শুক্রবার ২০ জুলাই ২০১৮ ৫ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এসআই আল-আমীনের সাহসিকতায় বীরগঞ্জে ২ হত্যাকারী আটক

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ এসআই আল-আমীনের সাহসিকতায় বীরগঞ্জে আটক হয়েছে মোঃ আনারুল (১৮) এবং মোঃ রবিউল ইসলাম (২৫) নামে দুই জন। আটকরা নীলফামারীর সৈয়দপুরে মোঃ সুমন (১৯) নামে এক জনকে হত্যা করে নদীতে ফেলে দিয়ে তার ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছিল বলে পুলিশ জানিয়েছেন।

নিহত মোঃ সুমন নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলার বেদতলাগাড়ী ইউনিয়নের উত্তর সোনাখুলী গ্রামের মোঃ বকুলের ছেলে।

আটক মোঃ আনারুল কাশিরাম ইউনিয়নের পশ্চিম বেলপুকুর গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে এবং মোঃ রবিউল ইসলাম একই এলাকার বেদতলাগাড়ী ইউনিয়নের উত্তর সোনাখুলী মাল্লীপাড়া গ্রামের মৃত জয়বার আলীর ছেলে (২৫)।

বীরগঞ্জ থানার এসআই মোঃ আল-আমীন জানান, উপজেলার সাতোর ইউনিয়নের দিনাজপুর-পঞ্চগড় মহাসড়কের দলুয়া নামক স্থানে দায়িত্ব পালনকালে শনিবার রাত ১টায় একটি ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সাকে থামার নির্দেশ প্রদান করি। কিন্তু সে নির্দেশ অমান্য করে পালিয়ে যাবার চেষ্টা চালালে তাকে ধাওয়া দিয়ে চালক এবং একজন যাত্রীকে আটক করা হয়। তাদের কথাবার্তা সন্দেহ জনক মনে হলে থানায় নিয়ে আসি। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদে আটো চালকের নাম মোঃ আনারুল ও যাত্রীর নাম মোঃ রবিউল ইসলাম এবং তাদের বাড়ী নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরে বলে জানান। গভীর রাতে অটো নিয়ে তাদের গন্তব্য নিয়ে দুজন এলোমেলো তথ্য প্রদান করে। বিষয়টি নিয়ে সন্দেহ হলে অটো রিক্সাটি তল্লাশী চালানোর সময় দেখা যায় অটোরিক্সার গায়ে সুমন এন্টারপ্রাইজ লেখাটির উপরে ষ্টিকার লাগানো রয়েছে। এতে আমাদের সন্দেহ আরো গভীর হয়। পরে তাদের আবার জিজ্ঞাসাবাদে রবিবার বিকেল সাড়ে ৫টায় জানান, অটোরিক্সার মালিক একই এলাকার মোঃ সুমন। সে আনারুলের বন্ধু। শনিবার বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে মোঃ অটোরিক্সাসহ সুমনকে ডেকে আনে বন্ধু আনায়ার। তাকে পুর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ঘুমের ঔষধ মেশানো এনার্জির টাইগার খাওয়ানো হয় সুমনকে। পরে রাত সাড়ে ১০টায় সৈয়দপুরের চওড়া নদীর বীজ্রের কাছে ধাক্কা দিয়ে নদীতে ফেলে দিয়ে হত্যা করে। পরে অটোরিক্সা নিয়ে ঠাকুগাঁয়ের পথে রওয়ানা দেয়।

বীরগঞ্জ থানার ওসি মোছাঃ শাকিলা পারভীন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদে আটক মোঃ আনারুল এবং মোঃ রবিউল ইসলাম অটোরিক্সার মালিক সুমনকে হত্যা করে অটো রিক্সা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করে। পরে বিষয়টি তাৎক্ষণিক ভাবে সৈয়দপুর থানাকে অবহিত করা হয়। আমাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী তারা ঘটনা অনুসন্ধান করে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। যেহেতু ঘটনার স্থান সৈয়দপুরে সে কারণে রাতে আটকদের সৈয়দপুর থানার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।