০৮ এর নির্বাচন এর অনুকরণ এবার নয়। দুই পক্ষ এবার নির্বাচনমুখী দেশ ও জাতির কল্যাণে গণতন্ত্র ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় একটি মাইলফলক রূপে চি‎িহ্নত হোক ২০১৮ এর নির্বাচন এই প্রত্যশা ও অপেক্ষায় রয়েছে দেশবাসী।

 

লেখক-ডাঃ মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্
আজীবন সদস্য
প্রবীণ হিতৈষী সংঘ, দিনাজপুর।
সভাপতি, শহীদ আসাদুল্লাহ স্মৃতি সংসদ
এবং মুক্তিযুদ্ধ ও শহীদ স্মৃতি সংগ্রহ কমিটি।
মোবাঃ ০১৭৭৩২৩৮২৫২