সোমবার ৬ জুলাই ২০২০ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনায় ঈদ ও মুক্তিযুদ্ধে ঈদ

এমন ঈদ, এমন রমজান, এমন শবেকদর, কিংবা এমন শবেবরাত এর আগে কি কখনো পেয়েছি? কখনো কি এভাবে মসজিদগুলো ফাঁকা থাকতে দেখেছি! ঈদগাহ মাঠে নামাজ পড়া যাবে না, নামাজ হবে শুধু মসজিদে, তাও স্বাভাবিক নয়, কিছুটা অস্বাভাবিক পদ্ধতিতে! মুসল্লীদের লাইনের সাড়ি হবে স্বাভাবিকের চেয়ে দ্বিগুণ ফাঁকা, একজন আরেকজনের সাথে তিন মিটার দূরত্বে দাঁড়াবেন, যাকে বলা হচ্ছে সামাজিক ডিসট্যান্স, অজু মসজিদে করা যাবে না, নামাজ পড়ার জন্য জায়নামাজ অবশ্যই সঙ্গে নিয়ে  আসতে হবে ইত্যাদি, স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ পড়তে হবে ইত্যাদি এমন নির্দেশনা এর আগে কখনো কি পেয়েছি? এক কথায় উত্তর, না। এর আগে এমনটি গত পাঁচ দশকে যাদের জন্ম হয়েছে তারা কখনো দেখেনি, কখনো শোনেনি, অতীতে কখনো হয়েছিল বলেও জানা যায়নি।

এবারে রোজাটাও গেছে কেমন যেন। আমাদের চিরাচরিত রমজান হলো ঘরে ঘরে রোজা রাখা, রোজা রেখে দিন শেষে নানা রকমের ইফতার সামগ্রী খাওয়া, যার মধ্যে থাকে শরবত, ঘুগুনি, বেগুনি, বড়া, পিঁয়াজু, শশা, জিলাপী, বুন্দিয়া আরো কত কি? সে এক বিশাল খাদ্যযজ্ঞ। এক বাড়ি থেকে আরেক বাড়িতে ইফতার উপহার দেয়া, ইফতার পার্টির আয়োজন করা,  এই সামাজিক রীতিতো সেই ছোট্টকাল থেকে সবাই দেখে এসেছি। ইফতারি খাওয়া ও বিতরণের মধ্যে ইবাদত আছে বলে মনে করা হয় মুসলমানদের মধ্যে।

রমজান মানেই ইবাদত। মুসলিম সমাজ ঘরে, বাইরে, মসজিদে, মক্তবে সর্বত্র ইবাদতের মধ্য দিয়ে রমজান মাস অতিক্রমের চেষ্টা করে আসছেন ইসলামি অভিযাত্রার শুরু থেকে। মহিলারা বাড়িতে পবিত্র কোরাণ তেলাওয়াত করেন, পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায়ের মাধ্যমে পুন্য লাভের চেষ্টা করেন। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে জামাত করে তারাবী নামাজ ও ঈদের নামাজ পড়তে দেখা গেছে মেয়েদের। আর পুরুষেরা বাড়িতে, বাইরে যেখানে থাকেন নামাজ আদায় করেন। অন্য সময় তেমনভাবে  না হলেও রমজান মাসে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায়ে মনযোগ দিয়ে থাকেন। শবেকদর ও শবেবরাতের নামাজ পড়লে অতীতের সব গুনাহ মাফ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে বলে মসজিদগুলোয় মুসল্লীদের ভিড় থাকে রাতভর। রাত জেগে নামাজ-বন্দেগীর চেষ্টা থাকে পারলৌকিক পুণ্যি ও মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের।

কিন্তু মুসলিম সমাজসহ বিশ^বাসীর দূর্ভাগ্য যে, করোনা সুমারিতে এবার সবকিছু ভেসে গেছে। হিন্দুরাও মন্দিরে প্রার্থনা করতে পারছেন না, বৌদ্ধদের পুর্ণিমা নিরানন্দে গেছে, আর মুসলমানদের নিত্যদিনের এবং বিভিন্ন উপলক্ষ্যের ধর্মীয় কর্মসুচিও থমকে গেছে। যেখান থেকে ইসলাম ধর্মের উৎপত্তি ও বিকাশ, করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সেই সৌদী আরবেও ঈদের ছুটিতে কার্ফু ছিল বিধায় লোকজনকে নামাজ আদায় করতে হয়েছে নিজ নিজ বাড়িতে। করোনা ভাইরাস মোকাবেলা করতে গিয়ে সৌদী সরকার মুসলিম দুনিয়ার হৃদপিন্ড পবিত্র কাবা শরীফ বন্ধ করে দিয়েছেন, মহানবী (সাঃ) নিজে যে মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেছেন সেই পবিত্র মসজিদে নব্বীও প্রায় বন্ধ। 

আর বাংলাদেশের অবস্থা কি তা দেখতে পাচ্ছি সবাই। রমজান, শবে কদর ও শবেবরাতের রাতে মসজিদগুলোয় মুসল্লীদের উপচে পড়া ভিড়ে ঠাসা থাকার কথা থাকলেও করোনার কারণে এবার তা ছিল না। এবার দোকান-পাট, মার্কেট, শপিং মল প্রায় বন্ধই থেকেছে, সে কারনে অধিকাংশ মুসলিমের পক্ষে এবার নতুন কাপড় কেনা হয় নাই। শুধু কি তাই? কাপড় কিনতে টাকা লাগে। প্রায় তিন মাস ধরে আয়-রোজগার বন্ধ, আবার কারো কারো আয় থাকলেও দোকানপাট বন্ধ থাকায় নতুন কাপড় কেনা সম্ভব হয় নাই। এমন প্রেক্ষাপটে এবার ঈদ পালিত হয়েছে এক রকমের অচিন্তনীয় ভিন্ন মাত্রায়।

আমি আমার কথা বলতে পারি। এবার আমাদের বাড়ির কারোর জন্যই কোন কাপড় কেনা হয় নাই। মেয়ে, এমনকি জামাইকেও কিছু দেয়া হয় নাই। ঈদের দিন পাটুয়াপাড়া এক নম্বর জামে মসজিদে নামাজ পড়েই বাড়ি এসেছি। কারো সাথে কথা বলার চেষ্টা করি নাই।  সরকারের নির্দেশনা ছিল সবাই যেন মাক্স পড়ে মসজিদে যায়। অনেককেই দেখেছি তারা মাক্স ছাড়া মসজিদে গেছেন। আবার অনেকে মাক্স পড়ে গেলেও মসজিদে গিয়ে সেটি নাক ও ঠোঁটের নীচে ঠুটনিতে ঝুলিয়ে রেখেছেন। ঠুটনিতে মাক্স ঝুলিয়ে, নাক-মুখ খোলা রেখে তারা লোকজনের সাথে, বিশেষ করে বন্ধুদের সাথে নির্ভাবনায় গল্প করেছেন। ফলে মাক্সের কার্যকারিতা আর থাকেনি। এইসব দেখে আমার মনে হয়েছে চাচা, আপন জান বাঁচা। প্রধানমন্ত্রীও বলেছেন, নিজের সুরক্ষা নিজের কাছে। অতএব কোন রকমে নামাজ পড়েই ছেলে সাকিবকে নিয়ে বাড়ির দিকে দৌড়।

ঈদের দিন এ বাড়ি ও বাড়ি খাওয়া-দাওয়ার ব্যাপার থাকে। এবার সব বাদ। সবাই নিজের রান্না নিজেরা খেয়েছে। কেউ কাউকে ডেকে বলেনি, ভাইয়া, আসেন একটু সেমাই খেয়ে যান। আমার স্ত্রী প্রতি বছর একে-ওকে ডেকে খাওয়ায়। এবার কাউকে ডাকতে দেখলাম না। অথচ বিগত বছরগুলোর মত এবারের ঈদেও রান্না হয়েছে সব বাড়িতে, সেমাই, পোলাও, মাংস, সাদা ভাত এবং আরো অনেক কিছুর আয়োজন দেখা গেছে। এবার পাটুয়াপাড়ার ভেতরে প্রায় ৪টি গরু কেটে মাংস ভাগা হিসেবে নেয়া হয়েছে। আমি নিজেও এক জায়গায় ১৩০০ টাকায় একটি ভাগা দিয়েছিলাম।

ঈদের দিন খাওয়ার সময়টুকু বাদ দিয়ে বাকি সময় কিছুটা ঘুমিয়ে, কিছুটা টিভি দেখে আর কিছুটা ফেসবুকে চ্যাট করে সময় পার করেছি। পরদিন শ^শুরবাড়ি গিয়েছি স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে। বাহন ছিল নিজস্ব মটর সাইকেল। করোনার মধ্যে এই একটি জায়গা অর্থাৎ শ^শুরবাড়ির দাওয়াত পেয়ে মুরগী, গরু আর পোলাও মোটামুটি ভাল ভাবেই খেয়ে এসেছি। এভাবেই পার করেছি ২৫ মে ঈদ-উল-ফিতর ২০২০।

এবারের ইধ ব্যতিক্রম হওয়ার কারণে আমার মনে পড়ে গিয়েছিল ১৯৭১ সালের ঈদ উল ফিতরের কথা। সেটা গোটা বিশে^র জন্য না হলেও বাংলাদেশের বাঙালিদের জন্য একটা ব্যতিক্রম ঈদ ছিল। ঈদ মানে উৎসব, ঈদ মানে আনন্দ। পবিত্র রমজানের কঠোর সিয়াম সাধনার পর ঈদ উৎসব আনন্দের ফোয়ারা বয়ে আনে মুসলমানদের ঘরে ঘরে। কিন্তু ১৯৭১ সালে যখন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এদেশে গণহত্যা চালিয়ে যাচ্ছিল, ঘর-বাড়ি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিচ্ছিল, গরু-ছাগল, মুরগীসহ মালামাল লুট করে নিচ্ছিল আর জীবন বাঁচানোর তাগিদে সাধারণ মানুষ  পলাতক জীবন যাপন করছিল, আজ এখানে তো কাল অন্যখানে পালিয়ে নিজেকে, নিজেদের পরিবারকে রক্ষার চেষ্টা করছিল, তখন বাঙালির জীবনে কেমন হয়েছিল সেই ঈদ সেটা একটু ভাবলেই কারো বুঝে ওঠ কঠিণ না।

বর্ষপঞ্জীর স্বাভাবিক নিয়মে সে বছরেও বাঙালি মুসলমানের জীবনে পবিত্র রমজান এসেছিল। বিশ^জুড়ে মাসটি পালিত হচ্ছিল ইবাদত বন্দেগীর মাধ্যমে। কিন্তু বাঙালি মুসলমানরা সেই পবিত্র মাস পার করেছে ভয়, উৎকন্ঠা আর বিভিষিকার মধ্য দিয়ে। গুলির শব্দে, বোমার বিস্ফোরণে, হত্যা-গণহত্যার ভিতর দিয়ে। দীর্ঘ এক মাস রোজা শেষে ১৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় ঈদের চাঁদ উঠেছিল যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাংলাদেশের পশ্চিমাকাশে। পরদিন ২০ নভেম্বর শনিবার পবিত্র ইদুল ফিতর অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এমন বিবর্ণ, নিরানন্দ, বেদনা বিধুর ঈদ বাঙালি জীবনে আর কখনো আসেনি। এমন কি ২০২০ সালের ঈদ ঐ ঈদের চেয়ে অনেক আনন্দের ছিল।

পাকিস্তানি হানাদারদের হত্যাযজ্ঞ, নীপিড়ন-নির্যাতনের সেই বিধ্বস্ত সময় আমরা বিরল উপজেলার বাজনাহার রেল কোয়ার্টারে থাকতাম। দিনাজপুর শহর থেকে পালিয়ে পাঁচ-ছয় মাস ধরে অবস্থান করে আসছিলাম সেই কোয়ার্টারে। আমার বাবা মৃত ডা. আব্দুল আজিজ, মাতা মৃত লুৎফন নেছা, বড় বোন নূর ছিদ্দিকা রেহানা, ছোট বোন লায়লা আজিজ রোজী এবং আমি, আমরা সবাই থাকতাম সেই কক্ষে। আমার আরেক ভাই মৃত আবুল কালাম আজাদ ওরফে বাবলু তখন সেখানে ছিলেন না। তিনি সম্ভবত মে-জুন মাসে ভারতে পালিয়ে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন এবং ঈদের সময় ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর, রানীশংকৈল, পীরগঞ্জ এলাকায় গেরিলা অপারেশনে তৎপর ছিলেন।

বাজনাহার রেল কোয়ার্টারের যে কক্ষে থাকতাম তার দুই পাশের কক্ষগুলোতে আরো থাকতেন রাজাকার আব্দুর রহমান, মৃত খলিলের পরিবার, বর্তমান রেল কর্মচারী জামালের পরিবার, বর্তমান চারুবাবু মোড়ের মাহমুদ মেডিক্যাল ষ্টোর্সের সত্বাধিকারি মহসীনের পরিবার প্রমুখ। রেল ষ্টেশন মাষ্টার কফিলউদ্দিন আহমেদ থাকতেন আরেকটি কোয়ার্টারে। এই কোয়ার্টারটি কয়েকদিন আগেও পাকিস্তানি সেনাদের ক্যাম্পের অংশ ছিল। হারুন হাবিলদারের নেতৃত্বে ক্যাম্পের মূল অংশ ছিল বাজনাহার রেল ষ্টেশনের ওপর। আর ষ্টেশন মাস্টারের কোয়ার্টারটিতে খান সেনাদের রান্নার কাজ হতো। সেনা ক্যাম্প হওয়ায় ষ্টেশন মাষ্টার কফিলউদ্দিন আহম্মেদ ঐ সময় রেলের সাধারণ কর্মচারীদের কোয়ার্টারে অর্থাৎ আমাদের কক্ষের পাশের একটি কক্ষে থাকতেন। সেনা ক্যাম্পটি উঠে যাওয়ার পর তিনি আবার ষ্টেশন মাষ্টারের কোয়ার্টারটিতে উঠে আসেন। পাকিস্তানি সেনাদের ক্যাম্পের আগে আমার বাবা বাজনাহার রেল ষ্টেশনের পাশে জনৈক পল্টুর চা দোকানে বসে কিছুদিন ডাক্তারি করেছিলেন। কিন্তু ক্যাম্প বসার পর লোকজন, বিশেষ করে মহিলারা ভয়ে আসা বাদ দিলে আব্বা শহরের গনেশতলায় এসে নিজ দোকানে ডাক্তারি শুরু করেন। তিনি প্রতিদিন বাজনাহার হতে দেওয়ান দিঘী, রাজাপাড়া ঘাট, রামনগর দিয়ে যাতায়াত করতেন। আমি নিজেও আব্বার সাথে দিন কয়েক যাতায়াত করেছিলাম। 

ঈদুল ফিতরের কয়েকদিন আগেও বাজনাহার রেল ষ্টেশনের ওপরে পাকিস্তানি সেনাদের ক্যাম্প ছিল। ষ্টেশন ভবন ও ষ্টেশন মাষ্টারের কোয়ার্টার ভবন নিয়ে এই ক্যাম্প গড়ে উঠেছিল সম্ভবত আগষ্ট মাসে। হারুন হাবিলদারের নেতৃত্বে পরিচালিত পাকিস্তানি সেনাদের এই ক্যাম্পটি যতদিন ছিল ততদিন ক্যাম্প এলাকার আশে-পাশে বসবাসরত বাঙালিদের তেমন  সমস্যা হয় নাই। রমজানের মাঝের দিকে এসে ক্যাম্পটি সেখান থেকে উঠে বিরলের রাধিকাপুর ফ্রন্টে সরিয়ে নেয়া হয়। শোনা যায়, ঐ এলাকায় যুদ্ধরত অবস্থায় মুক্তিবাহিনীর গুলিতে হারুন হাবিলদার নিহত হয়েছিলেন।

তখন রমজানের ব্যাপারটা সেভাবে উপলব্ধি করতে পারিনি। মা রোজা রাখতেন কিন্তু বর্তমানে যেমন ব্যাপক ইফতারের আয়োজন দেখা যায়, যুদ্ধের বছরে সেটা দেখা যায় নাই। তখন যারা রোজা রেখেছেন, নীরবেই রেখেছেন, সন্ধ্যায় শুধুমাত্র মুখে পানি দিয়ে রোজা ভেঙ্গেছেন। আমার মা লুৎফননেচা রোজা ভেঙ্গেছেন শুধু পানি মুখে দিয়ে। পরে ভাত খেয়েছেন। বড়া, পিঁয়াজু ছিল না বলে রমজান মাসের কোন আবহ তখন বোঝা যায়নি। রমজান বা বিশেষ মাস যে চলছে, তখনকার যুদ্ধ ব্ক্ষিুব্ধ পরিস্থিতিতে সেট উপলব্ধিই করা যায়নি। তবে শাওয়াল মাসের চাঁদ যেদিন উঠবে সেদিন ফাঁকা মাঠে অনেককেই চাঁদ দেখার চেষ্টা করতে দেখেছি। কেউ সেই চাঁদ দেখতে পেয়েছিলেন কি না তা বলতে পারব না, তবে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজের আয়োজন ছিল এবং সেই নামাজে বাবার সাথে আমি নিজেও অংশ নিয়েছিলাম সেটা পরিস্কার মনে আছে।

মুক্তিযুদ্ধের বছর ২০ নভেম্বর (তারিখটা অনেক পরে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে গবেষণা করতে গিয়ে জেনেছি) ছিল পবিত্র ঈদুর ফিতর। বাজনাহার রেল ষ্টেশনের সাথে বর্তমানে যে ঈদগাহ মাঠ আছে সেই মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছিল ঈদের নামাজ। সেই নামাজে ছোট-বড় মিলিয়ে শ দুয়েক লোক অংশ নিয়েছিলেন। সেবারেও আমাদের গায়ে নতুন কাপড় ছিল না। আর বিশেষ খাবারের আয়োজনও ছিল না। লোকজন ভয়ে তখন অস্থির। ফলে ঈদের আনন্দ তেমন কারো মধ্যে দেখা যায়নি যদিও নামাজ পড়ার চেষ্টা করেছেন সবাই।

আমার জীবনের দুটো ব্যতিক্রম ঈদ পার করলাম ভিন্ন প্রেক্ষাপটে, বেদনা, ভয় ও শংকার মধ্য দিয়ে। বর্তমানে যাদের বয়স পঞ্চান্ন ছাড়িয়েছে, তারা সেই অভিজ্ঞতার কথা বলতে পারবেন। সামনের দিনে আবারো এমন কোন ঈদ আসবে কি না, জানি না। তবে যে দূর্যোগ অতিক্রম করছি, তা দ্রুতই কাটুক, সেই প্রার্থনাই করি।

  লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল

সাংবাদিক, কলামিষ্ট, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email