মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে বীরগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ঢেমঢেমিয়া কালিমেলা

মোঃ তোফাজ্জল হোসেন, বীরগঞ্জ, দিনাজপুর সংবাদদাতাঃ মেলা আজও আছে, তবে প্রাণ নেই। কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে বীরগঞ্জের ১৪৬ বছরের ঐতিহ্যবাহী ঢেমঢেমিয়া কালিমেলা। উত্তরবঙ্গে সনাতন ধর্মের লাখ লাখ মানুষের বার্ষিক বিনোদনের একমাত্র ঐতিহ্যবাহী মৌসুমী বিনোদনসহ গণমানুষের মিলনমেলা হিসেবে দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার ঢেমঢেমিয়া কালির মেলা সর্বাধিক প্রশংসিত, প্রসিদ্ধ ও গুরুত্বপূর্ণ স্থান এতে সন্দেহের কোন অবকাশ নেই।

উপজেলার পলাশবাড়ী ইউনিয়নের বৈরবাড়ী, চাপাপাড়া ও হিরামণি মৌজায় এ মেলার অবস্থান। বাংলা ১২৮০ সাল থেকে ঢেমঢেমিয়া কালিমেলা পল্লী বিনোদনের ঠিকানা। প্রতি বছর কার্তিক মাসের আমাবশ্যায় সনাতন ধর্মালম্বীদের শ্যামা পূজায় এ মেলার আয়োজন করা হয়।
কালিমন্দিরটি তার নিজস্ব ১ একর জমিতে একটি উচ্চ অট্টালিকা। পাশেই মাত্র কয়েক গজ পশ্চিমে দরবেশ মিরাজুন মিয়ার মাজার শরীফ রয়েছে।

বছর দু’য়েক আগে মেলার সময়ে এলাকার মানুষ বিশাল এই আয়োজনকে প্রাণভরে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল গোত্রের মানুষেরা এখানে এসে এ মেলা উপভোগ করত।

পশ্চিমে ঠাকুরগাঁও, উত্তরে পঞ্চগড়, পূর্বে নীলফামারী ও দক্ষিণে দিনাজপুর। ভাল যোগাযোগ ব্যবস্থা ও কয়েকটি জেলার মধ্যস্থল হওয়ায় কালিমেলা উদ্বোধনের আগে থেকেই মানুষের মাঝে সাজ সাজ রব পড়ে যেত। কালি পাটে উঠবে এ মর্মে অনেক আগে থেকেই সোরগোল চলতে থাকত গরু-মহিষ ও ঘোড়া কেনা-বেচা হত প্রায় অর্ধশতাধিক ইভেন্টে। আর কালি পাটে উঠার পর সে আলোকে আশাবাদী দর্শকেরা মাহেন্দ্রক্ষণের অপেক্ষায় প্রহর গুনতে থাকে। মেলায় গ্রামের জনগণের মনের খোরাক অফুরন্ত বিনোদনের জন্য যাত্রাপালা, পুতুল নাচ, সার্কাসসহ বিভিন্ন ইভেন্ট ও ডিজিটাল সময়ের ভ্যারাইটি, ম্যাজিক ‘শো’ সম্বলিত, ঘরের সৌন্দয্য বৃদ্ধিকারী বিভিন্ন ডিজাইনের আসবাবপত্র, পোষাক ও বিভিন্ন রকমের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছাড়াও নানা উপকরণে ভরপুর থাকতো।

বছরে একটি মাস প্রত্যন্ত পল্লীর মানুষের বিনোদনের এক অপূর্ব আয়োজন ও অতীত ইতিহাস হিসেবে দেশের উত্তরবঙ্গে ঢেমঢেমিয়া কালিমেলা স্বাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে থাকলোও কিন্তু এবছরে শনিবার দুপুরে মেলার সরিজমিনে দেখা যায় কয়েকটি ইভেন্টে গত বৃহস্পতিবার থেকে আসা মহিষ, ঘোড়া কেনা-বেচা চলছে এবং আজকেই কেনা-বেচার শেষ দিন।অন্যদিকে হাতে গোনা কয়েকটি খাবারের দোকান সহ খেলনার দোকান ও ১০টির মত কসমেটিক দোকান চলবে আরও কিছুদিন পর্যন্ত।