মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কাশ্মীরে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হামলায় ৫ শ্রমিক নিহত

জম্মু ও কাশ্মীরের কুলগ্রাম জেলায় বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হামলায় ৫ শ্রমিক নিহত ও আরেকজন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবারের এ ঘটনায় হতাহতদের সবাই পশ্চিম বঙ্গ থেকে সেখানে গিয়েছিলেন। খবর এনডিটিভির।

ওই শ্রমিকরা পশ্চিম বঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার সাগরদিঘি এলাকার বাসিন্দা বলে জানিয়েছে পুলিশ। তারা কুলগ্রামের স্থানীয় এক বাসিন্দার বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। সেখানেই তাদের ওপর হামলা হয়।

পুলিশের বরাতে আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে, সাগরদিঘির বহালনগর গ্রাম থেকে আপেল বাগানে কাজ করতে কাশ্মীরে যাওয়া প্রায় ১৫ জনের একটি দল কুলগ্রামের কটরাসু গ্রামে একটি কাঠের বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতো। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিচ্ছিন্নতাবাদীরা তাদের কয়েক জনকে ঘর থেকে বের করে এনে তাদের ওপর গুলি চালায়। এতে ৫ জন নিহত ও একজন গুরুতর আহত হন।  

নিহত কামরুদ্দিন শেখ, মুরসালিম শেখ ও রফিকুল শেখ ৩০ বছর বয়সী এবং রফিক শেখ ও নইমুদ্দিন শেখ ২৮ বছর বয়সী বলে জানিয়েছে আনন্দবাজার। আহত জহিরুদ্দিনকে অনন্তনাগ জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

দক্ষিণ কাশ্মীর পুলিশের ডেপুটি মহাপরিদর্শকের নেতৃত্বে ঘটনাস্থলে একটি পুলিশ টিম পাঠানো হয়েছে বলে জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের মহাপরিচালক দিলবাগ সিং এনডিটিভিকে জানিয়েছেন।

পশ্চিম বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘কাশ্মীরের এ নৃশংস হত্যাকাণ্ডে আমরা মর্মাহত ও গভীরভাবে শোকাচ্ছন্ন। মুর্শিদাবাদ থেকে যাওয়া ৫ শ্রমিক প্রাণ হারিয়েছেন। কথা দিয়ে নিহত পরিবারগুলোর শোক দূর করা যাবে না। এই শোচনীয় পরিস্থিতিতে ওই পরিবারগুলোকে সব ধরনের সাহায্য-সহযোগিতা দেওয়া হবে।’

আনন্দবাজার বলেছে, ভারত সরকারের উদ্যোগে জম্মু ও কাশ্মীরের পরিস্থিতি দেখানোর জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন পার্লামেন্টের বাছাই করা কিছু সদস্যের কাশ্মীর সফরের দিনই হামলাটি চালানো হয়।

গত ৫ আগস্ট জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে রাজ্যটিকে কেন্দ্র শাসিত দুটি প্রশাসনিক এলাকায় ভাগ করার ঘোষণা দেয় নয়াদিল্লি। এর পর থেকে কাশ্মীরকে কার্যত অবরুদ্ধ করে রেখেছে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী।