শনিবার ১৬ নভেম্বর ২০১৯ ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কাহারোলে শ্রীনিগমানন্দ সেবাশ্রমে ডাকাতি

Ka Mondirসুকুমার রায় : কাহারোল উপজেলার একটি হিন্দু ধর্মীয় সেবাশ্রমে এবার সহিংস ঘটনা ঘটিয়েছে দুস্কৃতিকারীরা। প্রশাসন এই ঘটনাকে বলছে ডাকাতি। আর প্রতিষ্ঠানের সংশি­ষ্টরা বলছেন, এটি একটি পরিকল্পিত হামলা।

দিনাজপুরের কাহারোলে সেবাশ্রমে ডাকাতি সংগঠিত হয়েছে। সংঘবদ্ধ ডাকাতদল সেবাশ্রমের মূল্যবান জিনিসপত্র লুট ও ভাংচুর করেছে। তাদের হামলায় সেবাশ্রমের কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ভোররাত আনুমানিক ৪ টার সময় ১৫-২০ জনের একদল ডাকাত উপজেলার শ্রীনিগমানন্দ স্বারসত সেবাশ্রমের প্রাচীর টপকিয়ে ভিতরে প্রবেশ করে। ডাকাতদল অস্ত্রের মুখে সেবাশ্রমে বসবাসরত শিক্ষার্থীদের জিম্মি করে। পরে কম্পিউটার রুমের দরজা ভেঙ্গে সেবাশ্রমের বিভিন্ন প্রতিমার ছবি ভাংচুর ও তছনছ করে। ডাকাতদের হামলায় সেবাশ্রমের কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। এসময় তারা একটি ল্যাপটপ ও একটি আইপিএস, থালা-বাসনসহ প্রায় লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

নিগমানন্দ সারস্বত সেবাশ্রম এর পরিচালক নন্দ দুলাল চক্রবর্তী সাংবাদিকদের জানান, দুস্কৃতিকারীরা মন্দিরে হামলা ও প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন মালামাল ভাংচুর ও লুট করে নিয়ে যায়। পরিকল্পিতভাবে এই ঘটনা ঘটানো হয় বলে ইঙ্গিত দেন প্রতিষ্ঠানের এই কর্ণধার।

কাহারোল থানার ওসি মোসাবিবরুল হক সাংবাদিকদের জানান, দুস্কৃতিকারীরা কি উদ্দেশ্যে এখানে হামলা করতে এসেছিলো তা তদমত্ম করে দেখা হচ্ছে এবং দুস্কৃতিকারীদের ছাড় দেয়া হবে না।

গতকাল দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মোঃ শামীম আল রাজি, জেলা পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন, কাহারোল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রবিউল ফয়সাল, এডিশনাল এ.এস.পি মোঃ নাজমুল আলম, বীরগঞ্জ সার্কেল এএসপি অসিত কুমার ঘোষ ও কাহারোল থানা অফিসার ইনচার্জ মোসাবেবরুল হক, জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারন সম্পাদক পরিমল চক্রবর্তী তপন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি। তবে মামলার প্রস্ত্ততি চলছে বলে কাহারোল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোসাবেবরুল হক জানান।