শুক্রবার ২ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ১৯শে মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

কিএক্টাবস্তানা

কিএক্টাবস্তানা। এটা একটা বাংলা শব্দ। বিশ্বাস হচ্ছেনা! আপনার বিস্ময় আরেকটু বাড়িয়ে দেই-এটাকে যথাযথভাবে ভাংতে পারলে আপনি আসলে এখান থেকে পুরো একটা বাক্যই পেয়ে যাবেন। যাই হোক সে প্রসঙ্গে পড়ে আসছি।

বলা হয় ইন্দো-ইউরোপীয়ান ভাষা গোষ্ঠির বংশধর আজকের বাংলা ভাষা। সেখান থেকে ক্রম বিবর্তনের পথ ধরে এ ভাষা আজকের রূপ নিয়েছে। একটা উদাহরণ দেই-
ইন্দো-ইউরোপীয়ান একটা বাক্য ছিলো এমন- ‘য়ুস এক্কোম স্পেক্যিএথে।’
আর্যরা এটাকে বললেন- ‘য়ুস অশ্বম স্পশ্যাথ।’
আবার প্রাচীন ভারতীয় আর্য কথ্য ভাষায় এটা হয়ে গেল- ‘তুস্মে ঘোটকং দৃক্ষত।’
শতম, আর্য, প্রাচীন ভারতীয় আর্য ইত্যাদি অনেকগুলো স্তর পেরিয়ে বিবর্তিত হতে হতে আধুনিক বাংলায় বাক্যটি দাঁড়ালো- ‘তুমি ঘোড়া দেখ।’ আজকের দিনের সর্বাধুনিক বাংলায় এ বাক্য এখন-‘তুমি ঘোড়া দ্যাখ।’ এতো গেল ভাষা সৃষ্টির বিবর্তিত ধারার গল্প। ভাষা সৃষ্টির আগের গল্পেও অনেক অদ্ভুতুড়ে তত্ত্বের অবির্ভাব হতে দেখা যায়। ধ্বনি থেকে বাংলা ভাষা সৃষ্টির যে হাস্যকর তত্ত্ব হাজির করা হয়েছে সেটাও কম মজার নয়। কেউ বলেছেন কুকুরের আওয়াজ থেকে বাংলা ধ্বনি তৈরী হয়েছে। এ তত্ত্বের নাম ‘ভো ভো তত্ত্ব।’ এভাবে মানুষের আবেগ জনিত আওয়াজ থেকে ‘পুঃ পুঃ তত্ত্ব, বস্তুর আওয়াজ থেকে ‘ডিং ডঙ’ তত্ত্ব ইত্যাদি।

বলা হয় বাঙ্গালীর রক্ত মিশ্রন দোষে দুষ্ট। অন্যদিকে বাংলাভাষার শব্দ ভান্ডারের অধিকাংশই বিদেশী শব্দ। বত্রিশ’শ বছর আগের বেদে উল্লেখ করা হয়েছে যে ‘বঙ্গ’ শব্দটি সেটাও নাকি অস্ট্রিক জনগোষ্ঠির নিজস্ব শব্দ। প্রাচীন যুগের বাংলায় সংস্কৃত, মধ্যযুগে মুসলমানদের হাত ধরে আরবি ফার্সি, আঠার’শ শতাব্দীর প্রথম থেকে ইংরেজী পর্তুগিজ শব্দ বাংলায় ঢুকেছে বিরামহীণভাবে। তাহলে বাঙ্গালী বা বাংলা ভাষার মৌলিকত্ব কোথায়! আধুনিক বাংলার বয়স খুব বেশী না। এ ভাষার লিখিত সাহিত্যে আধুনিকতা এসেছে মাত্র শ’তিনেক বছর আগে। চর্যাপদের গীতিকাব্যগুলোকে বলা হয় বাংলায় লিখিত আদি সাহিত্য। যদিও হিন্দিসহ আরও কিছু ভাষাও একই দাবী করে তবুও সাহিত্য গবেষকরা বাংলাকেই দিকে চান মুল কৃতিত্বটা। চর্যাপদের একান্নটি পদের একটির সাথেও এ অধমের পরিচয় নেই। এগুলো বুঝতে পারাতো আরও দুরের ব্যাপার। এ পদের আবিস্কারক হরপ্রসাদ সাস্ত্রী নিজেই বলেছেন সে ব্যাপারে, ‘চর্যাপদের ভাষাকে বলা যায় সান্ধ্যভাষা। সান্ধ্যভাষা মানে আলো আধারীর ভাষা। খানিকটা বুঝা যায় কতকটা বুঝা যায়না।’

জীবজগতের বিবর্তনের ধারাটি দৃশ্যমান না হলেও ভাষা বিবর্তিত হতে দেখছি আমরা চোখের সামনেই। উনবিংশ শতাব্দির একেবারে প্রথমদিক থেকেই মুলত বাংলাভাষা সাহিত্যে আধুনিকতার পরশ লেগেছে। সে আধুনিকতার যাত্রায় পথ দেখিয়েছেন মাইকেল মধুসুদন দত্ত সহ আরও অনেকেই। রবীন্দ্র-নজরুল সাহিত্য সর্বস্তরের সামাজিক মানুষদের তাতে সম্পৃক্ত করে দিয়েছে। বাংলাভাষার আঙ্গিক গঠনে ভুমিকা রেখেছে ধর্মও। চর্যাপদ আবর্তিত হয়েছে বৌদ্ধ ধর্মীয় বাণী প্রচারে। এছাড়া বেদ রামায়ন মহাভারতের মত ঐতিহাসিক সাহিত্যের বাংলায় রূপান্তর আর অসংখ্য পুথি সাহিত্য রচনার ক্ষেত্রেও মুল উপজিব্য ধর্মই। তাই খালা ফুফুর পাশাপাশি মাসি পিসিও বাংলার সাথে চলছে সাচ্ছন্দেই।

যাই হোক বাংলা ভাষার ক্রম বিবর্তনের ব্যবচ্ছেদ আমার পক্ষে সম্ভব না। সে চেষ্টা আমি করছিও না। তবে সাম্প্রতিক সময়ের লিখিত ও কথ্য বাংলার দ্রুত বিবর্তন প্রবণতাকে পাশ কাটিয়ে এড়িয়ে চলাও বোধহয় সহজ না । যেমন ধরুন আমাদের ফেসবুক সাহিত্যের ভাষা। অল্প বয়সী ছেলে মেয়েরাই বিশেষত এ সাহিত্যের কান্ডারি। অসীম দক্ষতায় তারা লিখিত বাংলায় নতুন নতুন শব্দরাজি সংযোজন বিয়োজনের মধ্যে দিয়ে এ ভাষাকে সমৃদ্ধ করে চলেছে। বাংলায় বিদেশী ভাষার অন্তর্ভুক্তি যেহেতু নতুন কিছু না তাই তাদের এই প্রয়াসকে ইতিবাচক দৃষ্টিতেই দেখা উচিৎ। চেয়ার টেবিল আনারস আতা যদি নির্দোষ হয় তবে কথায় কথায় অনায়াস উচ্চারন সো, সোদ্যাট, ট্রিট বা ফ্রান্স কে-ই বা বাংলা মেনে নেবে না কেন!
বাংলাভাষা বোধহয় খুব দ্রুতই একটা বড় ধরনের বিবর্তনের পথে আগাচ্ছে।

এসব দেখেশুনে পরিচিত একজনকে কয়েকদিন আগে বলতে শুনলাম, ‘কি একটা অবস্হা না!’
আমি বললাম, ‘আপনার এ বাক্যটাও বিবর্তিত হয়েছে- কিএক্টাবস্তানা।’

লেখক-সুভাষ দাশ

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর

%d bloggers like this: