শনিবার ৩০ মে ২০২০ ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কাঠ-বাঁশের তৈরী শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন

একরাম তালুকদার ॥ “দিনাজপুরে স্থায়ী শহীদ মিনার নেই বেশির ভাগ বিদ্যালয়ে।স্থায়ী শহীদ মিনার নেই তাতে কি হয়েছে? তাই বলে আমাদের মাতৃভাষার জন্য যারা জীবন দিয়েছেন, তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো থেকে তো আর বিরত থাকা যায়না। তাইতো বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সহযোগিতায় নিজেই শহীদ মিনার তৈরী করছি, এই শহীদ মিনারেই একুশে ফেব্রুয়ারী ভাষা শহীদদের প্রতি আমরা শ্রদ্ধা জানাবো”।

মহান একুশে ফেব্রুয়ারী পালনে নিজ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে কাঠ আর বাঁশ দিয়ে শহীদ মিনার তৈরী করার সময় গতকাল বৃহস্পতিবার এই প্রতিবেদককে এমনই কথা জানাচ্ছিল আজিমপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর ছাত্র দেলোয়ার হোসেন। তার সাথে শহীদ মিনার তৈরীর কাজ করছিলো ওই বিদ্যালয়ের ছাত্র আব্দুল্লাহ, পায়েল রায়, অপুর্ব রায়সহ আরও বেশ কয়েকজন ছাত্র। শহীদ দিবসের প্রস্তুতি হিসেবে শহীদ মিনার তৈরীতে সবাই ব্যস্ত তারা।

দিনাজপুরের বিরল উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকায় ১৯৯৩ সালে স্থাপিত হয় আজিমপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়। বিদ্যালয়ের ভবন থাকলেও নেই কোন শহীদ মিনার। তাইতো প্রতিবছরই এভাবেই অস্থায়ী শহীদ মিনার বানিয়ে মহান ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ করেন তারা।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুভাষ চন্দ্র রায় জানান, স্থায়ী শহীদ মিনার না থাকায় প্রতিবছর এই বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা মিলিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরী করে এভাবেই মহান একুশে ফেব্রুয়ারী পালন করা হয়। তিনি বলেন, গতবছরের (২০১৯ সাল) ২৬ জানুয়ারী বিদ্যালয়ের চারতলা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল আলম প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন এই বিদ্যালয়ে একটি শহীদ মিনার তৈরী করে দেয়ার। কিন্তু এখনও হয়নি। হয়তো হবে। স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মিত হলে আমরা আরও ভালোভাবে মহান একুশ পালন করতে পারবো বলে জানান তিনি।

শুধু আজিমপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ই নয়, দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলায় মাধ্যমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত মোট ১ হাজার ১৭৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৯৭৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই নেই কোন শহীদ মিনার। দিনাজপুর জেলা শিক্ষা অফিস সুত্রে জানাগেছে, জেলার ১ হাজার ১৭৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শুধুমাত্র ২০৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার রয়েছে। এর মধ্যে দু-একটি ছাড়া জেলার ৩১৯টি মাদ্রাসায় নেই কোন শহীদ মিনার।

দিনাজপুর জেলার সবচেয়ে বড় মাদ্রাসা নুরজাহান আলিয়া মাদ্রাসায় কামিল পর্যন্ত ৮’শ শিক্ষার্থী থাকলেও নেই কোন শহীদ মিনার। ওই মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম জানান, শহীদ মিনার না থাকায় তারা মহান একুশে ফেব্রুয়ারী পালন করে থাকেন দোয়া আর মিলাদ মাহফিলের মাধ্যমে।  দিনাজপুর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, মুজিব বর্ষ উপলক্ষে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার, বঙ্গবন্ধু কর্ণার ও সততা স্টোর স্থাপনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই, সেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মানের প্রক্রিয়া চলছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email