রবিবার ২৬ মে ২০১৯ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কাহারোলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ জন ডাক্তার নিয়ে চলছে স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম

সুকুমার রায়, কাহারোল (দিনাজপুর) সংবাদদাতা ঃ কাহারোলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তার সংকট পিছু ছাড়ছে না, এর ফলে জনসাধারণ ও রোগীরা চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত।

দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলাটি ছয়টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। আর এই উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের প্রায় দেড় লক্ষ জনগোষ্ঠীর চিকিৎসা পাওয়ার একমাত্র প্রতিষ্ঠান কাহারোল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স আছে কিন্ত সেবা দেওয়ার মত সেই পরিমাণে তেমন ডাক্তার নেই। ডাক্তার অভাবের পাশাপাশি এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দীর্ঘদিন ধরে এক্স-রে মেশিনের ফিল্ম সংকট ও এ্যাম্বুলেন্সটি বিকল হয়ে পড়ে থাকায় অত্র উপজেলার জনসাধারণ এবং জরুরী রোগীরা এইসব সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। কাহারোল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে ডাক্তার সংকটের কারণে রোগীরা চিকিৎসা গ্রহণের জন্য শহরমুখী হচ্ছে বাধ্য হয়ে। ৩১ শয্যা বিশিষ্ট এই সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পনেরটি পদে ডাক্তার থাকার কথা থাকলেও কাগজে-কলমে আছে মাত্র পাঁচ জন। পাঁচ জনের মধ্যে একজন আছেন মাতৃত্বকালিন ছুটিতে, আরেকজন ডেপুটিশনে চলে গেছে নীলফামারি মেডিক্যাল কলেজে, আর বাকি তিন জন ডাক্তার দিয়ে চলছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম। অত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ শফিউল আজম প্রশাসনিক কার্যক্রমের পাশাপাশি নিয়মিত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে দেখা যাচ্ছে। এর ফলে ঐ কর্মকর্তার প্রশাসনিক কাজ করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন ডাক্তার না থাকার কারণে। সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আউট-ডোরে প্রতিদিন উপজেলা বিভিন্ন এলাকা থেকে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য আসা রোগীরা লাইনে দাঁড়িয়ে ডাক্তার না থাকায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত দুই জন ডাক্তারের নিকট থেকে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করছেন। লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা রোগীদের মধ্যে মহিলা ও শিশু রোগীর সংখ্যা বেশী পরিলক্ষিত হচ্ছে। অত্র সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কোন ডাক্তার বদলি হয়ে আসলেও মাস দু’য়েক পর ঐ ডাক্তার ডেপুটিশনে বা তদবির করে নিজস্ব পছন্দীয় স্থানে চলে যেতে দেখা যায়। ফলে কাহারোল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তারের অভাব দিনের পর দিন থেকেই যায়। এদিকে ১৮ এপ্রিল দুপুর সাড়ে ১২ টার সময় কাহারোল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ শফিউল আজমের সাথে ডাক্তারের সংকট ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সম্পর্কে কথা হলে তিনি এই প্রতিনিধিকে জানান, অত্র স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পনেরটি বিভিন্ন পদে ডাক্তার থাকার কথা থাকলেও আছে মাত্র তিন জন। আমি সহ তিন জনেই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে অত্র উপজেলার জনসাধারণ ও রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছি। ডাক্তারের পদ শুণ্য থাকার বিষয়ে উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকে পত্রের মাধ্যমে ও মৌখিক ভাবে অনেক বার জানানো হয়েছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ চিকিৎসক দেওয়ার কথা থাকলেও এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এখন পর্যন্ত কোন চিকিৎসক নিয়োগ দেননি।