বৃহস্পতিবার ২৪ জানুয়ারী ২০১৯ ১১ই মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কচাকাটায় টমেটোর বাম্পার ফলন

কুড়িগ্রামের প্রস্তাবিত কচাকাটা উপজেলায় শীতকালীন সবজি টমেটোর বাম্পার ফলন হয়েছে। বাম্পার ফলনের সম্ভাবনাময় ক্ষেতগুলোর প্রতিটি টমেটোর শাখা-প্রশাখা এখন সবুজ, সতেজ লতা-পাতা আর হলদে ফুল ও কুড়িতে ভরপুর। তা দেখে কৃষকের চোখে মুখে প্রশান্তির ছাপ।

সরেজমিনে নাগেশ্বরীর বদিজ্জামানপুর, মালভাঙ্গা, খাসমহল, চর রহমানের কুটি, কাপালীপাড়া, বেগুনীপাড়া, বটতলা সহ পাইকেরটারীর ছোট বড় বেশ কয়েকটি টমেটো ক্ষেত ঘুড়ে দেখা গেছে এমন চিত্র। বড় ধরনের কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না এলে এবার টমেটোর বাম্পার ফলন হবে এমন আশাবাদী এসব গ্রামের টমেটো চাষীদের।

তবে টমেটো চাষে সরকারি ভাবে পৃষ্ঠপোষকতা, তাৎক্ষণিক রোগ বালাই সনাক্তকরণ ও প্রতিকারে সরকারি নজরদারী না থাকায় অথিক লাভ থাকার পরেও টমেটো চাষে আগ্রহী হচ্ছেনা বলে অভিমত ব্যক্ত করেন বেশ কিছু কৃষক। এরমধ্যেও নিজ নিজ অভিজ্ঞতায় বুকে অসীম সাহস নিয়ে নিজেদের স্বাবলম্বী করতে বাড়তি আয়ের আশায় টমেটো চাষে এগিয়ে এসেছেন অনেকেই।

বেগুনী পাড়ার আবু সামা বলেন- অন্য সব ফসল থেকে টমেটো চাষে তুলনামূলক কম খরচে অধিক লাভ হওয়ায় এবার ৩২ শতক মাটিতে টমেটো চাষ করেছি, আশা করি ফলন ভালই হবে।

কাপালীপাড়ার টমেটো চাষী নূরুল ইসলাম জানান, আমার আদি পেশা কৃষি, অন্য সব ফসল থেকে টমেটোতে অনেক লাভ, তাই এবারো দেড় বিঘা (৪৮ শতক) জমিতে টমেটো আবাদ করেছি, ৪৮ শতক জমিতে টমেটো চাষ করতে এ পর্যন্ত ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে, আল্লাহ সহায় থাকলে আর বড় কোন বিপদ-আপদ না হলে এই ৪৮ শতক জমি থেকে ২ থেকে আড়াই লাখ টাকার টমেটো বিক্রি করবেন বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।

একই ভাবে কথা হয় অনেকের সাথে। তবে সবার কথায় টমেটো চাষে বিপদকালীন সময়ে প্রয়োজনীয় পরামর্শ, সাহায্য, সহযোগীতা দিয়ে কৃষকদের টমেটো চাষে আরো বেশি আগ্রহী করে তোলার জন্য সংশ্লিষ্ট কৃষি বিভাগকে এ গিয়ে আসার বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে ওঠে।

এ বিষয়টি নিয়ে কথা হলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শামছুজ্জামান বলেন, টমেটো চাষে সরকারি ভাবে কোন বরাদ্দ না থাকায় আমরা কৃষকদের টমেটো চাষে কোন উপকরণ দিতে পারিনা। তবে টমেটো চাষ সম্প্রসারণে ও কৃষকদের আগ্রহী করতে আমরা কৃষি বিভাগ থেকে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি।