সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কাহারোলে কৃষক দিলীপ লতিরাজ কচু চাষ করে ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটিয়েছেন

কাহারোল (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ঃ কাহারোলে কৃষক দিলীপ চন্দ্র রায় লতিরাজ কচু চাষ করে সাবলম্বী হয়ে উঠেছে। কৃষক দিলীপ চন্দ্র রায়ের সংসার আগের চেয়ে বর্তমানে চলছে সুন্দর ভাবে। জানা যায়, দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলা মুকুন্দপুর ইউনিয়নের উত্তর রামপুর গ্রামে ৫০ শতাংশ জমিতে গত এপ্রিল’১৯ মাসে উপজেলা কৃষি অফিসের সহায়তায় লতিরাজ কচু রোপন করেন নিজ জমিতে। সেই লতিরাজ কচু রোপনের পর থেকে নিয়মিত যত্ম নেওয়ার পর গত আগস্ট’১৯ মাস থেকে লতিরাজ কচু বিক্রি করতে শুরু করেন। কৃষক দিলীপ চন্দ্র রায় জানান, উপজেলা কৃষি অফিসের সহায়তায় আমি এই লতিরাজ কচুর প্রথম চাষ শুরু করি এই এলাকায় ও এ যাবৎ ৩৫ হাজার টাকার মত বিক্রিও করেছি এবং লতিরাজ কচুর চারা গুলো বিক্রি হবে আনুমানিক ৩০ হাজার টাকারও অধিক। সে ৫০ শতাংশ জমিতে ৭ হাজার টাকা খরচ করি এবং অল্প সময়ে অধিক লাভবান হয়েছি। তার মত এলাকার অনেক কৃষক লতিরাজ কচু চাষ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলে কৃষক দিলীপ চন্দ্র রায় জানান। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, সরকারের এনএটিপি ফেইস-২ এই প্রকল্পের আওতায় উচ্চ মূল্য ফসল উৎপাদন প্রযুক্তি প্রদর্শনীর মাধ্যমে এই প্রথম দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় লতিরাজ কচু চাষে ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছেন। এই প্রদর্শনী দেখতে গত ৭ সেপ্টেম্বর’১৯ সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়ের এনএটিপি ফেইস-২ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. রতন চন্দ্র দে, উপ-পরিচালক, খামার বাড়ি দিনাজপুর মোঃ তৌহিদুল ইকবাল, অতিরিক্ত উপ-পরিচালক খামার বাড়ি, দিনাজপুর বিপ্লব কুমার মহন্ত উপজেলার মুকুন্দপুর ইউনিয়নের উত্তর রামপুর গ্রামের কৃষক দিলীপ চন্দ্র রায়ের লতিরাজ কচু চাষ করা জমিতে পরিদর্শনে আসেন। তারা আশা প্রকাশ করেন, এই ফসল উৎপাদনের ক্ষেত্রে উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের কৃষকদেরকে উদ্ভুদ্ধ করার জন্য উপজেলা কৃষি বিভাগকে পরামর্শ প্রদান করেছেন। এদিকে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আবু জাফর মোঃ সাদেক এই প্রতিনিধিকে জানান, উপজেলার মুকুন্দপুর ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের কৃষক দিলীপকে লতিরাজ কচু চারা জয়পুর হাট জেলা থেকে এনে দেওয়া হয় এবং তাকে এই ফসল চাষ করতে কৃষি বিভাগ সহায়তা প্রদান করেন। তিনি আরও জানান, লতিরাজ কচু চাষে অত্র উপজেলার মাটি ও আবহাওয়া সবচেয়ে উপযোগী। তাই এখন থেকে কৃষি বিভাগ এই ফসল চাষাবাদের ক্ষেত্রে কৃষককে সার্বক্ষনিক পরামর্শ দিয়ে যাবে।