মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্বসহ জনসাধারণের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় গুরুত্ব নাই

এমএ বাসেত: পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় হাটবাজার গুলোতে করনো ভাইরাস (কোভিট-১৯) সংক্রামক প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্বসহ জনসাধারণের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় গুরুত্ব নাই।

শনিবার তেঁতুলিয়া উপজেলার সবচেয়ে বড় হাট বাজার শালবাহানে এমন জনসাধারণের এমন দৃশ্যপট দেখা গেছে। মাক্স ছাড়া অবাদে চলাফেরা করায় কোভিট-১৯ এর সংক্রামক ঝুঁকিতে পড়ার আশংকা স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোঃ আবুল কাশেম জানান, তেঁতুলিয়া উপজেলা থেকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহ প্রায় ২শত ৮৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে কোভিট-১৯ ভাইরাস পরীক্ষার জন্য রংপুর ও দিনাজপুর মেডিকেলের ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। তদ্মধ্যে এপর্যন্ত ১১ জনের পজেটিভ পাওয়া গেছে। আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে ৭জন পুরোপুরি সুস্থ এবং ৩জন নমুনা দিয়ে ঢাকায় পালিয়ে গেছে। বর্তমানে হাসপাতালের আইসোলেশন করোনা ইউনিট ওয়ার্ডে ১জন ভর্তি আছে।

তিনি আশংকা করে বলেন, গণপরিবহণ, রিক্সা-ভ্যান, দোকান পাট সহ হাট বাজার ও রাস্তায় চলাচলের ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব এমনকি শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি মুখে মাক্স ব্যবহার না করলে করোনা সংক্রামক ঝুঁকি প্রত্যন্ত অঞ্চলে দিনদিন বাড়তে থাকবে।

তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, কোভিট-১৯ ভাইরাসের সংক্রামক থেকে বাঁচার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জনসাধারণের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও মাক্স নিয়ে একান্ত প্রয়োজনে ঘরের বাহিরে বের হওয়ার বিষয়ে প্রচার প্রচারণা ও লিফলেট বিতরণ সহ মাইকিং করা হয়েছে। এছাড়া জাতীয় মিডিয়ায ও ইলেক্টনিক মিডিয়ায় দেশব্যাপী নিয়মিত প্রচারিত হচ্ছে। যারা রোগ সংক্রামক আইন মানছে না তাদের ক্ষেত্রে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেও জরিমানা করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে জনসাধারণ নিজেরাই নিজ নিজ জায়গা থেকে সচেতন হওয়া জরুরী। তবে হাট-বাজারে রোগ সংক্রামক ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতের বিষয়টি আরও তদারকি করা হবে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email