সোমবার ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ ৩রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

“কমরেড জাহেদুল হক মিলু শোষণমুক্তির আন্দোলনের অনুপ্রেরণা”

রংপুর প্রতিনিধি : কমরেড জাহেদুল হক মিলু জনগণের মুক্তিসংগ্রামে যেভাবে নিজেকে উৎসর্গ করেছেন, দলীয় সত্তায় নিজেকে বিলীন রেখে জনগণের মাঝে দলকে নিয়ে গেছেন; তা বিপ্লবী রাজনীতির জন্য দৃষ্টান্ত। কমরেড মিলুর অকাল প্রয়াণে আমাদের দলের যেমন একটা বড় ক্ষতি হয়ে গেছে, তেমনি এদেশের বাম-গণতান্ত্রিক বিপ্লবী সংগ্রাম ও শ্রমিকশ্রেণির মুক্তি আন্দোলনেরও শুন্যতা সৃষ্টি হয়েছে। তিনি ছিলেন বিপ্লবী রাজনীতির জন্য এক নিবেদিত প্রাণ নেতা। শারীরিকভাবে বিদায় নিলেও তিনি আমাদের মাঝে তথা আমাদের স্বপ্ন ও সংগ্রামে বেঁচে আছেন এবং থাকবেন।
১২ জুলাই বৃহস্পতিবার বিকেল ৩.৩০টায় রংপুর টাউন হলে জেলা বাসদ আয়োজিত কমরেড জাহেদুল হক মিলুর শোকসভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান এসব কথা বলেন। শোকসভার পূর্বে একটি শোক র‌্যালি প্রেসক্লাব হতে শুরু হয়ে নগরীর প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে গিয়ে শেষ হয়। জেলা বাসদের সমন্বয়ক কমরেড আব্দুল কুদ্দসের সভাপতিত্বে শোকসভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, রংপুরের সর্বজন শ্রদ্ধেয় প্রবীণ জননেতা মোহাম্মদ আফজাল, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা কমরেড শাহাদত হোসেন, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্রমিকনেতা কমরেড রাজেকুজ্জামান রতন, ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সম্পাদক অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম হক্কানী, সিপিবি’র কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর জেলা সাধারণ সম্পাদক কমরেড শাহীন রহমান, জাসদের জেলা সভাপতি সাখাওয়াত রাঙ্গা, বাসদ (মার্কসবাদী)’র জেলা সমন্বয়ক কমরেড আনোয়ার হোসেন বাবলু, বাংলাদেশ জাসদের মহানগর সভাপতি গৌতম রায়, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সদস্য শওকত হোসেন বায়রন, গণতন্ত্রী পার্টির নেতা নৃপেন্দ্র নাথ রায়, বাসদের জেলা সদস্য আতিয়ার রহমান, উদীচীর জেলা সাধারণ সম্পাদক কাফি সরকার, বেরোবি’র শিক্ষক প্রফেসর সরিফা সালোয়া ডিনা, বিশিষ্ট চিকিৎসক অধ্যাপক সৈয়দ মামুনুর রহমান, অধ্যাপক আব্দুস সোবহান, কমরেড মিলুর সহোদর বদরুল আলম বুলু, বাল্যবন্ধু রেজাউল করিম, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের জেলা সভাপতি প্রদীপ বর্মণ প্রমুখ। শোকসভা পরিচালনা করেন জেলা বাসদ সদস্যসচিব কমরেড মমিনুল ইসলাম।
মোহাম্মদ আফজাল বলেন, কমরেড জাহেদুল হক মিলু বৃহত্তর রংপুরসহ উত্তরবঙ্গের কৃষক-শ্রমিকের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তাঁর অকাল মৃত্যুতে এদেশের বিপ্লবী আন্দোলনের বড় ক্ষতি হলো।
কমরেড শাহাদত হোসেন বলেন, কমরেড জাহেদুল হক মিলু এমন সময়ে চলে গেলেন, যখন বিপ্লবী রাজনীতিতে নিজেকে নিবেদিত করার মানুষের বড়ই অভাব। তাই কমরেড মিলুর লালিত স্বপ্নকে এগিয়ে নিতে হলে বামপন্থীদের ঐক্যবদ্ধভাবে লড়তে হবে।
অন্যান্য বক্তারা বলেন, কমরেড জাহেদুল হক মিলু শোষণ-বৈষম্যমুক্ত মানবিক সমাজ নির্মাণের অপূরিত যে সংগ্রাম রেখে গেলেন, সেই সংগ্রামকে তীব্রতর করার মধ্য দিয়েই তাঁর প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা জানানো হবে।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এবং চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আজীবন বিপ্লবী কমরেড জাহেদুল হক মিলু গত ১৩মে কুড়িগ্রামে এক সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে আহত হন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে প্রথমে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে এবং ঐ দিনই রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওঈটতে ভর্তি করা হয়। পরের দিন ১৪মে চিকিৎসকদের পরামর্শে তাঁর উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওঈটতে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি ঘটলে ১৫মে তাঁকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়। পরবর্তীতে আরো উন্নত চিকিৎসার জন্য ১৭মে বঙ্গবন্ধু শেখমুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দীর্ঘ প্রায় এক মাস মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে কমরেড জাহেদুল হক মিলু গত ১৩জুন ২০১৮ মৃত্যুবরণ করেন।